Home /News /kolkata /
এমন ভুল! রাজ্য কমিশনের বিরুদ্ধে এক যোগে সরব বিরোধীরা

এমন ভুল! রাজ্য কমিশনের বিরুদ্ধে এক যোগে সরব বিরোধীরা

আগামী ১৪ মে ভোট রাজ্যের ৭ পুরসভায়। সেই পুরভোটের বিজ্ঞপ্তি নিয়েই বিতর্কে জেরবার রাজ্য নির্বাচন কমিশন।

  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: আগামী ১৪ মে ভোট রাজ্যের ৭ পুরসভায়। সেই পুরভোটের বিজ্ঞপ্তি নিয়েই বিতর্কে জেরবার রাজ্য নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনের গেজেট নোটিফিকেশন জারির আগেই নির্বাচনী আচরণবিধি চালু ঘোষণা করে দেয় কমিশন। পদ্ধতিগত ভুলে প্রশ্নের মুখে পড়ে গিয়েছে ভোট প্রক্রিয়াই। সোমবার সর্বদল বৈঠকে কমিশনের ভূমিকা নিয়ে সরব হল বিরোধী দলগুলো। রাজ্য নির্বাচন কমিশনারের মাথার ওপর আধিকারিক বসিয়ে ভোটপর্ব শেষ করারও দাবি উঠল।

    রাজ্যের ৭ পুরসভায় ভোটের গেজেট নোটিফিকেশন এখনও বেরোয়নি। তবে তার আগেই নাকি ভোটের মুখে থাকা পুরসভাগুলিতে জারি হয়ে গিয়েছে নির্বাচনী আচরণবিধি। বেনজির এই কান্ড ঘটিয়েই আপাতত বেকায়দায় রাজ্য নির্বাচন কমিশনার। শুধু তাই নয়, ভোট পরিচালনার ক্ষেত্রেও একাধিক আইন ভাঙার অভিযোগ কমিশনের বিরুদ্ধে।

    ৭ এপ্রিল ৭ পুরসভায় ভোট নিয়ে প্রেস বিবৃতি জারি কমিশনের ৷ প্রেস বিবৃতিতেই সংশ্লিষ্ট ৭ পুর এলাকায় নির্বাচনী আচরণবিধি চালুর ঘোষণা করে কমিশন ৷ নির্বাচনী আইনে এমনটা করার সুযোগ নেই ৷ রাজ্য সরকার গেজেট নোটিফিকেশন জারি করার পরই নির্বাচনী আচরণবিধি চালুর ঘোষণা করতে পারে কমিশন ৷

    ভোটের নির্ঘন্ট নিয়েও আইন ভাঙার অভিযোগ উঠেছে কমিশনের বিরুদ্ধে।

    ১৩ এপ্রিল সাংবাদিক সম্মেলন করে ভোটের নির্ঘন্ট জানানোর কথা কমিশনের  ৷ অথচ ১৭ এপ্রিলের আগে ভোটের গেজেট নোটিফিকেশন জারির সম্ভাবনা কম ৷ নোটিফিকেশনের আগে ভোটের নির্ঘণ্ট প্রকাশেরও নজির নেই  ৷

    সোমবার সর্বদল বৈঠকে বিরোধীদের এইসব অভিযোগের কোনও জবাবই ছিল না কমিশনের কাছে। বৈঠকে কমিশনের পদ্ধতিগত ভুলের দিকে আঙুল তোলে শাসকদলও। তর্কাতর্কিতে সর্বদল বৈঠক পণ্ড হওয়ার যোগাড় হলে হস্তক্ষেপ করেন তৃণণূল কংগ্রেসের প্রতিনিধি। সুব্রত বক্সী নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরই পরিস্থিতি আয়ত্তে আসে।

    নির্বাচনী আইন বিশেষজ্ঞদের দাবি, কমিশন যেভাবে আচরণবিধি চালুর কথা বলেছে তার আইনি ভিত্তি নেই। প্রয়োজনে পুরনো বিবৃতি বাতিল করে নতুন বিবৃতি জারি করতে হবে কমিশনকে। সেক্ষেত্রে তৈরি হতে পারে নতুন জটিলতা। পুরভোট করাতে নেমে রাজ্য কমিশনারের ওপর ভরসা রাখতে পারছেন না বিরোধীরা। সর্বদল বৈঠকেই তাঁর মাথার ওপর প্রশাসনিক আধিকারিক বসিয়ে ভোট করানোর দাবি ওঠে।

    First published:

    Tags: Election Commission, Municipal Corporation Election, State Election Commission, West Bengal State Election Commission