পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকায় উদ্ধার হল ১৩০০ বছরের পুরনো বিশালাকার বিষ্ণু মন্দির

খননকার্যের সময় মন্দিরের পাশেই একটি ওয়াচ টাওয়ার এবং একটি সেনানিবাসেরও সন্ধান পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা । পাওয়া গিয়েছে একটা সুবিশাল জলের ট্যাঙ্কও ।

খননকার্যের সময় মন্দিরের পাশেই একটি ওয়াচ টাওয়ার এবং একটি সেনানিবাসেরও সন্ধান পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা । পাওয়া গিয়েছে একটা সুবিশাল জলের ট্যাঙ্কও ।

  • Share this:

    #ইসলামাবাদ: প্রায় ১৩০০ বছরের পুরনো হিন্দু মন্দিরের সন্ধান মিলল পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকা থেকে । জানা গিয়েছে, বিষ্ণু দেবতার মন্দির ছিল সেটি । পাকিস্তান এবং ইতালির আর্কিওলজিস্টদের যৌথ প্রচেষ্টায় এই মন্দিরটির সন্ধান মিলেছে । বারিকোট ঘুন্ডাইয়ে একটি খননকার্য চালানোর সময় এই মন্দিরটির সন্ধান পান প্রত্নতত্ত্ববিদরা ।

    গত বৃহস্পতিবার এই মন্দিরের সন্ধান পাওয়ার পর খাইবার পখতুনখাওয়া বিপার্টমেন্ট অব আর্কিওলজির প্রত্নতত্ত্ববিদ ফাজেল খালিক বলেছেন মন্দিরটি হিন্দু দেবতা বিষ্ণুর । হিন্দু শাহী আমলে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা প্রায় ১৩০০ বছর আগে এই সুবিশাল মন্দির বানিয়েছিলেন । হিন্দু সহিস বা কাবুল সহিস ছিল হিন্দু রাজস্ব । পূর্ব আফগানিস্তানের কাবুল উপত্যকা, গান্ধারা (বর্তমানের পাকিস্তান-আফগানিস্তান) এবং উত্তর-পশ্চিম ভারত জুড়ে এদের রাজত্ব বিস্তৃত ছিল ।

    খননকার্যের সময় মন্দিরের পাশেই একটি ওয়াচ টাওয়ার এবং একটি সেনানিবাসেরও সন্ধান পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা । পাওয়া গিয়েছে একটা সুবিশাল জলের ট্যাঙ্কও । মনে করা হচ্ছে, মন্দিরে প্রবেশের আগে সেই জলে নিজেদের পবিত্র করে নিতে ভক্তরা ।

    ফাজেল খালিক আরও বলেছেন, এই সোয়াত জেলায় আগেও প্রচুর প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন পাওযা গিয়েছে । হিন্দু রাজত্বের প্রমাণ প্রথম এই এলাকা থেকেই পাওয়া গিয়েছিল । ইটালিয়ান আর্কিওলজিক্যাল মিশনের প্রধান ডঃ লুকা বলেছেন, গান্ধারা সভ্যতার প্রথম নির্দশনও এই সোয়াত জেলা থেকেই পাওয়া গিয়েছিল । এমনকি এই এলাকায় বৌদ্ধ ধর্মেরও বহু নিদর্শন পাওয়া গিয়েছে ।

    Published by:Simli Raha
    First published: