Web Series : ফ্ল্যাটমেট থেকে কি প্রণয়ী হবেন রম্য-তৃষা? কমেডিয়ান ও মেহন্দিশিল্পীকে নিয়ে রোমান্টিক কমেডি

৩০ জুলাই থেকে আড্ডাটাইমস-এ শুরু হবে স্ট্রিমিং , ছবি-সংগৃহীত

অভ্রর পরিচালনায় এ বার মুক্তি পেতে চলেছে প্রথম পূর্ণাঙ্গ ছবি তথা ওয়েবসিরিজ ‘ফ্ল্যাটমেট’ (FlatMate)৷ ৩০ জুলাই থেকে আড্ডাটাইমস-এ শুরু হবে স্ট্রিমিং ৷

  • Share this:

    কলকাতা : সহবাস, প্রেম কিছুই ছিল না তাঁদের মধ্যে ৷ কিন্তু অনাত্মীয় দুই তরুণ তরুণী থাকতেন একই ছাদের নীচে ৷ তাঁরা নিছকই ‘ফ্ল্যাটমেট’ ৷ নতুন প্রজন্মের অভিধানে ঢুকে পড়া অনেক নতুন শব্দের মধ্যে এটাও একটি ৷ ব্যাচমেট, ক্লাসমেটের মতো একই ফ্ল্যাটের বাসিন্দার পোশাকি নাম ‘ফ্ল্যাটমেট’৷

    পরিচিত তরুণ তরুণীকে একে অপরের ফ্ল্যাটমেট হতে দেখে প্রথমে অবাকই হয়েছিলেন অভ্র চক্রবর্তী ৷ গত এক দশকেরও বেশি সময় বাংলা ছবির জগতে পরিচিত এই ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্র ৷ তিনি একাধারে লেখক ও পরিচালক ৷ তাঁর পরিচালনায় এ বার মুক্তি পেতে চলেছে প্রথম ওয়েবসিরিজ ‘ফ্ল্যাটমেট’ (FlatMate)৷ ৩০ জুলাই থেকে আড্ডাটাইমস-এ শুরু হবে স্ট্রিমিং ৷ পরিচিত তরুণ তরুণীর যাপনের কনসেপ্টই বেছে নিয়েছেন তিনি ছবির উপজীব্য হিসেবে ৷

    অভ্রর কথায়, ‘‘ আমার দুই পরিচিত স্বেচ্ছায় বিপরীত লিঙ্গের ফ্ল্যাটবন্ধু চেয়েছিলেন ৷ তরুণীর মনে হয়েছিল, মেয়েরা বেশি ঝগড়া করে ৷ তাই একজন ছেলের সঙ্গে থাকাই শ্রেয়৷ আজ তাঁরা কাপল৷’’

    কিন্তু অভ্রর পরিচালনায় পর্দার ফ্ল্যাটমেটরা কি পরে প্রেমের জুটি হবেন? সেটা জানতে হলে চোখ রাখতে হবে এই ওয়েবসিরিজে ৷ বারো ঘর এক উঠোনের ভাড়াটের বদলে আজকের প্রজন্ম ঝকঝকে ফ্ল্যাটমেট ৷ তারা নিজেদের চাওয়া পাওয়া বুঝে নিতে জানে ৷ জানে, পেশাদারের মতো ছাদ ভাগ করে নিতে ৷

    বাপ্পাদিত্য বন্দ্যোপাধ্যায়ের সহকারী হিসেবে কাজ করে আসা অভ্রর লেখা গল্পে মেদিনীপুর থেকে কলকাতায় আসা রম্য একজন স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান ৷ জলপাইগুড়ির মেয়ে তৃষা মেহন্দিশিল্পী ৷ সেইসঙ্গে বিয়েবাড়িতে ‘সঙ্গীত’ পরিকল্পক ৷ দু’জনেরই ছকভাঙা পেশা ৷ সেই দুনিয়ায় তাঁরা পায়ের নীচে জমি খুঁজছেন ৷ যাত্রাপথে দেখা একে অন্যের সঙ্গে ৷

    জলপাইগুড়ি থেকে কলকাতায় আসা তৃষা একজন যুবককেই চান ফ্ল্যাটমেট হিসেবে ৷ ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেওয়ার পর রীতিমতো সাক্ষাৎকার নেন তিনি ৷ কফিশপে একাধিক তরুণের সঙ্গে কথা বলার পর তাঁর পছন্দ হয় রম্যকেই ৷ অপ্রতিভ এই তরুণকেই তাঁর মনে ধরে ৷ দু’জনে থাকতে শুরু করেন ফ্ল্যাটবন্ধু হিসেবে ৷ ফ্লার্ট, ক্যাজুয়াল সেক্স থেকে আলোকবর্ষ দূরে তাঁদের সম্পর্ক ৷ তাঁদের সম্পর্কের গতিপথ নিয়েই এগোয় এই রমকম ৷ অভ্রর কথায়, ‘‘আমি রিলেশনশিপ ড্রামা ভালবাসি ৷ সন্পর্কের গল্প বলতে ভালবাসি ৷ চরিত্র তৈরি করতে পছন্দ করি ৷’’

    রম্য কি ফ্ল্যাটমেট হয়েই থেকে যাবেন? নাকি তাঁদের সম্পর্ক পরিবর্তিত হবে প্রেমে? সেই চড়াই উতরাইয়ে বড় ভূমিকা নিয়েছে স্ট্যান্ড আপ কমেডি ৷ গল্পের পাশাপাশি চিত্রনাট্যও লিখেছেন অভ্র ৷ স্ট্যান্ড আপ কমেডির অংশে সংলাপ স্বর্ণাভ দে এবং অনিরুদ্ধ বলের ৷ তাঁরা দু’জনেই স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান ৷ রম্যর চরিত্রে অভিনয় করেছেন শ্রমণ চট্টোপাধ্যায় ৷ ‘ডমরু’, ‘বিবাহ ডায়েরিজ’, ‘চলচ্চিত্র সার্কাস’-এর মতো ছবি এবং ‘রক্তকরবী’, ‘খোঁজ’-সহ একাধিক নাটকের উজ্জ্বল মুখ শ্রমণ মুম্বই থেকে এসে এই ছবির কাজ করেছেন ৷

    অন্যদিকে চরিত্রে ঐশ্বর্য সেন বাংলা বিনোদনের দুনিয়ায় পরিচিত মুখ ৷ ‘পটলকুমার গানওয়ালা’, ‘ইচ্ছেনদী’, ‘শুভদৃষ্টি’ ধারাবাহিকের অভিনেত্রী অভিনয় করেছেন হিন্দি ছবি এবং ওয়েবসিরিজেও ৷ তাঁদের পাশাপাশি ‘অহনা’ চরিত্রটিও উল্লেখযোগ্য ৷ সেই ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মধুরিমা ঘোষ ৷ নাট্যকর্মী মধুরিমা কাজ করেছেন অন্য ওয়েবসিরিজেও ৷ গল্পে রম্যর পারফরম্যান্স পরিশীলিত হওয়ার পিছনে মধুরিমার অবদান অনেক ৷ এই ওয়েব সিরিজে ক্যামেরা করেছেন মৃন্ময় মন্ডল ৷ গানে আর আবহ সংগীতে প্রচুর পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন সায়ান – সম্রাট ৷ শীর্ষসঙ্গীত গেয়েছেন তিস্তা চট্টোপাধ্যায় ৷ গজল ও রবীন্দ্রসঙ্গীত গেয়েছেন প্রিয়াঙ্কা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

    পরিচালক অভ্রর কথায়, এই রমকম আদতে নতুন শহরে দুই তরুণ তরুণীর সংগ্রামেরও গল্প ৷ ৬ পর্ব জুড়েই দর্শকদের জন্য অপেক্ষা করে আছে টুইস্ট অ্যান্ড টার্ন ৷ কিন্তু ওয়েবসিরিজে রোম্যান্টিক কমেডি কেন? প্রশ্নের উত্তর দিতে ক্ষণিকও ভাবলেন না অভ্র ৷ তিনি এর আগে লেখক হিসেবে কাজ করেছেন ‘শব্দ জব্দ’ এবং ‘সুফিয়ানা টু’-তে ৷ ‘চোরাবালি’ এবং ‘এলার চার অধ্যায়’ ছবিতেও তিনি সহকারী লেখক ও সহকারী পরিচালক ৷ জানালেন, ‘‘দর্শকের পছন্দ পাল্টেছে ৷ এক বছর ধরে ডার্ক থ্রিলার দেখতে দেখতে তঁরা ক্লান্ত ৷ তাই এ বার তাঁদের জন্য রমকম৷’’ পরিচালক হিসেবে প্রথম ওয়েবসিরিজ নিয়ে আত্মবিশ্বাসী এই তরুণ তুর্কি ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: