corona virus btn
corona virus btn
Loading

রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে আত্মবলিদান ২০ ভারতীয় সেনার, চিনে নিন সেই অমর বীর জওয়ানদের

রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে আত্মবলিদান ২০ ভারতীয় সেনার, চিনে নিন সেই অমর বীর জওয়ানদের

দেশের সুরক্ষায় প্রাণ দিলেন দেশের ছেলেরা

  • Share this:

# লাদাখ: মঙ্গলবার  লাদাখের গালওয়ানে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় চিনা হামলায় তিন নয়, কমপক্ষে ২০ জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ ৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে কোনও প্ররোচনা ছাড়াই সীমান্তে স্থিতাবস্থা ভেঙে হামলা চালিয়েছে চিন৷ ১৯৭৫ সালে অরুণাচল। ২০২০-তে লাদাখ। ৪৫ বছর পর, চিনের হামলায় ফের ভারতীয় সেনার মৃত্যু। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় ঝরল রক্ত ৷

চিনের হানা আক্রমণের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে যে কুড়ি জন শহিদ হয়েছেন তাঁদের নামের তালিকা প্রকাশ করল ভারত ৷ দেখে নিন দেশের জন্য সীমান্ত রক্ষার লড়াইতে কারা প্রাণ হারালেন ৷

অন্যদিকে চিনের তরফেও যথেষ্ট ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানাচ্ছে সংবাদসংস্থা ৷ আহত ও নিহত চিনা সৈন্যদের নিয়ে যাওয়ার জন্যে সীমান্তে হেলিকপ্টার পাঠিয়েছে চিন সরকার।]

Photo- File Photo- File

মঙ্গলবার সকালে গালওয়ান ঘাঁটির পয়েন্ট ১৪-এ ভারত ও চিন সেনার মধ্যে সংঘর্ষের খবর আসে ৷ প্রাথমিকভাবে ১৫ তারিখ অর্থাৎ সোমবার রাতে হওয়া এই সংঘর্ষে ভারতীয় সেনার ১ কর্নেল সহ তিন জওয়ানের নিহত হওয়ার খবর আসে ৷ তখনই বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম বিভিন্ন সূত্রকে উদ্ধৃত করে আরও ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা প্রকাশ করে ৷ রাত গড়াতেই সেই আশঙ্কাই সত্যি হল ৷ সংবাদসংস্থা এএনআই ২০ জন ভারতীয় সেনা জওয়ানের নিহত বলে দাবি করে ৷ পরে সেনা সূত্রে জানা যায়, গুরুতর আহত ১৭ জওয়ানের মাইনাসের নীচে তাপমাত্রা নেমে যাওয়ায় ঠান্ডায় মৃত্যু হয়েছে ৷

গালওয়ান উপত্যকায় যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে তা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে যে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে ৷ দু’দেশের মধ্যে উচ্চ-পর্যায়ের বৈঠকে যে সমঝোতা হয়েছিল তা মেনে চলা হলে এই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ এড়ানো যেত ৷এখনও পর্যন্ত ভারতের যাবতীয় কার্কলাপ প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও প্ররোচনা ছাড়াই শান্তিব্যবস্থা ভেঙে হামলা হয়েছে বেজিংয়ের তরফে ৷

গালওয়ান এবং শিয়ক নদীর যেখানে মিলেছে, সেখানেই রয়েছে এই ১৪ নম্বর পয়েন্ট৷ এই জায়গাতেই গত সপ্তাহে ভারত এবং চিনের সেনাবাহিনীর মধ্যে ডিভিশন কম্যান্ডার পর্যায়ের বৈঠক হয়েছিল৷ সেই বৈঠকেই ঠিক হয়, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে দু' পক্ষই সেনার সংখ্যা কমাবে৷

সীমান্তে ভারত পরিকাঠামো তৈরি করেছে। তাতেই চিনের রাগ। মে মাসের শুরু থেকেই কাশ্মীরের লাদাখে, প্রকৃত নিয়য়ন্ত্রণরেখার কাছে উত্তেজনা। ভারত-চিন সংঘাতের আবহ। মাঝে কিছুটা বরফ গললেও সোমবার একেবারে সংঘর্ষ। রক্তাক্ত পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকা। উত্তেজনা কমাতে দু’দেশের উচ্চপদস্থ সেনাদের মধ্যে আলোচনা চলছিল। তখনই চিনের হামলা৷ পূর্ব লাদাখের এই সংঘর্ষে পারদ চড়ে দিল্লিতে। দফায় দফায় জরুরিভিত্তিতে বৈঠক। তিন সামরিক বাহিনীর প্রধান এবং চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রতিরক্ষামন্ত্র এবং বিদেশমন্ত্রী।  বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে গিয়ে রিপোর্ট দেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। পরে বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকরও প্রধানমন্ত্রীকে রিপোর্ট দেন। লাদাখে সীমান্ত সুরক্ষার দায়িত্বে থাকে আইটিবিপিও। আইটিবিপির ডিজির সঙ্গে বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

Published by: Debalina Datta
First published: June 17, 2020, 5:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर