দিনে বাংলা পত্রিকার সাংবাদিক, রাতে ডাকাত সর্দার! যুবকের ধুরন্ধর কাণ্ডে হতবাক পুলিশ

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jun 29, 2019 09:41 PM IST
দিনে বাংলা পত্রিকার সাংবাদিক, রাতে ডাকাত সর্দার! যুবকের ধুরন্ধর কাণ্ডে হতবাক পুলিশ
গ্রেফতার হওয়া ওই যুবক ৷
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Jun 29, 2019 09:41 PM IST

#ঢাকা: দিনের বেলায় সে সাংবাদিক ৷ গলায় ঝোলানা প্রেস কার্ড ৷ কাঁধে ঝোলানো থাকতো ডিএসএলআর ক্যামেরা ৷ সবাই তাকে দেখে ভাবতেন সাংবাদিক ৷ কিন্তু রাতের বেলাতেই সে হয়ে উঠত ভয়ঙ্কর ৷ তার আসল চেহারা ধরা পড়ত রাতেই ৷ তিনি যে আসলে ডাকাত সর্দার-সেই পরিচয়টা কিন্তু অজানাই ছিল সকলের কাছে ৷ অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়ল মহম্মদ হোসেন আলি নামে এক দুষ্কৃতী ৷ চিত্রসাংবাদিক পরিচয়ে কাজ হাসিল করত সে। সোনারগাঁ থানা পুলিশ সম্প্রতি তাকে গ্রেফতার করেছে।

মহম্মদ যে বাড়িতে ডাকাতি করবে বলে ঠিক করত সেই বাড়িতে সাংবাদিক পরিচয়ে দিনের বেলায় রেইকি করে আসত। কারও যাতে সন্দেহ না হয় তাই এমন পেশা বেছে নেয়। এমনকী গ্রেপ্তারের পর পুলিশের চোখ ফাঁকি দেওয়ার জন্য কার্ডও দেখায়। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। সোনারগাঁয়ের শম্ভুপুরা ইউনিয়নের ভিটিকান্দি এলাকায় ডাকাতির ঘটনায় বারদি এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় তাকে। জানা যায়, হোসেন একজন পেশাদার ডাকাত। পুলিশের কড়া জিজ্ঞাসাবাদে ভেঙে পড়ে সে ডাকাতির কথা স্বীকার করেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মহম্মদ কাউসার আহম্মেদের আদালতে হাজির করা হলে ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে সে অভিনব কৌশলে ডাকাতির কথা স্বীকার করে ৷

পুলিশসহ সবার চোখ ফাঁকি দিতে ‘ছদ্মবেশ’ হিসেবে সাংবাদিকতা পেশা বেছে নেয় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য ও মহম্মদ হোসেন আলি (৩২)

জিজ্ঞাসাবাদে হোসেন জানায়, তার বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে আরও তিনটি ডাকাতি মামলা রয়েছে। তার দলের সদস্যরা ডাকাতি করে যে মালামাল পায় তার অর্ধেক ভাগ সে একাই পায়, বাকি অর্ধেক অন্যরা ভাগ করে নেয়।

First published: 09:39:35 PM Jun 29, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर