জেলে গুরুতর অসুস্থ নওয়াজ শরিফের চিকিৎসায় বাধা, অভিযোগ কন্যার

News18 Bangla
Updated:Jan 12, 2019 05:00 PM IST
জেলে গুরুতর অসুস্থ নওয়াজ শরিফের চিকিৎসায় বাধা, অভিযোগ কন্যার
নওয়াজ শরিফ-ফাইল চিত্র ৷
News18 Bangla
Updated:Jan 12, 2019 05:00 PM IST

#লাহৌর: কারাবন্দি অবস্থায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। তবে সেখানে তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন তাঁর মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ। মরিয়মের দাবি, হাতে প্রচণ্ড যন্ত্রণা হচ্ছে তাঁর বাবার। অসুস্থতার খবর পেয়ে ব্যক্তিগত চিকিৎসক তাঁর কাছে যেতে চাইলেও জেল কর্তৃপক্ষ তাকে অনুমতি দেয়নি।

মরিয়মের দাবি, হৃদযন্ত্রে রক্ত প্রবাহ কমে যাওয়ার অসুখে ভুগছেন তাঁর বাবা। শুক্রবার টুইটারে মরিয়ম লেখেন, ‘‘হাতে অসম্ভব যন্ত্রণা হচ্ছে মিঞা নওয়াজ শরিফের। সম্ভবত অ্যাঞ্জনার জন্যই। এমনিতেই জটিল শারীরিক সমস্যা রয়েছে তাঁর। ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা সে ব্যাপারে অবগত। কিন্তু দিনভর তাঁর কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করেও কারাগারে ঢোকার অনুমতি পাননি তিনি।’’

পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন)-এর নেতা নওয়াজ শরিফ, আল আজিজিয়া স্টিল মিল দুর্নীতি কাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত হন। দুর্নীতির টাকায় সৌদি আরবে তেলের মিল খোলার অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হয় আদালতে। তার জেরে গত বছর ২৪ ডিসেম্বর ৭ বছরের সাজা হয়ে তার। এই মুহূর্তে লাহোরের কোট লাখপত সেন্ট্রাল জেলে বন্দি রয়েছেন তিনি।

কারা কর্তৃপক্ষ তাঁর অসুস্থতার বিষয়টি স্বীকার করেছে। তবে চিকিৎসা না দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছে তার। এক বিবৃতি কর্তৃপক্ষ জানায়, ‘‘কারাগারের চিকিৎসকরা নওয়াজ শরিফের শারীরিক অবস্থার দিকে নজর রেখেছেন। সবকিছু পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। এখন ভাল আছেন উনি।’’

পাকিস্তানের একটি সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে,দিনভর চেষ্টার পর শুক্রবার বিকেলে নওয়াজ শরিফের ব্যক্তিগত চিকিৎসক আদনানকে কারাগারে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়। তবে তাতেও বিতর্ক থামানো যায়নি। তিনবছর আগেই লন্ডনে ওপেন হার্ট সার্জারি হয় নওয়াজ শরিফের।

এ দিকে, নওয়াজের শারীরিক অবস্থা নিয়ে গাফিলতি ধরা পড়লে কাউকে রেহাই দেওয়া হবে না বলে হুমকি দিয়েছেন পিএমএল-এন নেতা আহসান ইকবাল। প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, অভ্যন্তরীণ সচিব এবং জেল সুপারিন্টেন্ডেন্ট-এর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

First published: 04:59:48 PM Jan 12, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर