• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • বছরভর জঞ্জাল তোলেন, রাস্তা পরিষ্কার করেন, আজ ওরাই প্রধান অতিথি,অন্য স্বাধীনতার সাক্ষী শহর

বছরভর জঞ্জাল তোলেন, রাস্তা পরিষ্কার করেন, আজ ওরাই প্রধান অতিথি,অন্য স্বাধীনতার সাক্ষী শহর

প্রত্যেকেই বরাহনগর পুরসভার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মী। কোভিড ধাক্কায় মানুষ যখন জর্জরিত, ওষ্ঠাগত, আতঙ্কিত! তখন ওরাই এই যুদ্ধের ফ্রন্ট-লাইনার।

প্রত্যেকেই বরাহনগর পুরসভার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মী। কোভিড ধাক্কায় মানুষ যখন জর্জরিত, ওষ্ঠাগত, আতঙ্কিত! তখন ওরাই এই যুদ্ধের ফ্রন্ট-লাইনার।

প্রত্যেকেই বরাহনগর পুরসভার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মী। কোভিড ধাক্কায় মানুষ যখন জর্জরিত, ওষ্ঠাগত, আতঙ্কিত! তখন ওরাই এই যুদ্ধের ফ্রন্ট-লাইনার।

  • Share this:

#কলকাতা: দেশের ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসে এক অন্য রকম স্বাধীনতার সাক্ষী থাকল মহানগরী। এই স্বাধীনতার প্রত্যাশাই তো করে কোভিড আবহের বাংলা। স্বপন মিশ্র, সার্জি রাম, ভগীরথ দরদ, লোকনাথ হালদার। সমাজ ওদের নামে চেনে কদাচিৎ। ওরা সবাই বরাহনগর পুরসভার চতুর্থ শ্রেণীর কর্মী। কোভিড ধাক্কায় মানুষ যখন জর্জরিত, ওষ্ঠাগত, আতঙ্কিত! তখন ওরাই এই যুদ্ধের ফ্রন্ট-লাইনার।

রোজ সকালে আমার-আপনার বাড়ি থেকে বর্জ্য, আবর্জনা তুলে নিয়ে যায় ভগীরথ, লোকনাথরা। কোভিড আতঙ্ক দূর করতে রাস্তাঘাট পরিষ্কার রাখে। নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সমাজের জঞ্জাল পরিষ্কারের গুরু দায়িত্ব পালন করেন। সমাজের এই স্তরের মানুষদের সম্মান দিতে বরানগর টবিন রোডের হাসিখুশি ক্লাব স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করল ওদের পাশে নিয়ে। দেশের ৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন থেকে রক্তদান উৎসব। সবেতেই মঞ্চ আলো করে অতিথিদের আসনে ভগীরথ, সার্জিরামরা। সব শেষে  স্থানীয় সাংসদ বিধায়কদের দিয়ে ওদের সম্মান জ্ঞাপন ও সংবর্ধনা।

আনন্দে চোখ দুটো চিকচিক করছিল ওদের সবার। লম্বা কর্মজীবনে যে এমন দিন দেখেনি ওরা। এমন সম্মান জীবনে প্রথম বার। সার্জিরাম বলছিলেন,"স্বপ্নেও কখনও ভাবতে পারিনি এমন দিন আসবে জীবনে। 'হাসিখুশি' ক্লাব-কে অনেক অনেক ধন্যবাদ।" আর যাদের উদ্যোগে এমন একটা কর্মযজ্ঞ, সেই 'হাসিখুশি' ক্লাবের সম্পাদক সুমন কর ও সমর দাসরা বলছিলেন,"কোভিড জীবন বদলে দিয়েছে। কিন্তু যে ভাবে রোজ সকালে নিজেদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওদের কাজ করতে দেখি, তাতে নতুন করে অনুপ্রেরণা পাই। চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের তুলনায় ওদের কৃতিত্ব কোথাও কম নয়।"

দেখতে দেখতে সাত বছরে পা দিয়েছে বরাহনগরের 'হাসিখুশি' ক্লাব। কিন্তু ইতিমধ্যেই সামাজিক কাজে সাড়া জাগিয়েছে সুমনদের মত তরুণ প্রজন্মের নিয়ে তৈরি এই ক্লাব সংগঠন। 'হাসিখুশি'-র কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন স্থানীয় সাংসদ সৌগত রায় ও বিধায়ক তাপস রায়। ভবিষ্যতে ক্লাবের যে কোন উদ্যোগে পাশে থাকার আশ্বাস দেন ওরা। 'হাসিখুশি' ক্লাবের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা হয় বরানগর পুরসভার অন্যতম কো-অর্ডিনেটর অঞ্জন পালকে।

PARADIP GHOSH 

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: