সেই 'আজাদ হিন্দ সঙ্ঘ' পুনরুদ্ধার করতে চলেছেন চন্দ্র বসু

সেই 'আজাদ হিন্দ সঙ্ঘ' পুনরুদ্ধার করতে চলেছেন চন্দ্র বসু
চন্দ্র বসু

চন্দ্র বসু জানান, শরত্‍চন্দ্র বসুর ছেলে ও সুভাষচন্দ্র বসুর ভাইপো অমিয়নাথ বসু ১৯৭১ সালে একটি দল গঠন করেন৷ এই দলের নাম ছিল আজাদ হিন্দ সঙ্ঘ৷

  • Share this:

#কলকাতা: আজাদ হিন্দ সঙ্ঘকে পুনরায় গড়ে তোলার পরিকল্পনা করছেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নাতি চন্দ্র বসু৷ আজাদ হিন্দ সঙ্ঘ তৈরি করেছিলেন তাঁর বাবা অমিয় নাথ বসু৷

চন্দ্র বসু জানান, শরত্‍চন্দ্র বসুর ছেলে ও সুভাষচন্দ্র বসুর ভাইপো অমিয়নাথ বসু ১৯৭১ সালে একটি দল গঠন করেন৷ এই দলের নাম ছিল আজাদ হিন্দ সঙ্ঘ৷ অমিয় নাথ বসু ছিলেন লোকসভা সাংসদ৷ সম্প্রতি পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মহম্মদ আলি জিন্নাহকে অসাম্প্রদায়িক নেতা আখ্যা দিয়ে বিতর্ক তৈরি করেন বিজেপি নেতা চন্দ্র বসু৷ এ হেন চন্দ্র বসু News18-কে বললেন, 'যখন আমি বিজেপি-তে যোগ দিলাম, আমি দলের শীর্ষস্থানীয় নেতা সিদ্ধার্থনাথ সিংকে বলেছিলাম, আমি একটি শর্তেই বিজেপি-তে যোগ দেব, যদি আমায় নেতাজির আদর্শকে মেনে কাজ করতে দেওয়া হয়৷ আমি বিজেপি নেতাদের বলেছিলাম, আজাদ হিন্দ মোর্চা যুব শাখার মাধ্যমে আমি দলের কাজ করতে চাই৷ বিজেপি-তে একাধিক মোর্চা রয়েছে, তাই আমি ভেবেছিলাম, নেতাজির আদর্শকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করার এটাই ভালো উপায়৷'

সমস্যাটা কোথায় হল? চন্দ্র বসুর কথায়, 'আমার পরিকল্পনার পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন দেখে প্রথমে তাঁরা রাজি হয়েছিলেন৷ কিন্তু পরে আর কোনও সাড়া পাইনি৷ ওঁরা তখন আমায় পরামর্শ দিলেন, আজাদ শব্দটি তুলে তার জায়গায় জয় হিন্দ মোর্চা যুব শাখা নাম দিতে৷ ওঁদের বক্তব্য, আজাদ বা আজাদি শব্দটি বিতর্কিত৷ আমি তাতেও রাজি ছিলাম৷ কিন্তু তারপরেও আমার প্রস্তাব নিয়ে ওঁরা কোনও ইন্টারেস্ট দেখাননি৷ এ বার আজাদ হিন্দ সঙ্ঘকে আমি নিজেই ফের গড়ে তোলার পরিকল্পনা করছি৷'

কী ভাবে? চন্দ্র বসুর বক্তব্য, 'অমিত শাহ, নরেন্দ্র মোদির মতো আমিও বিজেপির একজন সিনিয়র নেতা৷ আমি বিজেপি-তেই থাকতে চাই৷ রাজ্য বিজেপির কয়েকটি ইস্যু ও আজাদ হিন্দ সঙ্ঘ নিয়ে কথা বলার জন্য আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছি৷ ২৩ জানুয়ারিকে জাতীয় দেশপ্রেম দিবস হিসেবে ঘোষণা করার জন্যও আমি ওঁকে অনুরোধ করব৷ খুব শীঘ্রই আজাদ হিন্দ সঙ্ঘকে গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে৷ আমার মনে হয়, বাংলায় একটা গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক শূন্যস্থান তৈরি হয়েছে৷'

First published: January 22, 2020, 10:28 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर