RR vs KKR: ডাহা ফেল নাইট টপ অর্ডার

RR vs KKR: ডাহা ফেল নাইট টপ অর্ডার

আবার ব্যর্থ কেকেআর টপ অর্ডার

রাজস্থান বোলারদের স্লোয়ার বল মোকাবিলা করার পাল্টা প্ল্যান ছিল না নাইট শিবিরে। গিল রান আউট' হলেন ১১ করে

  • Share this:

    #মুম্বই: কথায় বলে সকাল দেখলে বোঝা যায় দিনটা কেমন কাটবে। শেষ তিনটি ম্যাচে পরে ব্যাট করে হেরেছিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। এদিন টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে হল শাহরুখ খানের দলকে। কিন্তু টপ অর্ডারের ব্যর্থতা অব্যাহত রইল। মুস্তাফিজুর, জয়দেব, চেতন দের মাঠের বাইরে পাঠাতে পারছিলেন না গিল এবং রানা। প্রচন্ড মন্থর গতিতে এগোচ্ছিল কেকেআর ব্যাটিং। রাজস্থান বোলারদের স্লোয়ার বল মোকাবিলা করার পাল্টা প্ল্যান ছিল না নাইট শিবিরে। গিল রান আউট' হলেন ১১ করে। এরপর রানা কিছু দেখার মত শট খেলে আশা জাগিয়েছিলেন।

    কিন্তু ব্যক্তিগত ২২ করে ফিরে গেলেন চেতনের বলে সঞ্জুর হাতে ক্যাচ দিয়ে। চার নম্বরে নামানো হল সুনীল নারিনকে। আশা ছিল নারিন কিছু বড় শট খেলে দলের রান বাড়াবেন। একটা বাউন্ডারি মারলেন বটে। কিন্তু আবার ভুল শট খেলে উইকেট দিয়ে এলেন। তাঁর সংগ্রহ ৬। ভাগ্য খারাপ কেকেআর দলের। রাহুল ত্রিপাঠীর একটা সোজা শট এসে লাগল অধিনায়কের ব্যাটে। ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হলেন মর্গ্যান। একটাও বল না খেলে ফিরে যেতে হল কেকেআর অধিনায়ককে। মাথা নাড়াতে নাড়াতে মাঠ ছাড়লেন ইংলিশ অধিনায়ক।

    প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্সকে হারিয়ে শুরু করলেও পরপর তিনটি ম্যাচ হেরে ব্যাকফুটে শাহরুখ খানের দল। কিছুতেই জয় আসছে না। আজ, শনিবার ফের ওয়াংখেড়েতে নাইট শিবিরের কঠিন চ্যালেঞ্জ হতে চলেছে জানা ছিল। রাজস্থানের বিপক্ষে জয় ছাড়া অন্য কিছু ভাবছে না আন্দ্রে রাসেল, ইয়ন মর্গ্যানরা। কিন্তু ভাবা আর করার ভেতর বিস্তর ফারাক। ব্যর্থতার বিভিন্ন কাটাছেঁড়া হয়েছে এতদিন। বিভিন্ন কারণের মধ্যে অন্যতম কারণ যেটা সামনে এসেছে, তা হল ওপেনিং পার্টনারশিপ ভাল শুরু করতে না পারা। শুভমান গিল এবং নীতিশ রানা ধারাবাহিকতা দেখাতে ব্যর্থ।

    রানা তবু প্রথম দুটি ম্যাচে অর্ধশতরান করেছিলেন। কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেটের আগামীদিনের সুপারস্টার ধরা হচ্ছে যাঁকে, সেই গিল একটা অর্ধশতরান করতে পারেননি। অথচ টি টোয়েন্টিতে ভাল পারফর্ম করতে গেলে পাওয়ার প্লেতে ওপেনিং পার্টনারশিপ শক্তিশালী হতে হয়। গিল কয়েকটা বাউন্ডারি মেরে খারাপ শট খেলে উইকেট দিয়ে আসছেন। রানা হঠাৎ করেই যেন বুঝতে পারছেন না কী করবেন। ফলে মিডল অর্ডারের ওপর প্রথম থেকেই চাপ পড়ে যাচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন পাওয়ার প্লের সুবিধা নিতে প্রথম থেকেই সুনীল নারিনকে নামিয়ে দেওয়া হোক। এমনিতেও তাঁর থেকে বড় রান কেউ আশা করেন না। তাই প্রথমে নেমে যদি কিছু বড় শট খেলে দলের রান বাড়িয়ে যেতে পারেন সেটা দলের মঙ্গল।

    তাই আজ ওপেনিং পার্টনারশিপে নারিনকে নামানো হয় কিনা সেটা দেখার। তবে সেই সম্ভাবনা কম। গিল এবং রানার ওপর এখনই বিশ্বাস হারাতে রাজি নয় টিম ম্যানেজমেন্ট। তাছাড়া ডানহাতি এবং বাঁহাতি পার্টনারশিপ চট করে ভাঙতে চান না ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। কিন্তু ব্যাটিং পাওয়ার প্লের ভেতর উইকেট পড়ে গেলে নারিন তিন নম্বরে নামলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। নেটে গিল এবং রানা ব্যাট করার সময় দীর্ঘক্ষন কথা বলতে দেখা গিয়েছে ম্যাকালাম এবং অভিষেক নায়ারকে। টিম ম্যানেজমেন্ট মনে করছে ওপেনিং পার্টনারশিপ যদি জোরদার হয়, তাহলে বড় রান তোলা সহজ হয়ে যাবে ইয়ন মর্গ্যান, রাসেল, কার্তিকদের জন্য।

    প্রয়োজনে গিল এবং রানাকে ব্যাটিং টেকনিক কিছুটা পরিবর্তন করার পরামর্শ দিয়েছেন ব্রেন্ডন। কিন্তু সেই রোগ ঠিক হল না। একটা দলের বড় রান তোলা সম্ভব হয় যখন ওপেনিং পার্টনারশিপ বা তিন নম্বর ব্যাটসম্যান বড় অবদান রাখেন। সেটাই হচ্ছে না নাইট রাইডার্স দলের। আজ ম্যাচ হারলে এই ব্যর্থতা হারের অন্যতম কারণ হিসেবে উঠে আসবে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: