'ঘুম নেই'-তে আর নেই কৌশিক, বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় 'বামপন্থী নাটক' থেকে বাদ পড়লেন শিল্পী

'ঘুম নেই'-তে আর নেই কৌশিক, বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় 'বামপন্থী নাটক' থেকে বাদ পড়লেন শিল্পী

FILE PHOTO

ইতিমধ‍্যেই জলঘোলা শুরু হয়ে গিয়েছে বিভিন্ন মহলে। অনেকেই সিদ্ধান্তের সমর্থনে সুর চড়িয়ছেন। কেউ কেউ গোটা ঘটনাটাকে ‘অসহিষ্ণুতার বহিঃপ্রকাশ’ বলে ব‍্যাখ‍্যা করেছেন।

  • Share this:

    #কলকাতা : শিল্পেও রাজনীতির মেরুকরণ অব্যাহত। তারই পদক্ষেপ হিসেবে স্বঘোষিত বামপন্থী নাট্যকার সৌরভ পালোধীর নাটক থেকে বাদ পড়লেন মঞ্চের জনপ্রিয় অভিনেতা কৌশিক কর। সম্প্রতি গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছেন এককালের অতিবাম মনোভাবাপন্ন কৌশিক। আর তাতেই ক্ষুব্ধ ইচ্ছে মত নাট্যগোষ্ঠীর প্রযোজক সৌরভ পালোধি।

    নাট্যকার সৌরভ যে আগাগোড়াই বামপন্থী মনোভাবাপন্ন তা সকলেই জানেন। কৌশিক করকে বাদ দেওয়ার সপক্ষে তাঁর যুক্তি, মেহনতী মানুষের নাটকের সাম্প্রদায়িকতার কোনো স্থান নেই। ২০১৯ সালে ঘুম নেই নাটকে অভিনয়ের জন‍্য নেওয়া হয়েছিল কৌশিককে। তাঁর চরিত্রের নাম ছিল আখলাক, যাকে কিনা ২০১৫তে দাদরির ঘটনায় গোমাংস খাওয়ার সন্দেহে হত‍্যা করা হয়েছিল। উৎপল দত্তের নাটক থেকে এই চরিত্রটি তৈরি করেছিলেন সৌরভ ও কৌশিক। এখন কৌশিক বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর আখলাকের চরিত্রে অভিনয় করলে নাটকের আত্মাকে আক্রমণ করা হবে বলে মনে করেন সৌরভ। সেই কারণেই বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছে সৌরভ। বিষয়টি স্পষ্ট করতে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট ও করেন সৌরভ। বারবার পদ্ম শিবিরের সমালোচনায় মুখর এবং গত ২৮ ফেব্রুয়ারির ব্রিগেড সুর চড়ানো সৌরভ ফেসবুক পোস্টে স্পষ্ট করেছেন তাঁর অবস্থান।

    বিষয়টা নিয়ে ইতিমধ‍্যেই জলঘোলা শুরু হয়ে গিয়েছে বিভিন্ন মহলে। অনেকেই সৌরভের সমর্থনে সুর চড়িয়ছেন। কেউ কেউ গোটা ঘটনাটাকে ‘অসহিষ্ণুতার বহিঃপ্রকাশ’ বলে ব‍্যাখ‍্যা করেছেন। পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ‍্যায়ের মতে, রাজনৈতিক রঙ দেখে কাস্টিং করা উচিত নয়। অভিনেত্রী তথা বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা মৈত্র কটাক্ষ শানিয়ে বলেছেন, এটা অসহিষ্ণুতা। গণতান্ত্রিক দেশে এমনটা মানা সম্ভব নয়। রুদ্রনীর ঘোষ একে বামপন্থী থিয়েটার কর্মীদের ‘ফ‍্যাসিবাদ’ বলেছেন। একই রকম বক্তব‍্য অভিনেতা কৌশিক করেরও। তাঁর কথায়, "কয়েকজন বামপন্থী থিয়েটারকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। তাঁরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে, তাই এমন বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত। সাম‍্যবাদ তাঁরা বোঝে না।"

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published:

    লেটেস্ট খবর