ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের সঙ্গে নিত্য সঙ্গম, তারপর কী হল এই যুবকের পড়ুন

ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের সঙ্গে নিত্য সঙ্গম, তারপর কী হল এই যুবকের পড়ুন

ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের সঙ্গে নিত্য সঙ্গম, তারপর কী হল এই যুবকের পড়ুন

  • Share this:

#রিয়াধ: বহুদিন ধরেই এমন কাণ্ড চালাচ্ছিলেন এই যুবক ৷ নিজের যৌন চাহিদা মেটাতে ব্যবহার করতেন ভ্যাকুয়াম ক্লিনার ৷ রোজকার অভ্যেস মতোই চলছিল কল্পনাতীত উপায়ে যৌনলিপ্সা মেটানোর কাজ ৷ হঠাতই ছন্দপতন ৷

ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের সঙ্গে সঙ্গমে মগ্ন অবস্থায় হাতে নাতে স্ত্রীয়ের কাছে ধরা পড়লেন তিনি ৷ তারপর আর কি ! সোজা স্থান হল শ্রীঘরে ৷ আদালতের রায়ে অস্বাভাবিক যৌনতার দায়ে ১০০০ বেত্রাঘাত সহ দু’বছরের কারাবাসের সাজা পেলেন রিয়াধের এই বাসিন্দা ৷ পুলিশ ডেকে নিজে তাকে গ্রেফতার করালেন যুবকের স্ত্রী ৷

১৭ বছরের বিবাহিত জীবন কাটানোর পর এমন দৃশ্য দেখতে হবে তা বোধহয় কল্পনাও করেননি সৌদি কন্যা ৷ অফিস থেকে বাড়ি ফিরে আবিষ্কার করলেন ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের সঙ্গে সঙ্গমে মগ্ন তাঁর স্বামী ৷ যৌনতায় এতটাই মগ্ন সে, যে স্ত্রীয়ের উপস্থিতি টেরই পাননি ৷ এমন আচরণ আর সহ্য করতে না পেরে সোজা পুলিশ ডাকেন স্ত্রী ৷

saudi2

যুবকের স্ত্রীয়ের অভিযোগের ভিত্তিতেই গ্রেফতার অভিযুক্ত ৷ আদালতে কেসের শুনানি শুরু হলে যুবকের স্ত্রীয়ের মুখে পুরো ঘটনার বিবরণ শুনে স্তম্ভিত বিচারক ভাবছিলেন এতে অভিযুক্তের কি সাজা হতে পারে! কারণ, সৌদি আরবে অস্বাভাবিক যৌনতা অপরাধ এবং তার সাজা মৃত্যুদণ্ড ৷ কিন্তু এক্ষেত্রে বিষয়টি সম্পূর্ণ ভিন্ন ৷ সৌদি আরবের আইনে অস্বাভাবিক যৌনতার ব্যাখ্যা হিসেবে সমকাম এবং পোষ্য কিংবা পশুকে যৌন চাহিদা মেটানোর কাজে ব্যবহার করাকে বোঝায় ৷ কিন্তু ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের সঙ্গে যৌনতার কোনও সাজার বিধান সৌদি আইনে নেই ৷ সেক্ষেত্রে ছাড়া পেয়ে যেতেন বিকৃতকাম যুবক ৷

তবে ঘটনায় বিপর্যস্ত যুবকের স্ত্রী ৷ ১৭ বছরের দাম্পত্য জীবনে কোনও অশান্তি বা অসন্তুষ্টি ছিল না বলে দাবি করেছেন যুবকের স্ত্রী ৷ সেক্ষেত্রে যুবকের এই বিকৃতকাম আচরণ তার জন্য প্রায় মানসিক নির্যাতনের সামিল ৷ তাই অপমানিত স্ত্রী দোষীর সর্বোচ্চ সাজার আর্জি জানান ৷ সব দিক বিচার করে অভিযুক্তকে দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও এক হাজারবার চাবুক মারার সাজা শোনান সৌদি আদালতের বিচারপতি। কিন্ত তাতেও খুশি নন ওই যুবকের স্ত্রী ৷ তাঁর দাবি, এমন বিকৃতকাম মানসিকতার অভিযুক্তের এমন শাস্তি হোক যাতে কেউ আর এমন সঙ্গমে লিপ্ত হওয়ার কথা মনেও না আনতে পারেন ৷

First published: 06:46:41 PM Jun 02, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर