corona virus btn
corona virus btn
Loading

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুরে দেখুন প্রধানমন্ত্রী, কেন্দ্রের কাছে সাহায্যের আবেদন মমতার

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুরে দেখুন প্রধানমন্ত্রী, কেন্দ্রের কাছে সাহায্যের আবেদন মমতার

ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত এলাকা ঘুরে দেখে রাজ্যকে সাহায্যের আবেদন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ৷

  • Share this:

#কলকাতা: আমফানের জেরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি রাজ্য জুড়ে৷ সুপার সাইক্লোনের দাপটে প্রাণ গিয়েছে বহু মানুষের ৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে মুখ্যমন্ত্রীর অনুরোধ, রাজ্যে এসে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা ঘুরে দেখুন ৷ ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত এলাকা ঘুরে দেখে রাজ্যকে সাহায্যের আবেদন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ৷ এদিন ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী পরিস্থিতির খোঁজ নিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ফোন করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ৷ সেই ফোনেই রাজ্যের ক্ষয়ক্ষতি ও বর্তমান পরিস্থিতি জানানোর সঙ্গে সঙ্গেই প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই আবেদন রাখেন মুখ্যমন্ত্রী ৷ নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক থেকে তিনি নিজেই এই কথা জানিয়েছেন ৷

বৃহস্পতিবার রাজ্যে আমফানে মৃতদের পরিবারকে আড়াই লক্ষ টাকা করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তিনি বলেন, ‘এই দুর্যোগে যারা প্রাণ হারিয়েছেন তাদের পরিবারকে সহানুভূতি জানানোর ভাষা নেই আমার ৷ তবু যদি এই টাকাগুলো পেয়ে কিছুটা উপকার হয় ৷ ’

রাজ্যে ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে গুড়িয়ে গিয়েছে দুই পরগণা ৷ তছনছ কলকাতা ৷ সুপার সাইক্লোন আমফানে মৃত্যু বহু মানুষের ৷ এখনও পর্যন্ত গোটা রাজ্যে ৭২ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে ৷সাইক্লোন আমফানের জেরে খোদ কলকাতার বুকে ১৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে ৷ খাস কলকাতায় রিজেন্ট পার্ক এলাকায় সাইক্লোনের সময় গাছ উপড়ে মা -ছেলের মৃত্যু হয়েছে ৷ রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, এখনও পর্যন্ত গোটা রাজ্যে ৭২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে ৷ এর মধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনায় মৃত ৭, উত্তর ২৪ পরগনায় আমফানে ১৭ জনের মৃত্যু, হাওড়ায় মৃত্যু ৩ জনের, হুগলিতে মৃত্যু ৪ জনের, পূর্ব মেদিনীপুরে আমফানের বলি ৬ ৷ পশ্চিম মেদিনীপুর থেকেও ২ জনের মৃত্যুর খবর এসেছে ৷ পূর্ব বর্ধমানে আমফানের বলি ১, নদিয়ায় আমফানের জেরে ৪ জনের মৃত্যু, সুন্দরবনে ৪ জনের মৃত্যু, ডায়মন্ড হারবার থেকে ৮ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে,পূর্ব মেদিনীপুর ৬, রানাঘাট থেকে ৬ ও বারুইপুর থেকে ৬ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে ৷

সুপার সাইক্লোন আমফানের তাণ্ডবের পর প্রায় ২৪ ঘণ্টা কাটতে চলেছে ৷ এখনও বোঝা সম্ভব হয়নি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৷ গ্রাম থেকে শহর আমফানে বিপুল ক্ষতিগ্রস্থ ৷ আয়লা, বুলবুল, ফণী....ক্ষতি হয়েছে অনেক। কিন্তু আমফান ছাপিয়ে গেছে সেসবকে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিধ্বংসী আমফানের সঙ্গে তুলনা টানা যায় শুধু ১৭৩৭ ও ১৮৬৪ সালের ঘূর্ণিঝড়ের। মৃত্যু সংখ্যায় নয়, ঝড়ের দক্ষযজ্ঞে। আমফানে তাণ্ডবে ধূলিসাৎ বহু গুড়িয়ে গিয়েছে দুই পরগণা ৷ তছনছ কলকাতা, পূর্ব মেদিনীপুর ৷ সুপার সাইক্লোন আমফানে মৃত্যু বহু মানুষের ৷ এখনও পর্যন্ত গোটা রাজ্যে ৭২ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে ৷ সাইক্লোন আমফানের জেরে খোদ কলকাতার বুকে ১৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে ৷ বহু এলাকা বিদ্যুৎহীন-টেলি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ৷ উপড়ে গিয়েছে লক্ষাধিক গাছ ৷ আমফানের তাণ্ডবলীলা দেখে মুখ্যমন্ত্রী মন্তব্য করেন, ধ্বংসস্তূপের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছি ৷ কত ক্ষয়ক্ষতি বুঝতে বুঝতেই ৩-৪ দিন লেগে যাবে ৷এদিন নবান্নে সাংবাদিক বৈঠক থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোটা রাজ্যে কত ক্ষয়ক্ষতি আধিকারিকদের সাতদিনের মধ্যে তার রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন ৷

Published by: Elina Datta
First published: May 21, 2020, 8:21 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर