হিন্দু হস্টেল নিয়ে টানা পথ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার, তবে আন্দোলনের ঝাঁঝ বাড়ানোর হুঁশিয়ারি

হিন্দু হস্টেল নিয়ে টানা পথ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার, তবে আন্দোলনের ঝাঁঝ বাড়ানোর হুঁশিয়ারি

প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে হিন্দু হস্টেল ইস্যুতে আন্দোলন চলছে গত দেড় মাস ধরে। তবুও আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনায় ?

  • Share this:
#কলকাতা: টানা চব্বিশ ঘন্টা পর পথ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করলেন পড়ুয়ারা। প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে হিন্দু হস্টেল ইস্যুতে আন্দোলন চলছে গত দেড় মাস ধরে। তবুও আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি নন কর্তৃপক্ষ। তাই বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে  রাস্তা অবরোধ কর্মসূচির ডাক দেন পড়ুয়ারা । এদিন  বিকেল থেকে কলেজ স্ট্রিট চার মাথার মোড় অবরোধ করে রাখেন কয়েকশো পড়ুয়া। সারারাত চলে অবরোধ। প্রতিবাদী স্লোগানে মুখরিত হয় কলেজ স্ট্রিট বইপাড়া।  হিন্দু এবং গার্লস হস্টেলের একাধিক ইস্যু নিয়ে প্রতিবাদ আন্দোলনে  সামিল হন পড়ুয়ারা। পড়ুয়াদের সাফ বক্তব্য ছিল ,যতক্ষণ না উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়া এসে তাঁদের সঙ্গে আলোচনায় বসছেন, ততক্ষণ পথ অবরোধ চলবে।
হিন্দু হস্টেলের তিন, চার ও পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের কাজ দ্রুত শেষ করতে হবে, এই দাবি নিয়ে শুরু হয়েছিল পড়ুয়াদের বিক্ষোভ। পরে সেই তালিকায় যোগ হয় আরও কিছু দাবি। হস্টেলে রান্নার দায়িত্বে থাকা কর্মীদের কেন বসিয়ে দেওয়া হয়েছে, সেই প্রশ্ন তোলেন আবাসিকেরা। দাবি ওঠে , কর্মী-সংখ্যা বাড়ানোরও। এই দাবিগুলো নিয়েই দীর্ঘ দিন ধরেই আন্দোলন চালাচ্ছেন পড়ুয়ারা। আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের অন্যতম প্রিয়াঙ্কা দাসের  অভিযোগ, হস্টেলের একাংশ সংস্কার হলেও পুরো সংস্কার করা হয়নি। আরও অভিযোগ, বার বার কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানো সত্ত্বেও তারা সমস্যা সমাধানে কোনরকম সদর্থক ভূমিকা নিচ্ছে না।
দাবিগুলো কর্তৃপক্ষের নজরে আনতে বাধ্য হয়েই তাঁদের এই পথ অবরোধ আন্দোলন সামিল হওয়া। টানা এই পথ অবরোধ কর্মসূচি চলাকালীন কর্তৃপক্ষের তরফে কেউই আলোচনায় বসার কথা  না জানানোয় রীতিমতো ক্ষুব্দ হয়ে ওঠেন আন্দোলনকারীরা । বলাবাহুল্য , পড়ুয়াদের এই পথ অবরোধের জেরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে যান চলাচল । স্বভাবতই ভোগান্তির শিকার হন পথ চলতি মানুষ। যদিও যদিও অ্যাম্বুলেন্সকে  ছাড় দেন বিক্ষোভকারীরা । টানা পথ অবরোধ আন্দোলনের জেরে মাঝেমধ্যেই পথচলতি মানুষজনের সঙ্গে পড়ুয়াদের বচসায় জড়িয়ে পড়ার  ঘটনা   লক্ষ্য করা যায়। ব্যবসা মার খাওয়ায় অবরোধ মুক্ত করার দাবি জানানো হয় স্থানীয় ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকেও। তবুও  নিজেদের দাবিতে অনড় ছিলেন ছাত্রছাত্রীরা ।
টানা প্রায় চব্বিশ ঘন্টা পথ অবরোধের পর শেষমেষ বাসিন্দাদের ভোগান্তির কথা ভেবে পথ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হয়। পথ অবরোধ আন্দোলন থেকে সরে এলেও নিজেদের আন্দোলনে এখনও অনড় আন্দোলনকারীরা। তাঁদের হুঁশিয়ারি, কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আগামী দিনে আন্দোলনের  ঝাঁঝ আরও বাড়ানো হবে। আজ বিকেল পাঁচটা নাগাদ নিজেদের মধ্যে জিবি বৈঠক করার পর পথ অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘোষণা করেন আন্দোলনকারীরা। অবরোধ মুক্ত হওয়ার পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয় ।
কলেজ স্ট্রিট মোড় থেকে এরপর মিছিল করে  প্রেসিডেন্সি ক্যাম্পাসে এসে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে প্রতিবাদী ছাত্র অঙ্কিত চট্টোপাধ্যায় বলেন, ' উৎসবের মরসুমে সাধারণ মানুষের  সমস্যার কথা ভেবেই  আমরা পথ অবরোধ কর্মসূচি থেকে সরে এলাম। তবে তার মানে এই নয় , কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আমাদের যে দাবিতে আন্দোলন সেই দাবি থেকে আমরা সরে এসেছি। দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলনের রাস্তাতেই থাকব। ছাত্র-ছাত্রীদের স্বার্থে যতদূর যেতে হয় যাব'।
VENKATESWAR  LAHIRI 
First published: March 9, 2020, 11:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर