সেক্স সিম্বল! নষ্ট মেয়ে ! দুশ্চরিত্রা ! সহ্যের সীমা ছাড়াল, মুখ খুললেন মল্লিকা শেরাওয়াত!

photo source collected

মল্লিকা খুশি হয়েছেন যে এখন অন্তত দর্শকদের মনোভাব কিছুটা হলেও পরিবর্তিত হয়েছে।

  • Share this:

#মুম্বই: মার্ডার (Murder) ছবিটি যখন মুক্তি পায় তখনও বোধ হয় ভারতীয় দর্শক এতটা সাবালক হননি, যতটা এখন হয়েছেন। পর্দায় খোলামেলা দৃশ্য বা অর্ধনগ্ন নায়িকাকে দেখতে খুব একটা অভ্যস্ত ছিলেন না দর্শক। সেগুলো দেখানো হলেও সেই ছবিকে দ্বিতীয় শ্রেণীর বলে দাগিয়ে দেওয়া হত। এখন সময় পাল্টেছে। রমরম করে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে চলছে প্রাপ্তবয়স্ক কন্টেন্ট। তাই দর্শক এখন বোঝেন কোন দৃশ্য জোর করে গুঁজে দেওয়া হয়েছে আর কোনটা চিত্রনাট্যের প্রয়োজনে হয়েছে। তবে মার্ডার ছবি সফল হলেও তার জন্য বড় মূল্য চোকাতে হয়েছিল নায়িকা মল্লিকা শেরাওয়াতকে (Mallika Sherawat)। বোল্ড দৃশ্য করার জন্য তাঁকে দুশ্চরিত্রা হওয়ার অপবাদ শুনতে হয়েছিল। মল্লিকা খুশি হয়েছেন যে এখন অন্তত দর্শকদের মনোভাব কিছুটা হলেও পরিবর্তিত হয়েছে।

২০০৩ সালে খোয়াইশ (Khwahish) ছবি দিয়ে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেন মল্লিকা। পরের বছরেই মুক্তি পায় মার্ডার। দু'টি ছবিতেই একাধিক সাহসী দৃশ্য থাকায় বলিউডে মল্লিকার পরিচিতি হয়ে যায় একজন 'সেক্স সিম্বল' হিসাবে।

সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মল্লিকা বলেন, "২০০৪ সালে যখন এই ছবি করি তখন রীতিমতো আমার চরিত্র হনন করা হয়েছিল। তখন সাহসী দৃশ্যে কোনও মহিলা অভিনয় করলেই ধরে নেওয়া হত তাঁর চরিত্র খারাপ। এখন এই সব দৃশ্য সিনেমাতে খুব জলভাত ব্যাপার হয়ে গিয়েছে। দর্শকদের দৃষ্টিভঙ্গী ও সিনেমা দুটোই পাল্টেছে অনেকটাই।"

মল্লিকা জানান যে ৫০ ও ৬০-এর দশকের সিনেমা অনেক বেশি ভালো লাগে তাঁর। কারণ সেই সময়কার সিনেমায় মহিলাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা হত। মহিলাদের জন্য এখনও যে কোনও বিশেষ চরিত্র রাখা হয় না তা নয়, কিন্তু সিনেমার সৌন্দর্য অনেকাংশেই নষ্ট হয়ে গিয়েছে বলে মনে করেন তিনি। "একটা মনের মতো চরিত্র পেতে গিয়ে এক যুগ অপেক্ষা করেছি", বলেন নায়িকা।

মার্ডার ছবির পরিচালক ছিলেন অনুরাগ বসু (Anurag Basu)। সিমরন নামক এক গৃহবধূর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন মল্লিকা। এর পর ওয়েলকাম (Welcome), পেয়ার কা সাইড এফেক্ট (Pyar Ka side effect), ডবল ধমাল (Double Dhamal) ইত্যাদি ছবিতেও কাজ করেছেন। ২০১৯ সালে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে ডেবিউ হয় তাঁর।

Published by:Piya Banerjee
First published: