• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ‘প্রাথমিক শিক্ষায় হচ্ছেটা কী?’ কড়া সমালোচনা হাইকোর্টের, টেট মামলার রায়ে ফের বদলে যেতে পারে চাকরিপ্রার্থীদের ভবিষ্যত

‘প্রাথমিক শিক্ষায় হচ্ছেটা কী?’ কড়া সমালোচনা হাইকোর্টের, টেট মামলার রায়ে ফের বদলে যেতে পারে চাকরিপ্রার্থীদের ভবিষ্যত

কলকাতা হাইকোর্টে টেট মামলা

কলকাতা হাইকোর্টে টেট মামলা

‘প্রাথমিক শিক্ষায় হচ্ছেটা কী?’ কড়া সমালোচনা হাইকোর্টের, টেট মামলার রায়ে ফের বদলে যেতে পারে চাকরিপ্রার্থীদের ভবিষ্যত

  • Share this:

    #কলকাতা: প্রাথমিকের টেট নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে আবারও অস্বস্তিতে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। উত্তরপত্রে ভুল নিয়ে পর্ষদকে কার্যত তুলোধনা করল আদালত। টেট পরীক্ষায় উত্তরপত্রে পর্ষদের বেশ কয়েকটি ভুলে বেশ কিছু পরীক্ষার্থী বঞ্চিত হন বলে অভিযোগ। এই দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষাকর্তাদের নিয়েও কড়া মন্তব্য বিচারপতির।

    প্রাথমিকের টেট আয়োজনে শিক্ষাকর্তাদের যোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিল হাইকোর্ট। টেটের উত্তরপত্রে পর্ষদের বিরুদ্ধে ভুল উত্তরের অভিযোগে অবাক হাইকোর্ট। ঘটনায় দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তাদের নিয়ে চাঞ্চল্যকর মন্তব্য বিচারপতি সমাপ্তি চট্টোপাধ্যায়ের।

    তিনি বলেন,

    এরাজ্যে শিল্প নেই। একমাত্র শিল্প বলতে শিক্ষা। বিভিন্ন খাতে টাকা আসছে। সেই টাকা লুঠতরাজ চলছে। আমিও রাজ্যের নাগরিক। আমারও ভোটাধিকার আছে। আমিও প্রতিদিন অনেক কিছু শিখি। শিক্ষা দফতরের কর্তারা কেউ কিছু শেখেন না। কিছু জানেনও না।

    প্রাথমিকভাবে প্রাথমিকের টেটে ৫ টি প্রশ্নের ভুল উত্তর দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল পর্ষদের বিরুদ্ধে। বর্তমানে ১১ টি প্রশ্নে ভুল উত্তর দেওয়ার অভিযোগ উঠছে। পর্ষদের এই গাফিলতিতে বঞ্চনার অভিযোগে বেশ কিছু পরীক্ষার্থী মামলা করেন হাইকোর্টে। কী ধরণের ভুলের অভিযোগ করছেন পরীক্ষার্থীরা?

    প্রশ্ন ছিল- প্রাচ্য শব্দটির বিশেষ্য করলে হয়-

    পর্ষদের উত্তরমালা বলছে সঠিক উত্তর ডি অর্থাৎ প্রাচ্যা। কিন্তু মামলাকারীদের দাবি, সঠিক উত্তর হল প্রাচী।

    প্রশ্ন ছিল দুঃসাহসিক শব্দটিকে বর্ণবিশ্লেষণ করলে কি পাওয়া যায়

    পর্ষদের দাবি সি অপশনে দেওয়া উত্তর সঠিক । কিন্তু মামলাকারীদের দাবি কোনও অপশনেই সঠিক উত্তর দেওয়া হয়নি ৷

    পরীক্ষার্থীদের অভিযোগের সারবত্তা খুঁজে পেয়েছে হাইকোর্ট। তা তুলে ধরেই শিক্ষাকর্তাদের তোপ বিচারপতির,

    ‘টেট-এর প্রশ্নের কোনও সঠিক উত্তরই দেওয়া হচ্ছে না। তা হলে পরীক্ষার্থীরা উত্তর দেবে কীভাবে? যে প্রশ্নের উত্তরই হয় না তাতে পরীক্ষার্থীরা লিখবে কী? এটা কী কোনও পিএইচডি পরীক্ষা হচ্ছে? পরীক্ষার্থীদের হলফনামা দিয়ে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। প্রাথমিক শিক্ষায় হচ্ছেটা কী? ’

    বোর্ডের উত্তর ভুল না ঠিক? তা স্থির করতে রাজ্যের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে কমিটি গঠনের ইঙ্গিত হাইকোর্টের। বুধবার ফের এই মামলার শুনানি।

    First published: