Yaas in Bangaldesh: এপার বাংলা বানভাসী, পদ্মাপারে কতটা প্রভাব ফেলল ইয়াস?

বাংলাদেশে কতটা প্রভাব ইয়াসের?

গতিপথ আলাদা হলেও Bangladesh-এ কিছুটা প্রভাব ফেলছে Cyclone Yaas. আপাতত সেখানে বেশ কিছু জায়গায় বৃষ্টি চলছে।

  • Share this:

    চট্টগ্রাম: বাংলার বিপদ অনেকটাই কমিয়ে ওড়িশায় আছড়ে পড়ল ইয়াস (Cyclone Yaas)। যদিও পশ্চিমবঙ্গের নানা প্রান্ত বানভাসী হয়ে গেল ইয়াসের দাপটে। একদিকে যখন এপার বাংলায় বানভাসী ছবি, তখন ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে বুধবার চট্টগ্রামে থেমে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি চলছে। সমুদ্রের উপকূলে জলস্তরের উচ্চতাও বৃদ্ধি পেয়েছে বেশ কয়েকটা। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত এলাকার দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

    ইয়াসের প্রভাবে সমুদ্রে জলস্তরের উচ্চতা স্বাভাবিকের তুলনায় ৩ থেকে ৬ ফুট বেশি হয়ে উঠেছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ উজ্জ্বল কান্তি পাল। তিনি জানিয়েছেন, 'ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ভারতের ওড়িশায় আছড়ে পড়েছে। এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দেশের সমুদ্রের উপকূলীয় এলাকায় জলস্তর বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে শুধু ইয়াস নয়, এ ক্ষেত্রে পূর্ণিমারও প্রভাব রয়েছে। জোয়ারের জলে উপকূলের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। পাশাপাশি দিনভর বৃষ্টিও হতে পারে চট্টগ্রাম সহ বাংলাদেশের বড় অংশজুড়ে।'

    এদিন সকালেই চট্টগ্রাম আউটার রিং রোড তথা বাঁধের নিচের এলাকা জোয়ারের জলে ভেসে গিয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কায় চট্টগ্রাম শহরের ১৩টি ওয়ার্ডে ৬০টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রেখেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। চিকিৎসক দল ও স্বেচ্ছাসেবীদেরও প্রস্তুত রাখা হয়েছে সরকারের তরফে। সোমবার থেকেই মানুষকে ঘূর্ণিঝড়ের ব্যাপারে সতর্ক করা শুরু করেছিল প্রশাসন। ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে আঘাত না হানলেও সব প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝোড়ো বাতাস বইছে। এই ঝোড়ো বাতাস অব্যাহত থাকবে বেশ কিছুক্ষণ। এ ছাড়া গোটা বাংলাদেশজুড়েই বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে সে দেশের আবহাওয়া দফতর।

    Published by:Suman Biswas
    First published: