Home /News /entertainment /
আমি প্রথমে বুঝতেই পারিনি, সুজয় আমাকে কহানি ২ অফার করছে : সিনেম্যাটোগ্রাফার তপন তুষার বসু

আমি প্রথমে বুঝতেই পারিনি, সুজয় আমাকে কহানি ২ অফার করছে : সিনেম্যাটোগ্রাফার তপন তুষার বসু

Face Book

Face Book

সেন্ট জেভিয়ার্স থেকে এফটিআইআই, তারপক বিজ্ঞাপন জগতে একাধিপত্য ৷ সুজয় ঘোষের ‘কহানি ২’ দিয়েই বলিউডে পা !

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: সেন্ট জেভিয়ার্স থেকে এফটিআইআই, তারপর বিজ্ঞাপন জগতে একাধিপত্য ৷ সুজয় ঘোষের ‘কহানি ২’ দিয়েই বলিউডে পা ! কলকাতার ছেলে সিনেম্যাটোগ্রাফার তপন তুষার বসুর সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে উঠে এল কহানি ২-এর অজানা গল্প ৷ জানা গেল তপন তুষার বসুর ক্যামেরা কাঁধে জার্নির নানা কথা !

    ১) কাহিনি ২-তে আপনি আরেকটা বং কানেকশন ৷ সুজয়ের কহানিতে আপনি ঢুকে পড়লেন কীভাবে?

    তপন তুষার বসু: আমি ভাগ্য ও কার্মার ওপর খুবই বিশ্বাস করি ৷ যেমন প্রত্যেকটি সিনেমার সঙ্গে ভাগ্য জুড়ে থাকে, তেমনি সেই সিনেমায় কে কাজ করবে, কে করবে না, সেটাও আগে থেকে লেখা থাকে ৷ বিজ্ঞাপনের কাজ করার সময় থেকেই আমার কাছে প্রচুর সিনেমার অফার আসত ৷ ২০১৩ সালে সুজয় ঘোষ আমাকে একটা ছবির স্ক্রিপ্ট পাঠিয়েছিল ৷ যা কিনা সুজয়ের প্রযোজনা করার কথা ছিল ৷ আমি সুজয়কে জানিয়েছিলাম, এই স্ক্রিপ্ট নয় বরং আমি কহানি বা কামিনের মতো ছবি দিয়েই সিনেমায় কাজ শুরু করতে ইচ্ছুক ৷ তারপর আমার ২০১৫তে ইউরোপ যাওয়ার কথা হয়, কিন্তু পরে তা বাতিল হয়ে যায় ৷ ঠিক এই সময়ই সুজয় আমাকে ফোন করে, আর দেখা করতে বলে ৷ আমি কলকাতায় যাই সুজয়ের সঙ্গে দেখা করতে ৷ তখন আমাকে সুজয় একটা ছবির স্ক্রিপ্ট শোনায় ৷ আমি তখনও বুঝতে পারিনি, সুজয় আসলে আমাকে কহানি ২- ছবির অফার করছে ৷ এটাকেই তো বলে ভাগ্য !

    ২) জেভিয়ার্স থেকে এফটিআই, বিজ্ঞাপন জগত এবার ফিচার ফিল্ম ৷ জার্নিটা কেমন?

    তপন তুষার বসু: সত্যি কথা বলতে গেলে, এই দুটো ইনস্টিটিইশনে ভর্তির সময় আমার নাম ওয়েটিং লিস্টে ছিল ! আমি সত্যিই খুব ভাগ্যবান ৷ প্রচুর গুণীজনের সঙ্গ পেয়েছি ৷ FTII থেকে পাশ করে বের হওয়ার পর আমি সিনেম্যাটোগ্রাফার তসাদ্দুক হুসেনের সঙ্গে কাজ করি ৷ যিনি আমার মেন্টার ও বন্ধু ৷ হুসেনের সঙ্গে প্রচুর বিজ্ঞাপন শ্যুট করেছি ৷ এমনকী, ‘কমিনে’ ছবিতে আমি অ্যাসিস্টও করেছিলাম ৷ ২০১২ থেকে আমি স্বাধীনভাবে কাজ করছি ৷ প্রায় ৩০০-এর বেশি বিজ্ঞাপন শ্যুট করেছি ৷

    আমি প্রচুর ভালো, গুণী মানুষের সঙ্গ পেয়েছি ৷ তাঁদের থেকে অনেক কিছু শিখেছি ৷ তবে কহানি ২- দিয়ে আমার নতুন যাত্রা শুরু হল ৷ আর এই যাত্রাটা বেশ রোমাঞ্চকর !

    3. কোনও বিশেষ মানুষের নাম নিতে চান, যারা আপনাকে কেরিয়ারের শুরুতে সাহায্য করেছেন ?

    তপন তুষার বসু: নিশ্চয়ই ৷ এটা ভাবলে খুব অবাক লাগে ৷ শুরুর দিকে আমার কাছে কেউ-ই শো-রিল চায়নি ৷ আইপিএল ক্যাম্পনেই আমি প্রথম স্বাধীনভাবে কাজ করি ৷ এর পরিচালক ছিলেন বিবেক কক্কর ৷ তার আগে আমার কাছে কোনও শো-রিল ছিল না ৷ এই ক্যাম্পেনটা অনেকগুলো পুরস্কার জিতে নিয়েছিল ৷ এরপর পরিচালক অভিনয় দেও-র সঙ্গে নাইকি প্যারালাল জার্নি শ্যুট করি ৷ তারপর পরিচালক অমিত শর্মার সঙ্গে লাইফবয় গোনডাপা৷ এই কর্মাসিয়ালটা প্রচুর পুরস্কার পায় ৷ এমনকী, কান উৎসবে সিনেম্যাটোগ্রাফি বিভাগে ব্রোঞ্জ স্পাইক ও সিলভার অ্যাবে পুরস্কার পেয়েছিলাম ৷ সিনেম্যাটোগ্রাফার রবি কে চন্দন আমার কাজের প্রশংসা করে একটা আর্টিকলে লিখেওছিলেন ৷ আমি খুবই ভাগ্যবান ইন্ডাস্ট্রির সিনিয়র সিনেম্যাটোগ্রাফাররা নয়, আমার সমকালীন সিনেম্যাটোগ্রাফারাও আমার কাজের প্রশংসা করে ৷ কহানি ২ মুক্তি পাওয়ার পর আমি এক স্পেশাল স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করেছিলাম ৷ আমি খুব খুশি এই স্ক্রিনিংয়ে আমার সিনিয়র ও সমকালীন সিনেম্যাটোগ্রাফার বন্ধুরা এসেছিলেন ৷

    ৪) থ্রিলার ছবি দিয়ে বলিউডে পা ৷ প্রথম ছবি হিসেবে থ্রিলার বাছার কারণ?

    তপন তুষার বসু: আমার করা কাজ যদি আপনি দেখেন, তাহলে বুঝতে পারবেন আমি সব ধরণের কাজ করি ৷ কিন্তু কেন জানি থ্রিলার আমাকে বেশি আকর্ষণ করে ৷ থ্রিলার আমকে সুযোগ দেয়, একটা নির্দিষ্ট মুডকে ছবির মধ্যে এগিয়ে নিয়ে যেতে ৷ ন্যারেটিভকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করে৷ আসলে হয়তো থ্রিলারের ডার্ক ব্যাপারটাই আমাকে বেশি টানে ৷ কোনও দিন যদি মনে হয়, রোমান্টিক ফিল করছি, তখন রোমান্টিক ড্রামাতে কাজ করব ৷

    ৫) কহানিতে বিদ্যাকে শ্যুট করতে গিয়ে কতটা বেশি বেগ পেতে হয়েছে ?

    তপন তুষার বসু: তেমন কিছুই না ৷ বরং বিদ্যা বালন আমার কাজটাকে আরও সহজ করে তুলেছিল ৷ কখনও অনুভবই করিনি, বিদ্যার সঙ্গে প্রথমবার কাজ করছি ৷ বিদ্যা এবং অর্জুন রামপালের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাটা দারুণ !

    ৫) পরিচালক হিসেবে সুজয় ঘোষ কেমন? কতটা স্বাধীনতা পেয়েছিলেন?

    তপন তুষার বসু: অসাধারণ ৷ পরিচালক হিসেবে রেট দেওয়ার উর্ধ্বে সুজয় ৷ এত এনার্জেটিক পরিচালক আগে দেখেনি ৷ প্রচুর স্বাধীনতা দিয়েছিল কাজ করার ক্ষেত্রে ৷

    ৬) ফিউচার প্রোজেক্ট?

    তপন তুষার বসু: ফের বিজ্ঞাপন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছি ৷ তবে একটা প্রোজেক্টের ভাবনা চলছে ৷ এখনই সেটা নিয়ে বলার অবস্থাতে নেই ৷

    ৮) অভিক মুখোপাধ্যায়, সুদীপ চট্টোপাধ্যায়, তপন তুষার বসু, নিজেকে কোথায় রাখবেন?

    তপন তুষার বসু: দু’জনেই আমার শিক্ষক ৷ অভিকদা সেন্ট জেভিয়ার্সে এবং সুদীপদা এফটিআইআইতে ৷ কহানি মুক্তির পর সুদীপদাকে তো ছবি দেখতেও ডেকেছিলাম ৷

    ৯) সুজয় ঘোষের কহানি ২ আপনার জন্য পারফেক্ট ব্রেক? কী মনে হয় !

    তপন তুষার বসু: একদম ! আমি তো আগেই বললাম কহানি ২ আমার কাছে স্বপ্নপূরণ !

    ১০) বিজ্ঞাপন হোক বা সিনেমা সিনেম্যাটোগ্রাফারদের খ্যাতি ও স্বাধীনতা কতটা?

    তপন তুষার বসু: এটা একেবারেই নির্ভর করছে, কার সঙ্গে, কোন পরিবেশে আপনি কাজ করছেন ৷ প্রত্যেক পরিচালকের পছন্দের মতো সিনেম্যাটোগ্রাফার থাকে ৷ আর উল্টোটাও হয় ৷ আর খ্যাতির ব্যাপারে বলতে গেলে, ধীরে ধীরে পরিষ্কার হয়েই যায় ভালো সিনেম্যাটোগ্রাফিটা, একটা স্ক্রিপ্টকে কতটা ভালো করে তুলতে পারে ৷ এ ক্ষেত্রেও উল্টোটাও ঘটতে পারে ৷

    First published:

    Tags: Bollywood, Cinematographer, Kahani 2, Sujoy ghosh, Tapan Tushar Basu

    পরবর্তী খবর