দেশজ, সাবেকি, আধুনিকতার জবরদস্ত মিশেলের নাম ‘কারুবাসা’

‘ক্লাস’-এর জিনিস ‘মাস’-এর কাছে পৌঁছে দিতে নিজেদের অফুরন্ত সম্ভার নিয়ে প্রতিবারের মতো এবারেও হাজির তাঁরা ৷

Simli Raha | News18 Bangla
Updated:Sep 25, 2019 10:59 PM IST
দেশজ, সাবেকি, আধুনিকতার জবরদস্ত মিশেলের নাম ‘কারুবাসা’
Simli Raha | News18 Bangla
Updated:Sep 25, 2019 10:59 PM IST

#কলকাতা: কারুবাসা ৷ নামটা শুনলে প্রথমেই মনে হয় এক্কেবারে এক্সক্ল‌ুসিভ...কিন্তু সাধ্যের মধ্যে ৷ ‘ক্লাস’-এর জিনিস ‘মাস’-এর কাছে পৌঁছে দিতে নিজেদের অফুরন্ত সম্ভার নিয়ে প্রতিবারের মতো এবারেও হাজির তাঁরা ৷

কারুবাসার সবটাই দেশজ ৷ প্রথমত ফেলে দেওয়া জিনিস দিয়ে গয়না, ঘর সাজাবার জিনিস, আসবাব বানায় তাঁরা ৷ টুকরো কাপড়ের পোশাক তৈরিতে এ শহরে কারুবাসার জুড়ি মিলবে কম ৷ পরিবেশ বান্ধবই শুধু নয়, কারুবাসা পুরোপুরি সাবেকি ৷ আধুনিক আর্টকে কোনও কোনও ক্ষেত্রে আপন করে নিলেও কারুবাসার জিনিসে পাবেন সাবেকিয়ানার দূর্দান্ত মিশেল ৷

কারুবাসার শুরুটা হয়েছিল ২০১৬-তে ৷ কারুবাসার মধ্যমণি, একক সেনাপতি বা জন্মদাত্রী যিনি, সেই টুম্পা মণ্ডলের হাত ধরে কারুবাসার জন্ম ৷ নিজেকে এলোমেলো টুম্পা বলতেই বেশি পছন্দ করেন টুম্পা ৷ তাঁর ফেসবুক প্রোফাইলের নামও তাই ৷ কারণ সত্যিই খানিকটা এলোমেলো তিনি ৷ না হলে সরকারি চাকরির মোহ কাটিয়ে কেউ বুটিক খুলতে পারে!

01

ছোট থেকেই আঁকার প্রতি টান, দক্ষতাও ছিল কিছুটা ৷ মাধ্যমিক পাশ করেই বিভিন্ন বুটিকে কাজ করা শুরু ৷ ধীরে ধীরে সেলাই, রং, আঁকার মাঝেই নিজের জগৎটা খুঁজে পেয়ে যান টুম্পা ৷ চাকরি পেলেও তাতে মন টেকেনি ৷ নিজের বুটিক কারুবাসা প্রথম চলতে শুরু করে অনলাইনে ৷ এটা, ওটা, সেটা...যাই পেতেন হাতের সামনে কিছু না কিছু বানিয়ে ফেলতেন ৷ এই করতে করতেই কলকাতায় প্রথম সুতির ব্যাঙ্গলসে লাইন পেন্টিং আর বাংলা লেখার ফ্যাশন নিয়ে এলেন তিনি ৷ ব্যাঙ্গলসের পর কারুবাসার সমস্ত গয়নাতেই বাংলা কবিতা চলে এল ৷ আর বাংলা কবিতার এই গয়না দারুণ হিট হল ৷ এই করেই বেশ চলছিল ৷

Loading...

কারুবাসা শুধু বুটিক নয় ৷ একটা বড় সামাজিক দিক রয়েছে কারুবাসার ৷ সমস্ত পরিবেশ বান্ধব উপাদানেই জিনিস তৈরি করেন টুম্পা ৷ পাশাপাশি জৈব চাষে উৎসাহ দেন ৷ নিজের বুটিকের একটা তাক বরাদ্দ থাকে নানা রকম জৈব প্রডাক্টের জন্য ৷ মেয়েদের স্বনির্ভরতার দিকটিও নজরে থাকে তাঁর ৷ তাই কারুবাসার সঙ্গে যুক্ত অনেকেই মহিলা ৷ কারুবাসার তাঁতিও একজন মহিলা ৷

03

অনলাইনে পায়ের মাটি শক্ত করেছিল কারুবাসা ৷ এখন তারা অফলাইনেও ৷ ২০১৭-য় গল্ফ গ্রিনে খুলেছিল কারুবাসার প্রথম দোকান ৷ এখন ঠিকানা ৩১বি যাদবপুর সেন্ট্রাল রোড, যাদবপুর বাউল মোড় ৷ এখন অনলাইন, অফলাইন...সবেতেই পাবেন কারুবাসাকে ৷

পুজোয় দারুণ দারুণ কালেকশন রয়েছে কারুবাসার দস্তানায় ৷ এবারের পুজো স্পেশ্যাল মিক্স অ্যান্ড ম্যাচ শাড়ি ৷ মোটামুটি ১৭০০-২০০০ টাকা দাম ৷ ওড়িশার ডোংরি কাজের শাড়ি এ বছর পুজোর আকর্ষণ ৷ দাম ৪ হাজারের কাছাকাছি ৷ আর রয়েছে রাফ টেক্সচারের গোটা খাদির শাড়ি ৷ একেবারে ১০০ শতাংশ সুতির শাড়ি এগুলো ৷ রয়েছে ডিজাইনার ব্লাউজ ৷ রয়েছে হাতে আঁকা পাঞ্জাবী ৷ এ বছর অসমের গামছার কাজ অনেক হয়েছে কারুবাসায় ৷ অসমের গামছার ব্লাউজ, পাঞ্জাবী, ড্রেস, কুর্তা, জ্যাকেট সবই রয়েছে ৷

আগাম জানিয়ে রাখা ভাল, এবারের শীতে কিন্তু কলকাতার ঠাণ্ডায় পড়ার মতো দারুণ সব জ্যাকেট আনছেন টুম্পা ৷ রাজস্থানের ভূজের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে আসছে মস সিল্কের জ্যাকেট আর স্টোল ৷

First published: 07:30:53 PM Sep 18, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर