Home /News /explained /
Meta Policy Change: নীতি বদলেছে Meta! ইউজারদের প্রাইভেসি পলিসিতে কী বদল আসছে!

Meta Policy Change: নীতি বদলেছে Meta! ইউজারদের প্রাইভেসি পলিসিতে কী বদল আসছে!

Meta Policy Change: এ বিষয়ে খোলাখুলি জানাচ্ছেন Meta-র চিফ প্রাইভেসি অফিসার, প্রোডাক্ট মিশেল প্রোটি (Michel Protti)।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: Meta বদলে ফেলেছে তার বেশ কিছু নীতি। ইতিমধ্যেই তারা আপডেট করে ফেলেছে তাদের প্রাইভেসি পলিসি (Privacy Policy)। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী প্রতিটি মানুষের সেই পরিবর্তন সম্পর্কে অবগত থাকা দরকার। এ বিষয়ে খোলাখুলি জানাচ্ছেন, Meta-র চিফ প্রাইভেসি অফিসার, প্রোডাক্ট মিশেল প্রোটি (Michel Protti)।

দেখে নেওয়া যাক এক নজরে, কী বলছে Meta?

● মেটা তাদের প্রাইভেসি পলিসি নতুন করে গড়ে তুলেছে। স্বচ্ছতা আনাই তাদের মূল লক্ষ্য বলে তারা দাবি করেছে। মেটার দাবি, নতুন প্রাইভেসি পলিসি অনেক সহজে বোধগম্য হবে। এ থেকে যে কোনও ব্যবহারকারী বুঝতে পারবেন ব্যবহারকারীর তথ্য (Information) সংস্থা কী ভাবে কাজে লাগাতে পারে।

● আপডেটেড পলিসিতে যা লেখা হয়েছে তাতে এটা স্পষ্ট যে ব্যবহারকারীর তথ্য (Data) কোনও ভাবেই সংগ্রহ করে রাখা (Collecting), কোথাও ব্যবহার করা (Using) বা কোনও তৃতীয় পক্ষকে সরবরাহ (Sharing) করা হয় না।

● Meta আরও বিস্তৃত ব্যাখ্যা সহযোগে প্রাইভেসি পলিসি রচনা করেছে। তাতে বলা হয়েছে, কী ভাবে তারা তৃতীয় পক্ষের কাছে ব্যবহারকারীর তথ্য পাঠায় বা ব্যবহার করে। Meta তার নিজস্ব পলিসিকে যুক্ত করে নিয়েছে প্রাইভেসি সেন্টারের (Privacy Center) সঙ্গে।

এর ফলে ব্যবহারকারীরা নিজেদের অ্যাকাউন্ট নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। যেমন, তাঁর পোস্ট কে বা কারা দেখতে পাবেন, তেমনই ওই ব্যবহারকারী কোন কোন বিষয়ের বিজ্ঞাপন দেখতে চান।

২৬ মে থেকে কী বলছে Meta?

গত ২৬ মে থেকে Meta ব্যবহারকারীদের এই প্রাইভেসি পলিসি পরিবর্তনের বিষয়ে নোটিফিকেশন দিতে শুরু করেছে। এই পলিসি আগে ডেটা পলিসি (Data Policy) হিসেবে দেখানো হত।

Meta-র দাবি, সাধারণ মানুষের মতামত (Feedback)-এর উপর ভিত্তি করে তারা তাদের প্রাইভেসি পলিসি পরিবর্তন করেছে। এতে সাধারণ মানুষের বুঝতে সুবিধা হবে। পাশাপাশি সংস্থার নতুন নতুন পণ্য ও পরিষেবাগুলি ব্যবহারকারীদের কাছে তুলে ধরতেও সুবিধা হবে।

আরও পড়ুন- আপনার স্মার্টফোনে কি রয়েছে UNISOC চিপসেট! সাইবার অ্যাটাক থেকে সাবধান

Meta বার বার জানিয়েছে, নীতি প্রকরণে পরিবর্তন আনা হলেও কখনই ব্যবহারকারীর তথ্য তারা সংগ্র করে রাখা না, বা ব্যবহার ও শেয়ার করে না। মেটা দাবি করেছে তারা কোনও ভাবেই ব্যবহারকারীর তথ্য তৃতীয় কোনও পক্ষের কাছে বেচে না। প্রাইভেসির পাশাপাশি Meta তাদের পরিষেবার শর্তাবলি (Terms of Service)-র পরিবর্তনও করছে।

Meta-র লক্ষ্য হল, তথ্যের সুরক্ষা। অতিরিক্ত বিশদ এবং উদাহারণ দিয়ে বিষয়টিতে বেশ খানিকটা অগ্রসর হওয়া গিয়েছে। Meta সব সময় ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার নিরিখে কাজ করতে পছন্দ করে।

তবে হ্যাঁ, কোনও ভাবেই ব্যবহারকারীর গোপনীয়তার সঙ্গে আপোস করা হয় না। ফলে Meta-র কাঁধে সব সময়ই একটা দায়িত্ব বর্তায়, যাতে যে সমস্ত ডেটা ব্যবহার করা হচ্ছে তা কঠোর ভাবে সুরক্ষিত থাকে।

সেই সঙ্গে ওই ডেটা কোথায় কোথায় ব্যবহার করা হচ্ছে সে সংক্রান্ত একটা স্বচ্ছতাও থাকা দরকার। এরই মধ্যে নিহিত থাকছে Meta-র ডেটা প্র্যাকটিসে স্পষ্ট ব্যাখ্যা এবং গ্রাহকের পছন্দ বা অপছন্দ।

মিশেল প্রোটি বলেন, ‘আমারা আরও নানা রকম উদ্ভাবনের মধ্যে দিয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি যাতে উপভোক্তারা আরও সহজে এবং নিজের সুবিধা মতো আমাদের পণ্য ও পরিষেবা পেতে পারেন।

একজন ব্যবহারকারী তার প্রাইভেসি সেটিংস (Privacy Settings) যে কোনও সময় ম্যানেজ করতে পারবেন। এমনকী কোনও রকম পরিবর্তন হলেই তা তাঁকে জানানো হবে, এ বিষয়ে আমরাও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

এর পাশাপাশি তাঁরা শর্তাবলি পরিবর্তনের চেষ্টাও করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন। অর্থাৎ, যাঁরা Meta-র সোশ্যাল প্লাটফর্মগুলি ব্যবহার করেন, তাঁদের কাছে আরও খোলাখুলি জানিয়ে দেওয়া হবে তাঁরা কী কী পেতে পারেন। এর মধ্যে থাকছে অধিকার এবং কর্তব্যের বিষয়টিও।

Meta-র নিজস্ব কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড (Community Standards)-এর অধীনে এই বিষয়গুলি থাকেই। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, এমন অনেক অ্যাকাউন্টই সংস্থার তরফ থেকে নিষ্ক্রিয় (Disable) করে দেওয়া হয় অথবা একেবারে বন্ধ করে (Terminate) দেওয়া হয়।

আরও পড়ুন- মাইক্রোসফট অফিসে এবার হানা চিনের! চুরি হয়ে যাচ্ছে যাবতীয় তথ্য! ভয়াবহ বিপদ!

এ সব হয়ে থাকে যদি কোনও ব্যবহারকারী সংস্থার শর্ত (Terms) বা কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড (Community Standard) ভঙ্গ করেন। এমনটা হতে পারে আরও একটি কারণে। যদি দেখা যায় যে, কোনও রকম বৌদ্ধিক সম্পদ (Intellectual Property) সংক্রান্ত অধিকার ভঙ্গ করা হচ্ছে বা অন্য কোনও রকম আইন ভঙ্গ করা হচ্ছে।

গত ২৬ মে থেকে Facebook, Instagram এবং Messenger ব্যবহারকারীদের নোটিফিকেশন পাঠানো শুরু হয়েছে। এই নোটিফিকেশনে বলা হবে নতুন প্রাসঙ্গিক প্রাইভেসি পলিসি এবং শর্তাবলিতে তাঁদের নিজস্ব এলাকায় তাঁরা কী কী সুবিধা পেতে চলেছেন। বা কী কী নিয়ম লাগু হতে চলেছে। এর মধ্যে একটি এমন তালিকাও দেওয়া হবে যা থেকে স্পষ্ট বোঝা যাবে যে কী কী পরিবর্তন হল।

তবে এই আপডেট কার্যকর হতে এখনও বেশ কিছু দিন বাকি রয়েছে। আগামী ২৬ জুলাই থেকে এই নতুন প্রকরণ কার্যকর হবে। যদিও অ্যাকাউন্ট বজায় রাখতে বা Meta-র প্লাটফর্মগুলি ব্যবহার করার জন্য ব্যবহারকারীকে আলাদা করে কিছু করতে হবে না।

Meta Privacy Policy-র আওতায় আসবে Facebook, Instagram, Messenger এবং অন্য মেটা অধীনস্থ পরিষেবাগুলি। তবে এর আওতায় পড়বে না WhatsApp, Workplace, Free Basics, Messenger Kids। অথবা, যে সব ডিভাইসে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নেই, সেই সব ডিভাইসের Quest-এর ক্ষেত্রেও এটি কার্যকর হবে না। কারণ এদের নিজস্ব প্রাইভেসি পলিসি রয়েছে।

ফিডব্যাকের উত্তর এবং আইনের বিবর্তন

সারা বিশ্বেই গোপনীয়তা এবং তথ্যের সুরক্ষা আইন (Privacy and Data Protection Regulations)-এ ব্যাপক রদবদল ঘটে গিয়েছে গত কয়েক বছরে। তাই সেই আইনের সঙ্গে তাল মেলাতে Meta তার তথ্য সংক্রান্ত নীতি (Data Practices)-তে স্বচ্ছতা আনতে চাইছে।

তারা সাধারণ মানুষকে কেন্দ্র করে গোপনীয়তার নীতি সাজান হয়েছে। মেটার দাবি, বিশেষজ্ঞদের মতামত নিয়েই এই নতুন পলিসি সাজানো হয়েছে। নীতি নির্ধারক এবং সাধারণ ব্যবহারকারীদের মতামতক গুরুত্ব দিয়েই নতুন পথে হাঁটা শুরু করেছে এই সংস্থা।

তাদের লক্ষ্য, আরও ভাল পরিষেবা দেওয়া। আগামী দিনে নতুন নতুন পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে খামতির দিকগুলিতে নজর দিয়ে আরও ভাল ও নিশ্ছিদ্র ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চায় Meta।

Meta-র দাবি, তারা সকল ব্যবহারকারীদের অনুরোধ করবে যাতে তাঁরা খুব মন দিয়ে নতুন পলিসিটি পড়ে দেখেন। এতে তাঁরা বুঝতে পারবেন কী ভাবে Meta-র কাজ চলছে। পাশাপাশি এর মাধ্যমে সংস্থার নতুন নতুন পণ্য ও পরিষেবাগুল সম্পর্কেও ওয়াকিবহাল থাকতে পারবেন তাঁরা। যেমন, শপ (Shops) বা ফেসবুক ভিউ (Facebook View)।

প্রাইভেসি সেন্টার

চলতি বছরের শুরুতে Meta কাজ করতে শুরু করেছিল তাদের নিয়ে। এটি হল এমন একটি জায়গা যেখানে এসে সাধারণ মানুষ আরও বেশি ভাল করে জানতে পারবেন তথ্যের গোপনীয়তা নিয়ে ঠিক কী ভাবছে Meta।

যাঁরাই Facebook ব্যবহার করেন, তাঁরা সকলেই এই Privacy Center-এ গিয়ে দেখে আসতে পারেন, তা সে ডেস্কটপেই (Desktop) হোক বা মোবাইলে (Mobile)।

আসলে এটি একটি এমন কেন্দ্র (HUB) যেখানে রয়ছে গোপনীয়তা সংক্রান্ত অজস্র প্রশ্ন। একজন ব্যবহারকারী এখানে গিয়ে জেনে নিতে পারেন Meta কী ভাবে গ্রাহকের তথ্য ব্যবহার করে। এর মধ্যে থেকে কিছু তথ্য তারা ব্যবহার করে বেশ কিছু Privacy Control-এ।

কন্ট্রোল আপডেট

১. গত ২৬ মে থেকে নতুন নিয়ম চালু হয়েছে। এর মাধ্যমে গোপনীয়তা রক্ষা করা আরও সহজ হবে বলে দাবি। Meta জানিয়েছে, একজন গ্রাহক এখন আরও সহজে জানতে পারবেন তাঁর করা পোস্ট কারা কারা দেখতে পাচ্ছেন।

বর্তমানে যখন কেউ তাঁর পোস্টের জন্য ডিফল্ট অডিয়েন্স (Default Audience) সিলেক্ট করেন তখন Facebook-এ করা নতুন পোস্টের জন্য ওই অডিয়েন্স নির্বাচিত হয়ে যায়। ওই ব্যবহারকারীর টাইমলাইনে (Timeline) ওই পোস্ট যখন দেখায় তখন ওই নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষই তা দেখতে পান। তবে যদি না এই নির্দিষ্ট দর্শককে ব্যবহারকারী নিজে পরিবর্তন করেন।

আগে বিষয়টা এমন ছিল না। আগের পোস্টে অডিয়েন্স হিসেবে যাদের সিলেক্ট করে রাখা ছিল, পরের পোস্টের জন্যও তাদেরই ডিফল্ট হিসেবে দেখাত ফেসবুক।

২. সম্প্রতি Meta এমন পদ্ধতি ব্যবহার করছে যাতে বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে একবার কন্ট্রোল করেই ব্যবহার করা যায় Facebook এবং Instagram। এ ক্ষেত্রে বিজ্ঞাপনের বিষয় এবং পছন্দ একবারেই নির্বাচন করা হয়ে যাবে।

Published by:Suman Majumder
First published:

Tags: Meta

পরবর্তী খবর