• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • কালো টাকা ও জালিয়াতি রুখতে মোদির ঘোষণা, রাস্তা খুলল কালোবাজারির

কালো টাকা ও জালিয়াতি রুখতে মোদির ঘোষণা, রাস্তা খুলল কালোবাজারির

কালো টাকার বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে দিশেহারা সাধারণ মানুষ ৷ উল্টে নতুন রূপ পেল কালোবাজারি ৷ রাত পোহানোর আগেই হঠাৎ করে অচল ৫০০ ও ১০০০ ৷

কালো টাকার বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে দিশেহারা সাধারণ মানুষ ৷ উল্টে নতুন রূপ পেল কালোবাজারি ৷ রাত পোহানোর আগেই হঠাৎ করে অচল ৫০০ ও ১০০০ ৷

কালো টাকার বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে দিশেহারা সাধারণ মানুষ ৷ উল্টে নতুন রূপ পেল কালোবাজারি ৷ রাত পোহানোর আগেই হঠাৎ করে অচল ৫০০ ও ১০০০ ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: কালো টাকার বিরুদ্ধে মোদির সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে দিশেহারা সাধারণ মানুষ ৷ উল্টে নতুন রূপ পেল কালোবাজারি ৷ রাত পোহানোর আগেই হঠাৎ করে অচল ৫০০ ও ১০০০ ৷ দু’দিনের জন্য বন্ধ ব্যাঙ্ক-এটিএম ৷ বিভ্রান্ত সাধারণ মানুষ ৷ তবে এমতাবস্থায় পোয়া বারো কিছু অসৎ ব্যবসায়ীদের ৷

    ৫০০ ও ১০০০ টাকা নিয়ে জেরবার ক্রেতা থেকে বিক্রেতা ৷ এরমধ্যেই মোদির কালো টাকা ও নোট জালিয়াতি রোখার প্রচেষ্টাকে হাতিয়ার করে পকেট ভারি করছে বেশ কিছু মানুষ ৷ ৫০০ বা ১০০০ টাকার অচল নোট গ্রহণ করার অজুহাতে ফেরত দিচ্ছেন না খুচরো ৷ অর্থাৎ ৫০০ বা ১০০০ টাকা দিয়ে মিলছে তার কম মূল্যের জিনিস ৷

    বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই চিত্র দেখা যাচ্ছে পেট্রোল পাম্প ও খুচরো বাজারে ৷ অভিযোগ, পাঁচশো বা হাজার টাকার বেশি তেল কিনতে গেলে খুচরো নেই এই অজুহাতে বাকি টাকা ফেরত দিচ্ছেন না কর্মীরা ৷ হয়রান হচ্ছেন সাধারণ মানুষ ৷ কোথাও আবার পাঁচশো বা হাজার টাকারই তেল কেনার জন্য জোরজুলুম করছেন পাম্প কর্মীরা ৷

    মাছ ও সবজি বাজারেও একই চিত্র ৷ অচল টাকার নোট গ্রহণ করার অজুহাতে বকেয়া খুচরো ফেরত দিচ্ছেন না অধিকাংশ বিক্রেতা ৷ ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন সাধারণ মানুষ ৷

    রাজ্যের কিছু কিছু জায়গায় নোট বদলানোর নাম করে চলছে কালোবাজারি ৷ ৫০০ বা ১০০০ টাকার নোট বদলে ৪০০ টাকা বা ৯০০ টাকাই ফেরত দিচ্ছেন কিছু মানুষ ৷

    আবার ভিন্ন চিত্রও দেখা গিয়েছে বিভিন্ন জায়গায় ৷ দু’দিন ব্যাঙ্ক বন্ধ থাকায় এবং সংগ্রহে খুচরো টাকা কম থাকায় পচনশীল সামগ্রীর ব্যবসায়ীরা ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছেন ৷ ৫০০ বা ১০০০ টাকার নোট এড়াতে ক্ষতি হলেও কম মূল্যে বিক্রি করছেন জিনিস ৷

    বিভিন্ন ক্যাব সংস্থা যেমন ওলা ও উবের বুধবার সকাল থেকে গ্রাহকদের ম্যাসেজে যাত্রীদের আবেদন জানিয়েছেন ৫০০ বা ১০০০ টাকার নোট না দিতে ৷ কারণ ওই নোট বাতিল হওয়ায় ক্যাবর চালক ওই নোট গ্রহণ করবেন না ৷ তাই ১০০. ৫০, ২০ বা ১০ টাকার নোট দেওয়ার আবেদন করা হয়েছে ৷ ব্যাঙ্ক বন্ধ থাকায় টাকা তুলতে পারছেন না সাধারণ মানুষ ৷ তাই অনেককেই সমস্যার মুখে পড়তে হয়েছে ৷ তাই তাদের অনলাইনে পেমেন্ট করতে বলছেন সংস্থাগুলি ৷

    সেলফ ডিক্লেরেশন স্কিমের সাফল্য আসেনি। কালো টাকার প্রতিশ্রুতি পূরণে তাই টাকার উৎসকেই টার্গেট করল কেন্দ্র। ১০০০ ও ৫০০ টাকাতেই চলে কালো টাকার চোরাচালান। হুন্ডি, হাওয়ালা, বাম্বুর মাধ্যমেই চলে কালো টাকার কারবার। কালো টাকা অভিযানে নেমে সেই সোর্সকেই টার্গেট কেন্দ্রের। অনেকে বলছেন দুর্নীতির বিরুদ্ধে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক। কালো টাকা এবং জাল নোটের বিরুদ্ধেও নজিরবিহীনভাবে অপারেশন চালালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্ত এই ঘোষণার পর সাধারণ মানুষের বিভ্রান্তির ফায়দা তুলে পকেট ভরাচ্ছে কিছু অসৎ ব্যবসায়ী ৷ এই কালোবাজারি রুখতে দ্রুত পদক্ষেপ নিচ্ছে প্রশাসন ৷

    First published: