corona virus btn
corona virus btn
Loading

'ফের রামমন্দির ভাঙতে এসেছে বাবর', শিবসেনার উদ্ধব ঠাকরেকে মুঘল সম্রাটের সঙ্গে তুলনা কঙ্গনার

'ফের রামমন্দির ভাঙতে এসেছে বাবর', শিবসেনার উদ্ধব ঠাকরেকে মুঘল সম্রাটের সঙ্গে তুলনা কঙ্গনার

কঙ্গনার এই মন্তব্যের পর ফের একবার নড়েচড়ে বসে শিবসেনা। এখন দেখার এই তরজা কতদূর এগোয়।

  • Share this:

#মুম্বই: কঙ্গনা মুখ খুলেছিলেন সুশান্তের মৃত্যু নিয়ে। অভিযোগ করেছিলেন বলিউডের তাবড় তাবড় পরিচালক প্রযোজকদের বিরুদ্ধে। নেপোটিজম, বলিউডের ড্রাগচক্রের মতো বহু বিষয় নিয়ে তিনি সরব হয়েছেন। এর পর থেকেই কঙ্গনা প্রাণের হুমকি পেতে শুরু করেন। ঘটনার সূত্রপাত দিনয়কয়েক আগে। বলিউডে নেপোটিজম এবং মাদক চক্র নিয়ে সরব কঙ্গনা মুম্বইকে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের সঙ্গে তুলনা করেন। মুম্বইবাসীর ভাবাবেগে আঘাত করে এই মন্তব্য, এই যুক্তিতে প্রতিবাদে মুখর হয় শিবসেনা। শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত কঙ্গনাকে 'হারামখোর' ও বলেন। এই বিতণ্ডায় স্পষ্টই দু'ভাগ হয়ে যায় বলিউড। অনেকেই বলতে থাকেন, কঙ্গনা যেমন মুম্বইকে কদর্য আক্রমণ করছেন, তেমনই সঞ্জয়ের এই মন্তব্যও অত্যন্ত কুৎসিত।মুম্বইয়ের দিকে আঙুল তুলতে সঞ্জয় সপাটে বলেন, কঙ্গনার আর মুম্বই আসার দরকার নেই। দমবার পাত্রী নন কঙ্গনা। উত্তর ফিরিয়ে তিনিও সরাসরি বলেন, "আমার বাকস্বাধীনতা রয়েছে। যে কোনও প্রান্তে যাওয়ার অধিকারও রয়েছে।" কঙ্গনা একই সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি ৯ সেপ্টেম্বর মুম্বইয়ে পা রাখতে চলেছেন। পাশাপাশি সঞ্জয়কে ক্ষমা চাওয়ার কথা বলা হলে, সঞ্জয় বলেন, আগে মহারাষ্ট্রবাসীর কাছে ক্ষমা চাক কঙ্গনা।

এর পরই শিবসেনার উদ্ধব ঠাকরের নেতৃত্বাধীন মহারাষ্ট্র সরকার  কঙ্গনা রানাওয়াতের বিরুদ্ধে একের পর এক পদক্ষেপ নিতে শুরু করে দিয়েছে। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনায় কঙ্গনা রানাওয়াত মুখ খোলার পর থেকেই শিবসেনার সঙ্গে অভিনেত্রীর একাধিক ইস্যুতে সংঘাত শুরু হয়। এরপরই শিবসেনা সরকার পর পর পদক্ষেপ নিতে থাকে।কঙ্গনা রানাওয়াতের সঙ্গে মহারাষ্ট্রের মহাবিকাশ আঘাড়ি সরকারের সংঘাত তুঙ্গে। আর তার জেরেই এবার মাদক যোগ নিয়ে কঙ্গনা রানাওয়াতের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে উদ্ধব সরকার। বিষয়টি নিয়ে ময়দানে নামে মুম্বই পুলিশ। যে মুম্বই পুলিশের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছিলেন কঙ্গনা!মূলত, কঙ্গনার প্রাক্তন ,বয়ফ্রেন্ড অধ্যায়ন সুমন একটি সাক্ষাৎকারে দাবি করেন যে কঙ্গনার মাদক যোগ ছিল। বহু বছর আগের সেই সাক্ষাৎকার ঘিরে এদিন মহারাষ্ট্রের বিধানসভায় দুই বিধায়ক কঙ্গনার বিরুদ্ধে তদন্তের দাবি তোলেন। আর সেই দাবিতে সম্মতি দেন উদ্ধব ঠাকরে।

এদিকে, কঙ্গনা রানাওয়াতের মুম্বই অফিস ঘিরে বিএমসি ইতিমধ্যেই পদক্ষেপ নিয়েছে। সেখানে কাজ বন্ধের নোটিস বিএমসি থেকে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। মুম্বইকে 'মিনি পাকিস্তান' বলার পর শিবসেনা সরকার এমন প্রতিশোধমূলক বন্দোবস্ত করবে বলে আগেভাগেই আঁচ করেন কঙ্গনা। আর তারপরই তিনি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে লেখেন, মুম্বইয়ে অফিস গড়ার স্বপ্ন এবার ভেঙে দেওয়া হবে। সব মিলিয়ে সুশান্ত সিং মামলা থেকে ক্রমেই মহারাষ্ট্রে ফোকাস ঘুরতে শুরু করেছে কঙ্গনা বনাম শিবসেনার যুদ্ধের দিকে। ফের একবার কঙ্গনার মুম্বইয়ের অফিসে শিবসেনা সরকারের লোকেরা আসে। কঙ্গনার মুম্বইয়ের অফিস বেআইনি বলা হয়। ঝোলানো হয় নোটিস। নতুন করে বাংলোয় কাজ করাচ্ছিলেন কঙ্গনা। যা বন্ধ করে দেওয়া হয়। ভেঙে ফেলার কাজ শুরু হয় মুম্বইয়ের অফিস। এর পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন অভিনেত্রী। তিনি ট্যুইটারে লেখেন, " মণিকার্ণিকা ছবির আগেই অযোধ্যার ঘোষণা হয়েছিল। আমার এই বাড়ি আমার জন্য একটা ইমারত নয়, রাম মন্দিরের সমান। আজ এখানে বাবর সম্রাট এসেছিল। ইতিহাস আর একবার নিজের পুরনো ঘটনা সামনে আনবে। বাবর যদি রাম মন্দির ভাঙে, তাহলে আবার ওখানেই মন্দির হবে। যেভাবে অযোধ্যায় রাম মন্দির হয়েছে ঠিক সেভাবেই। জয় শ্রীরাম।" কঙ্গনার এই মন্তব্যের পর ফের একবার নড়েচড়ে বসে শিবসেনা। এখন দেখার এই তরজা কতদূর এগোয়।

Published by: Piya Banerjee
First published: September 9, 2020, 12:50 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर