Home /News /explained /
Explained | Covid test : কখন কোভিড টেস্ট করা প্রয়োজন, কখন নয়? জেনে নিন

Explained | Covid test : কখন কোভিড টেস্ট করা প্রয়োজন, কখন নয়? জেনে নিন

File photo

File photo

Explained | Covid test : সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার কোভিড টেস্ট ও হোম কোয়ারান্টিনের জন্য নয়া নির্দেশিকা জারি করেছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) ওমিক্রন প্রজাতি (Omicron Variant) বিশ্বজুড়ে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে। দেশে দেশে নতুন করে নানা বিধিনিষেধ জারি করা হচ্ছে। ভারতেও ওমিক্রন সংক্রমণ মারাত্মক আকার নিয়েছে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সর্বত্রই চিন্তিত যে কোভিডের সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার (Health Systems) উপর বিপুল চাপ আসতে চলেছে। স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার মতো পরিস্থিতি হতে পারে যদি না সংক্রমণের গতি রোখা যায়। গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় এই ছবি ভারতে দেখা গিয়েছিল। আমরা এটা জানি যে সংক্রমণ মারাত্মক আকার নিলে কী ধরনের ধ্বংসাত্মক ঘটনা ঘটতে পারে। স্বাস্থ্য আধিকারিকরা তাই সমস্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। ভারতে ৬০ বছর বা তার বেশি বয়সী ব্যক্তিদের জন্য 'সতর্কতামূলক ডোজ' দেওয়া শুরু হয়েছে। এছাড়াও ১৫-১৮ বছর বয়সীদের টিকা দেওয়া হচ্ছে ৩ জানুয়ারি থেকে। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার কোভিড টেস্ট ও হোম কোয়ারান্টিনের জন্য নয়া নির্দেশিকা জারি করেছে। যার মধ্যে একজন ব্যক্তিকে কখন নিজের টেস্ট (Covid-19 Test) করাতে হবে, সেটাও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

আইসোলেশনের সময় ৭ দিনে কমানো হয়েছে, কারণটা কী?

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (ICMR)-র ডিরেক্টর বলরাম ভার্গব (Balram Bhargava) বলেছেন যে উপসর্গযুক্ত (Symptomatic) এবং উপসর্গহীন (Asymptomatic), উভয় কোভিড রোগীই ১০ দিনের পরিবর্তে ৭ দিনের জন্য আইসোলেশনে থাকতে পারে। আইসিএমআর প্রধানের মতে, সংক্রমণের তৃতীয় দিন থেকে অষ্টম দিন পর্যন্ত কোভিড সনাক্ত করতে পারে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট এবং হোম-অ্যান্টিজেন টেস্ট। যেখানে আরটি-পিসিআর টেস্ট পজিটিভ দেখাতে পারে ২০ দিন। উপরন্তু, তিনি বলেছিলেন যে প্রথম দিনে কোভিড টেস্ট করা এড়াতে হবে। কারণ যে টেস্টই করা হোক না কেন, রিপোর্ট নেগেটিভ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এর কারণ হিসেবে ভার্গব বলেছিলেন, "সিস্টেমে ভাইরাসের বৃদ্ধি হতে সময় লাগে এবং এটি সুপ্ত সময়কাল হিসাবে পরিচিত। তৃতীয় দিন থেকে অষ্টম দিন পর্যন্ত এটি ল্যাটারাল ফ্লো টেস্টে শনাক্ত করা যাবে এবং যা কোভিডের সংক্রামক সময়কাল।"

কাকে টেস্ট করতে হবে, কাকে করতে হবে না?

কেন্দ্রের সংশোধিত নির্দেশিকা অনুসারে, কোভিড পজিটিভ রোগীদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকেদের জন্য টেস্ট করা বাধ্যতামূলক নয়, যদি না তারা উচ্চ ঝুঁকি শ্রেণীর লোকেদের মধ্যে পড়ে। তা ছাড়া উপসর্গহীন ব্যক্তি, যারা সবেমাত্র হোম আইসোলেশন সম্পন্ন করেছেন এবং যারা আন্তঃরাজ্য ভ্রমণ করছেন তাদের নতুন সরকারি নিয়ম অনুযায়ী আরটি-পিসিআর টেস্টের (RT-PCR Test) প্রয়োজন নেই। যাদের জ্বর, কাশি, গলা ব্যথা এবং গন্ধ ও স্বাদের অনুভূতির না থাকার মতো উপসর্গগুলি রয়েছে, যাদের পূর্বের রোগ (Comorbidities) রয়েছে এবং যারা আন্তর্জাতিক ভ্রমণ করেছে, তাদের টেস্ট করার প্রয়োজন হতে পারে।

এছাড়াও উপসর্গহীন ব্যক্তিদের মধ্যে যারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে, এমনকি সার্জারির ক্ষেত্রেও যদি না উপসর্গ দেখা যায়, টেস্ট করানোর প্রয়োজন নেই। প্রসবের জন্য হাসপাতালে ভর্তি থাকা গর্ভবতী মহিলাদেরও (Pregnant Women) টেস্ট করার দরকার নেই যদি না উপসর্গ থাকে।

ভারতে কত ধরনের কোভিড টেস্ট করা যায়?

কোভিড টেস্টগুলি আমাদের সিস্টেমে করোনাভাইরাস (Coronaviru) সনাক্ত করার একটি কার্যকর পদ্ধতি। টেস্টগুলি সক্রিয় রোগীর সংখ্যা নিশ্চিত করতে সাহায্য করে, তা সে উপসর্গ থাকুক বা না থাকুক। দু'টি প্রাথমিক ধরণের কোভিড টেস্ট রয়েছে, যা ডায়াগনস্টিক টেস্ট এবং অ্যান্টিবডি টেস্ট নামে পরিচিত। ডায়াগনস্টিক টেস্ট মানুষের শ্লেষ্মা এবং লালায় সক্রিয় করোনভাইরাস সংক্রমণ সনাক্ত করে। অন্যদিকে, শরীর ইতিমধ্যেই ভাইরাসের মুখোমুখি হয়েছে কি না তা জানা যায় অ্যান্টিবডি টেস্টের মাধ্যমে।

মলিকিউলার টেস্ট (Molecular Test): মলিকিউলার টেস্ট পিসিআর (পলিমারেজ চেইন রিঅ্যাকশন) নামেও পরিচিত, এটি একটি সক্রিয় করোনভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত করার জন্য সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য এবং সঠিক টেস্ট। এই টেস্টের জন্য সোয়াব ব্যবহার করে নাক এবং গলা থেকে শ্লেষ্মা সংগ্রহ করতে হয়। কোভিড-১৯ শনাক্ত করার জন্য আরটি-পিসিআর টেস্টকে ‘গোল্ড স্ট্যান্ডার্ড’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ওমিক্রনের উত্থানের মধ্যে এই টেস্টের গ্রহণযোগ্যতা আরও বেড়েছে। আরটি-পিসিআর টেস্ট একটি প্যাথোজেনের মধ্যে নির্দিষ্ট জেনেটিক উপাদানের উপস্থিতি সনাক্ত করে। নভেল করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ টেস্টগুলি ভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনের জিন খুঁজে বের করে। এই স্পাইক প্রোটিনকেই (Spike Protein) মানুষের কোষকে আক্রমণ করতে ভাইরাস ব্যবহার করে।

র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষা (Rapid Antigen Test): র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট, যা অ্যান্টিজেন টেস্ট নামেও পরিচিত। এটি ভাইরাস সনাক্ত করার একটি দ্রুত এবং সস্তা উপায়। মাত্র ১৫-৩০ মিনিটের মধ্যে রিপোর্ট পাওয়া যায়। তবে, এটা বলা যায় না যে সেগুলি ১০০ শতাংশ সঠিক। র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট থেকে ভুল ফলাফল পাওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে। বাড়িতে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা যতটা সুবিধাজনক বলে মনে হয়, পিসিআর টেস্টের তুলনায় দ্রুত এটির রিপোর্ট ভুল হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। কেন এটি ঘটে তার পিছনে একটি বড় কারণ হল অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুধুমাত্র প্রোটিন অংশ দেখে, সম্পূর্ণ ভাইরাস আরএনএ নয়। সুতরাং, কোনও ডায়াগনস্টিক ভুল এড়াতে অন্য পদ্ধতিতে টেস্ট করে নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ, বিশেষ করে একটি আরটি-পিসিআর টেস্ট (RT-PCR)।

আরও পড়ুন- ওমিক্রন আশীর্বাদ না অভিশাপ? এর সঙ্গেই কি শেষ হতে চলেছে অতিমারি?

অ্যান্টিবডি টেস্ট (Antibody test): অ্যান্টিবডি টেস্ট সক্রিয় করোনভাইরাস সংক্রমণ সনাক্ত করতে পারে এবং অতীতে কেউ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে কি না তাও জানাতে পারে। যাই হোক, সংক্রমণ শুরু হওয়ার অন্তত কয়েক দিন পর পর্যন্ত অ্যান্টিবডি সনাক্ত করা সম্ভব নয়। অ্যান্টিবডি টেস্টের রিপোর্ট দ্রুত পাওয়া যায় না।

আরও পড়ুন- শিশুদের জন্য কোন কোন কোভিড টিকা অনুমোদিত? দেখে নিন তালিকা!

ভারতে অনুমোদিত কিট সম্পর্কে যা জানা উচিত: ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতে স্বাস্থ্য আধিকারিকরা হোম টেস্ট কিট (Home Test Kits) ব্যবহার করতে উৎসাহিত করেছেন। আরটি-পিসিআর (RT-PCR) ভিত্তিক টেস্টের রিপোর্ট পেতে দেরি হয়। তাই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ (Rajesh Bhushan) এবং আইসিএমআর (ICMR) ডিজি সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মুখ্য সচিবদের কাছে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ ভারতে একাধিক সেল্ফ কোভিড টেস্ট কিটস ব্যবহারে ছাড়পত্র দিয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে মাইল্যাব ডিসকভারি সলিউশনের (MyLab Discovery Solutions) তৈরি কোভিসেল্ফ (CoviSelf), অ্যাবট (Abbott) দ্বারা প্যানবিও কোভিড-২৯ অ্যান্টিজেন সেল্ফ টেস্ট (Panbio COVID-29 Antigen Self-Test), অ্যাংস্ট্রমের (Angstrom) অ্যাংকার্ড কোভিড-১৯ অ্যান্টিজেন র‌্যাপিড টেস্ট কিট (Angcard Covid 19 Antigen Rapid Test Kit)। টেস্টিং কিটগুলির দাম ২৫০-৫০০ টাকার মধ্যে। যা পিসিআর টেস্টের তুলনায় সস্তা। ভারতে পিসিআর টেস্টের খরচ ৪০০-১ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে পড়ে। এছাড়া, ল্যাবরেটরিতে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টের খরচ পড়ে ৩০০-৯০০ টাকার মধ্যে।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: Corona. COVID 19, Coronavirus

পরবর্তী খবর