• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • মেয়ে তাঁর চেয়ে লম্বা, সেই রাগে মেয়ের কোনও খোঁজই রাখেন না টম ক্রুজ

মেয়ে তাঁর চেয়ে লম্বা, সেই রাগে মেয়ের কোনও খোঁজই রাখেন না টম ক্রুজ

 ২০১২ সালে ছাড়াছাড়িও হয়ে যায় তাঁদের। জানা যায় যে সেই থেকে আর একবারের জন্যও সুরির কোনও খোঁজ নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি টম!

২০১২ সালে ছাড়াছাড়িও হয়ে যায় তাঁদের। জানা যায় যে সেই থেকে আর একবারের জন্যও সুরির কোনও খোঁজ নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি টম!

২০১২ সালে ছাড়াছাড়িও হয়ে যায় তাঁদের। জানা যায় যে সেই থেকে আর একবারের জন্যও সুরির কোনও খোঁজ নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি টম!

  • Share this:

#কলকাতা: সন্তান, তা সে ব্যক্তিগত সাফল্যেই হোক বা উচ্চতায়, যদি মা-বাবাকে ছাপিয়ে যায়, সে ক্ষেত্রে সাধারণত তাঁদের আনন্দের সীমা থাকে না! কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর দাবি উঠেছে যে এক্ষেত্রে ওই সাধারণত শব্দটার উপরে একটু জোর দিতে হবে। মানেটা জলের মতোই তরল। কারও এ নিয়ে আনন্দ যেমন হতে পারে, তেমনই কেউ বা আবার পড়তে পারেন চরম অহংবোধের খপ্পরে! নেটিজেনদের দাবি- হলিউডের ডাকসাইটে অভিনেতা টম ক্রুজকে (Tom Cruise) রাখতে হবে ওই দ্বিতীয় দলে! অর্থাৎ মেয়ে সুরি (Suri Cruise) যে তাঁর চেয়েও লম্বা, এ ব্যাপারটা মোটে বরদাস্ত করতে পারেন না নায়ক! আর এমনটা হতে পারে ভেবেই অনেক বছর হয়ে গেল মেয়ের কোনও খোঁজখবরও নেন না তিনি!

কেটি হোমস (Katie Holmes) আর টম ক্রুজের সন্তান এই সুরি। কেটির সঙ্গে টমের বিয়ে হয়েছিল ২০০৬ সালে। ২০১২ সালে ছাড়াছাড়িও হয়ে যায় তাঁদের। জানা যায় যে সেই থেকে আর একবারের জন্যও সুরির কোনও খোঁজ নেওয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি টম! সুরি বড় হয়েছে তার মায়ের কাছেই। কী যত্ন, কী অর্থ- মেয়ের দেখাশোনার জন্য কোনও দিক থেকেই নাকি কেটি টমের মুখাপেক্ষী নন!

সম্প্রতি এই মা-মেয়েকে একসঙ্গে দেখা গিয়েছে নিউ ইয়র্ক সিটির পথে। যার বেশ কয়েকটা ছবি এর মধ্যেই ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নেট দুনিয়ায়। এবং সবাই লক্ষ্য করেছেন ভালো মতেই, যে মাত্র ১৪ বছর বয়সেই সুরি উচ্চতার দিক থেকে তার মা কেটির কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখা ভালো যে কেটির উচ্চতা যেখানে ৫.৯ ফুট, সেখানে টমের উচ্চতা মেরেকেটে ৫.৫ ফুট!

আর এই ব্যাপারটা নিয়েই নায়কের মেয়ের প্রতি অবহেলার মনোভাবের সমালোচনা শুরু করেছেন সোশ্যাল মিডিয়া ইউজাররা! তাঁরা স্পষ্ট লিখতে দ্বিধা করছেন না, যে এই জন্যেই টম আর তাঁর ইগো মেয়ের ধারে-কাছে ঘেঁষার সাহস করে না; ও যে লম্বায় বাবাকে ছাপিয়ে গিয়েছে!

আসলে, সম্প্রতি টমের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে কোভিড প্রোটোকল ভাঙার জন্য শ্যুটিং টিমের জনকয়েক কর্মীকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালি করছিলেন তিনি। যা অনেকেই ভালোভাবে নিতে পারেননি। সকলেরই বক্তব্য ছিল এই যে, টম প্রয়োজনের চেয়ে কিছু বেশিই খারাপ ব্যবহার করেছেন!

যাই হোক, মেয়ের বড় হয়ে ওঠা বা সোশ্যাল মিডিয়ার সমালোচনা, কোনও কিছু নিয়েই তেমন ভাবিত নন নায়ক। আপাতত করোনার থাবা থেকে বাঁচতে সারে-র এক ট্যাঙ্কের মতো দেখতে মিলিটারি বেসে ছবির শ্যুটিং চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। লক্ষ্য একটাই- সব দিক ঠিক রেখে জলদি মিশন ইমপসিবল ৭-এর কাজ শেষ করে ফেলা।

Published by:Antara Dey
First published: