সন্ধি পুজোর ধোঁয়ায় ঢেকে যায় দেবীর মুখ, সকলে বলেন সেই সময় মা আসেন কৃষ্ণনগরের রাজবাড়িতে

মহালয়া থেকে নবমী পর্যন্ত সারা দিন-রাত জ্বলতে থাকে হোমের আগুন । রাজবাড়ির বর্তমান রানি শ্রীমতি অমৃতা রায় শোনালেন সেই হোমের গল্প । শুনলেন সিমলি রাহা...

Simli Raha | News18 Bangla
Updated:Sep 13, 2019 03:47 PM IST
সন্ধি পুজোর ধোঁয়ায় ঢেকে যায় দেবীর মুখ, সকলে বলেন সেই সময় মা আসেন কৃষ্ণনগরের রাজবাড়িতে
নিজস্ব চিত্র ৷
Simli Raha | News18 Bangla
Updated:Sep 13, 2019 03:47 PM IST

#কৃষ্ণনগর: বাগান, দীঘি আর বিশাল মাঠের মধ্যিখানে সুবৃহৎ রাজবাড়িটা কয়েক শতকের ইতিহাসকে পরম যত্নে জড়িয়ে রেখেছে অলিন্দের গোপন কুঠুরিতে । সে ছিল এক যুগ । মুঘল সম্রাট জাহাঙ্গিরকে যশোররাজ প্রতাপদিত্যকে পরাস্ত করতে সাহায্য করেছিলেন মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র । আর তাতেই খুশি হয়ে কৃষ্ণচন্দ্রকে রাজা করেছিলেন জাহাঙ্গির । আজ সেই রাজাও নেই, নেই তাঁর রাজত্বও । শুধু কালের স্মৃতিকে আজও ধরে রেখেছে কৃষ্ণনগরের রাজবাড়ি।

শোনা যায়, এই পরিবারে নাকি আগে দেবী অন্নপূর্ণা পুজোর চল ছিল । পরে কৃষ্ণচন্দ্রই সর্বসাধারণের জন্য দুর্গোৎসবের প্রচলন করেন । আজও পুজোর এক মাস আগে থেকে সেজে উঠতে থাকে সুবিশাল এই রাজবাড়ির আনাজ-কানাচ । ঘর রং থেকে শুরু করে পাহাড় প্রমাণ হোমের কাঠ জোগাড়, ঝাড়ামোছা, রাস্তায় মাটি ফেলা, টুকিটাকি কাজ সেরে প্রস্তুত হতে থাকে রাজবাড়ি ।

উল্টোরথের দিন কাঠামো পুজো । তারপর ষষ্ঠীর দিন হয় বোধন । নাটমন্দিরের পিছনেই রয়েছে মায়ের বোধন ঘর । মনে করা হয়, ওই বোধন ঘরেই রয়েছে মায়ের প্রাণ । তাই সেই ঘরের সামনেটা কখনও আটকানো যায় না । ওই দিনই পাটে তোলা হয় দেবীকে ৷ পাটে তোলা অর্থাৎ বেদীতে তোলা ৷ বেয়ারাদের কাঁধে চড়ে পাটে ওঠেন মা রাজরাজেশ্বরী ৷ সেই সময় সাঁই বাঁশ আর কাছি দড়ি দিয়ে তোলা হয় মা’কে ৷ তবে এই পরিবারের রীতি অনুযায়ী আজও মহালয়ার পরের দিন থেকে শুরু হয় হোম । সমস্ত নদিয়াবাসীর মঙ্গলের জন্য নিবেদন করা হয় এই হোমের আগুন । মহালয়া থেকে নবমী পর্যন্ত সারা দিন-রাত জ্বলতে থাকে হোমের আগুন । রাজবাড়ির বর্তমান রানি শ্রীমতি অমৃতা রায় শোনালেন সেই হোমের গল্প । নবমীর নিশিতে যখন গঙ্গাজল, মধু, ঘি, কলা, পানের আহুতি দিয়ে হোম নেভানো হয়, তখনও বারবার প্রজ্জ্বলিত হয়ে ওঠে সেই শিখা । পবিত্র অগ্নির মধ্যে দিয়ে যে তিনি এসেছিলেন, তা যেন স্পষ্ট বোঝা যায় ।

রাজবাড়ির দুর্গা প্রতিমা, রাজরাজেশ্বরী মা এখানে যুদ্ধবেশে আবির্ভূতা । টকটকে লাল শাড়ি তাঁর পরনে । দেবীর গায়ে বর্ম । হাতে অস্ত্র । ঘোটকাকৃতি সিংহের উপর উপবিষ্টা তিনি । মা রাজরাজেশ্বরীর সামনের দু’টো হাত বড় । পিছনের ৮টি হাত ছোট । প্রতিমার পিছনে রয়েছে অর্ধ চন্দ্রাকৃতি ছটা । তাতে আঁকা রয়েছে দশমহাবিদ্যা । সাবেকী প্রতিমার মতো এখানে কিন্তু ডাকের সাজ নেই । দেবীর এখানে ‘বেদেনি ডাক’-এর সাজে সজ্জিতা । আগে নাটমন্দিরেই ছিল চিকের আড়াল । বাড়ির মেয়েরা সেখান থেকে বসেই পুজো দেখত । আজ যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে উঠে গিয়েছে সেই প্রথা । তেমনই উঠে গিয়েছে বলি প্রথাও । আগে ১০৮টা ছাগ বলি হতো এখানে । পরে তা বন্ধ হয়ে প্রতীকী হিসাবে ১টি ছাগ বলি হত । শেষ পর্যন্ত অবশ্য তাও বন্ধ হয়ে যায় । এখন চালকুমড়ো আর আখ বলি হয় ।

 এই দরবার হল থেকেই রাজ্যপাট চালাতেন মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায় ৷ নিজস্ব চিত্র ৷
এই দরবার হল থেকেই রাজ্যপাট চালাতেন মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায় ৷ নিজস্ব চিত্র ৷

Loading...

কৃষ্ণনগর রাজবাড়ির পুজোর প্রধান আকর্ষণ অষ্টমীর সন্ধিপুজো আর দশমীর সিঁদুর খেলা । আজও ১০৮ ঘিয়ের প্রদীপ আর ১০৮টি প্রস্ফ‌ুটিত পদ্মে সন্ধি পুজো হয় দেবীর । প্রতি বছর, এক মুহূর্তের জন্য হলেও সুগন্ধি ধুনোর ধোঁয়ায় সম্পূর্ণ ঢেকে যায় মায়ের মুখ । প্রচলিত বিশ্বাস, ওই সময়ই মা আসেন । আগে ১০৮টা নীল পদ্মে সাজানো হত পুষ্পপত্র । আজ সেই নীল পদ্ম অতীত ।

এই পরিবারে আগে সিঁদুর খেলার রেওয়াজ ছিল না । বর্তমান রানিমার হাত ধরেই বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে রাজবাড়ির সিঁদুর খেলার অনুষ্ঠান । লোকমুখে প্রচলিত আছে, রাজবাড়ির নাটমন্দিরে সিঁদুর খেললে সিঁথির সিঁদুর অক্ষয় হয় । দূর দূরান্ত থেকে তাই ১০-১৫ হাজার মানুষ দশমীর দিন ভিড় জমান রাজবাড়ির সামনে । সিঁদুর খেলার শেষে ঘরে যাওয়ার পথে পরিবারের সদস্যদের বিশেষ কয়েকটা জিনিস দর্শন করতে হয় ৷ যেমন- সবৎস্য ধেনু, বৃষ, গজ, গণিকা, ঘোড়া, নৃপ ইত্যাজি ৷ দশমীর দিন প্রতিমা নিরঞ্জনের পর হয় যাত্রামঙ্গল অনুষ্ঠান ৷

 কৃষ্ণনগর রাজবাড়ির বর্তমান রানিমা শ্রীমতি অমৃতা রায় ৷ নিজস্ব চিত্র ৷
কৃষ্ণনগর রাজবাড়ির বর্তমান রানিমা শ্রীমতি অমৃতা রায় ৷ নিজস্ব চিত্র ৷

তবে আজও বাড়ির মেয়েদের অনুমতি নেই বিসর্জনে যাওয়ার । নাটমন্দির থেকে বেরিয়ে যখন মা দীঘির উদ্দেশ্যে রওনা দেন, তখন দূরে মূল বসতবাড়ির ফ্রেঞ্চ বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকেন রানিমা । বারান্দার সামনে এসে ক্ষণিকের জন্য দাঁড়ান রাজরাজেশ্বরী । দূর থেকে তাঁকে প্রণাম করে রানি বলেন, ‘‘আবার এসো মা । সাবধানে যেও ।’’ তখন আবার বেয়ারাদের কাঁধে চেপে শ্বশুরঘরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন দেবী ।

অতীতে বিসর্জনের পর ঘাট থেকে উড়িয়ে দেওয়া হত নীলকণ্ঠ পাখি । বিশ্বাস, এই পাখিই কৈলাসে গিয়ে শিবকে খবর দেয় মর্ত্যলোক থেকে যাত্রা শুরু করেছেন মা । কিন্ত নীলকণ্ঠ পাখির সেই রেওয়াজ আজ আইনের গেড়োয় আটকে । তাই এই রীতিও আজ আর নেই । তবে এখনও বিসর্জনের পর মায়ের বিড়ে তুলে দেওয়া হয় অমৃতাদেবীর হাতে । সেই বিড়ে রেখে দিতে হয় এক বছর । পরের বছর এক বিড়ে বিসর্জন দিয়ে অন্য বিড়ে ধারণ করার নিয়ম ।

বিসর্জনের পর রয়েছে আরও একটি রীতি । রাজ্যে আমোদ-উৎসবের পর রাজাকে তাঁর কর্তব্য সম্বন্ধে সচেতন করে দিতে নকল শত্রু বানাতেন প্রজারা । প্রতিমা নিরঞ্জনের পর রাজাবাবু তীর-ধনুক দিয়ে সেই শত্রু বধ করে প্রজাদের আশ্বাস দিতেন । সেই রেওয়াজ আজও মেনে চলেন বর্তমান রাজা সৌমিশচন্দ্র রায় ।

First published: 03:47:43 PM Sep 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर