Meghana Raj Sarja : শিশুসন্তানের নাম প্রকাশ করলেন প্রয়াত অভিনেতা চিরঞ্জীবি সরজার স্ত্রী অভিনেত্রী মেঘনা

সম্প্রতি জন্মাষ্টমী উপলক্ষে সন্তানের সঙ্গে তাঁর নিজের একটি ছবি শেয়ার করেন মেঘনা

ছেলের নাম প্রকাশ করলেন মেঘনা রাজ সরজা (Meghana Raj Sarja)

  • Share this:

    নয়াদিল্লি : ছেলের নাম প্রকাশ করলেন মেঘনা রাজ সরজা (Meghana Raj Sarja) ৷ তাঁর স্বামী তথা অভিনেতা চিরঞ্জীবি সরজা (Chiranjeevi Raj Sarja) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হওয়ার কিছু মাস পর জন্ম হয় তাঁদের প্রথম সন্তানের ৷ গত বছর ২২ অক্টোবর ভূমিষ্ঠ হওয়া সেই পুত্রসন্তানের নামকরণ করা হয়েছে রায়ান রাজ সরজা ৷

    ছেলের নাম জানানোর প্রতিটি পর্ব বেশ নাটকীয় করেছেন মেঘনা ৷ বৃহস্পতিবার ইনস্টাগ্রামে তিনি একটি ভিডিয়ো শেয়ার করেছিলেন ৷ সেখানে তিনি অনুরাগীদের বলেন, খুব শীঘ্র তিনি ছেলের নাম প্রকাশ করবেন ৷ তার পর সেই টিজারে দেখান হয় শিশুকে এখন কী কী নামে ডাকা হয় ৷ আর পাঁচজন শিশুর মতো তারও অনেকগুলো আদরের ডাকনাম ৷ তাকে ডাকা হয় ‘সিম্বা’, ‘প্রিন্স’, ‘জুনিয়র চিরু’, ‘জুনিয়র’, ‘চিন্টু’-সহ আরও অনেক নামে ৷

    সাম্প্রতিক ইনস্টাগ্রাম পোস্টে মেঘনা ১ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছেন ৷ ভিডিয়োর প্রথমে একটি লাইন লেখা আছে, ‘স্বর্গের দ্বার এ বার উন্মোচিত’ ৷ তার পর দেখানো হয়েছে চিরঞ্জীবি ও মেঘনার বিয়ের কিছু দৃশ্য ৷ এর পর আসে তাঁদের সন্তানের একাধিক ছবির মন্তাজ ৷ সবার শেষে প্রকাশ করা হয়, শিশুর নাম ‘রায়ান রাজ সরজা’ ৷

    এর পর ব্যাখ্যা করা হয়েছে নামের অর্থও ৷ একটি লাইনে লেখা হয়েছে ‘মনে করা হয়, সংস্কৃত ভাষায় রায়ান শব্দের অর্থ ছোট রাজকুমার ৷ অন্যদিকে আরবিক ভাষায় এর অর্থ স্বর্গের দ্বার ৷’’

    রায়ানের বাবা চিরঞ্জীবি মাত্র ৩৯ বছর বয়সে কার্ডিয়াক অ্যারেস্টের কারণে প্রয়াত হন ২০২০ সালের ৭ জুন ৷ সে সময় তাঁর স্ত্রী, ৩১ বছর বয়সি অভিনেত্রী মেঘনা ছিলেন ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ৷

    মেঘনা মাঝে মাঝেই চিরঞ্জীবি ও রায়ানের ছবি সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করেন ৷ সম্প্রতি জন্মাষ্টমী উপলক্ষে সন্তানের সঙ্গে তাঁর নিজের একটি ছবি শেয়ার করেন মেঘনা ৷ লাল ধুতি এবং নেকলেস পরিয়ে ছেলেকে ছোট্ট কৃষ্ণের মতো সাজিয়েছিলেন তিনি ৷ ফেব্রুয়ারি মাসের গোড়ায় চিরঞ্জীবির শেষ ছবি ‘রজমারথান্ডা’-র ট্রেলর প্রকাশ করেন মেঘনা ৷ সঙ্গে ছিল ছোট্ট রায়ান ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: