এসএফআইয়ের নাগরিকত্ব আইন বিরোধী মিছিলে বহিরাগতর প্রবেশে অশান্তি

এসএফআইয়ের নাগরিকত্ব আইন বিরোধী মিছিলে বহিরাগতর প্রবেশে অশান্তি
ফাইল চিত্র

এন আর সি, সি এ এ বা নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে, দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে মিছিলের ডাক দিয়েছিল এসএফআই কলকাতা জেলা কমিটি।

  • Share this:

ABHIJIT CHANDA

#কলকাতা: রাজাবাজারে এসএফআইয়ের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বিরোধী মিছিলে উৎশৃঙ্খল জনতার বিশৃঙ্খলা। বিজেপি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের কুশপুতুল পোড়ানোর আগেই উৎশৃঙ্খল জনতা জুতাপেটা করল কুশপুতুল এর ওপর। বেলা তিনটের সময় রাজা বাজার মোড়ে জমায়েত এসএফআই সর্মথকদের ৷ এন আর সি, সি এ এ বা নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে, দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে মিছিলের ডাক দিয়েছিল এসএফআই কলকাতা জেলা কমিটি। গন্ডগোল এড়ানোর জন্য আগে থেকেই সেখানে মোতায়েন ছিল প্রচুর পুলিশ । বিকেল চারটের সময় রাজাবাজার মোড় থেকে মিছিল শুরু হয়। রাজাবাজার ট্রাম ডিপো, সায়েন্স কলেজ হয়ে মিছিল আবার রাজাবাজার মোড়ে আসে।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বিরুদ্ধে তীব্র স্লোগান; নো এনআরসি, নো সি এ এ স্লোগানে গোটা এলাকা মুখরিত হয়ে ওঠে। মিছিলে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহের ছবি লাগানো একটি কুশপুতুল ছিল, যেটি রাজাবাজার মোড়ে মিছিল শেষ হওয়ার পর পোড়ানোর কথা ছিল। কিন্তু মিছিল রাজা বাজার মোড়ে পৌছতেই এলাকার কিছু উৎশৃঙ্খল জনতা মিছিলের মধ্যে ঢুকে পড়ে। ঢুকেই তারা অশ্লীল বাক্য সহযোগে জুতাপেটা করতে শুরু করে কুশপুতুল টিকে। অমিত শাহের পোস্টার ছবি ছিড়ে ফেলে।পুলিশ এবং এসএফআই কর্মীদের সহযোগিতায় এই উৎশৃঙ্খল জনতাকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর দ্রুত কুশপুতুল পোড়ানো হয়। এই ঘটনার জেরে প্রায় আধ ঘন্টার মতো রাজাবাজার এলাকা বন্ধ হয়ে যায়। শিয়ালদহ থেকে মানিকতলা এলাকা পর্যন্ত তীব্র যানজট ছড়িয়ে পড়ে। যদিও গন্ডগোল যাতে আর না হয়, তার জন্য এসএফআইয়ের পক্ষ থেকে মিছিল সেখানেই শেষ করে দেওয়া হয়। মঙ্গলবার ধর্মতলা থেকে শিয়ালদহ মাজার পর্যন্ত এসএফআই ডিওয়াইএফআই সহ বিভিন্ন বাম ছাত্র যুব সংগঠনের ডাকে এক বিশাল প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দেওয়া হয়েছে।
First published: December 16, 2019, 9:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर