বিদেশ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

সুস্থ হওয়ার আগেই হাসপাতাল থেকে হোয়াইট হাউসে ফিরলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প!

সুস্থ হওয়ার আগেই হাসপাতাল থেকে হোয়াইট হাউসে ফিরলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প!

১৫ অক্টোবর প্রেসিডেন্টশিয়াল ডিবেট বৈঠকেও অংশ নিতে পারেন ট্রাম্প

  • Share this:

#ওয়াশিংটন: হাসপাতাল থেকে হোয়াইট হাউসে ফিরলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। করোনা আক্রান্ত হওয়ার ৩ দিনের মধ্যে হাসপাতাল ছাড়ায় প্রবল সমালোচনার মুখে  মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তবে ট্রাম্পের মেডিক্যাল টিম জানিয়েছে, পুরোপুরি সুস্থ না হলেও বাড়ি ফেরার মত অবস্থায় রয়েছেন তিনি। ১৫ অক্টোবর প্রেসিডেন্টশিয়াল ডিবেট বৈঠকেও অংশ নিতে পারেন ট্রাম্প। তবে পুরোপুরি করোনামুক্ত না হয়েও ফের মাস্ক ছাড়া অবাধে ঘুরে বেড়ানোর সিদ্ধান্ত মোটেই ভালো ভাবে নিচ্ছেন না তাঁর বিরোধীরা।

সোমবারই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছিলেন ট্রাম্প। তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই হাসপাতাল থেকে আচমকা বেরিয়ে পড়েন ট্রাম্প। টুইটারে প্রকাশিত এক ভিডিয়োয় ট্রাম্পকে বলতে দেখা যায়, "কোভিডের চিকিৎসা চলাকালীন অনেক কিছুই শিখলাম, জানলাম। এটাই আসল বিদ্যালয়। বিষয়টি ভাল ভাবে হবে।"

খবর অনুযায়ী, রবিবার ট্রাম্পের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে ৷ মেডিক্যাল বুলিটিনে ট্রাম্পের চিকিৎসক জানিয়েছেন, রবিবার প্রায় দু’বার ট্রাম্পের শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ কমতে শুরু করে ৷ শারীরিক অবস্থা ক্রমেই খারাপ হওয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্টকে স্টেরেয়েডও দেন চিকিৎসকরা ৷  তবে ওই দিনই প্রকাশিত একটি ভিডিয়োতে দেখা যায়, হাসপাতাল ছেড়ে বেরিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প। মুখে মাস্ক। সামনেই দাঁড়িয়ে থাকা গাড়িতে উঠে পড়েন তিনি। তার পর সমর্থকদের উদ্দেশে হাত নাড়িয়ে সেখান থেকে বেরিয়েও যান। যদিও পরে আবার হাসপাতালেই ফিরে এসেছিলেন তিনি।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্ত্রী মেলানিয়াও করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ওয়াল্টার রিড আর্মি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে। একই সময়ে, মেলানিয়া হোয়াইট হাউসে আইসোলেশনে রয়েছেন। ট্রাম্প শুক্রবার করোনার পজিটিভ বলে জানান। একটি ট্যুইটের মাধ্যমে ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছিলেন যে, তিনি তাঁর স্ত্রীকে করোনায় আক্রান্ত। তিনি লিখেছিলেন যে, তাঁর এবং তাঁর স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পের করোনার পরীক্ষা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। হোয়াইট হাউজের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ট্রাম্প ক্লান্ত বোধ করছেন তবে তিনি আশাবাদী দ্রুত সেরে উঠবেন।

হোয়াইট হাউজ থেকে প্রকাশিত তথ্যে বলা হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্টকে ম্যালেরিয়া জ্বরের ওষুধ দেওয়া হচ্ছে। বলাই বাহুল্য করোনার সংক্রমণের কোনও ওষুধ নেই, তবে ভাইরাসটি দুর্বল করার ক্ষেত্রে যে ওষুধগুলি সর্বাধিকভাবে আলোচিত হয়েছে তার মধ্যে একটি হল রেমডিসিভির। এই বছর মে মাসে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গুরুতর অসুস্থ করোনার রোগীদের চিকিৎসার জন্য এই ওষুধ অনুমোদন করে। রেমিডিসিভির আমেরিকান ফার্মা সংস্থা গিলিয়েডের একটি অ্যান্টিভাইরাল ড্রাগ।

Published by: Ananya Chakraborty
First published: October 6, 2020, 9:04 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर