corona virus btn
corona virus btn
Loading

নওয়াজের সঙ্গে যৌনদৃশ্য ইন্টারনেটে ভাইরাল, মুখ খুললেন বঙ্গতনয়া ঈশিকা দে

নওয়াজের সঙ্গে যৌনদৃশ্য ইন্টারনেটে ভাইরাল, মুখ খুললেন বঙ্গতনয়া ঈশিকা দে
Photo : Netflix

সকাল ৭টা ৷ ফোন করতেই, একবারেই ফোন ধরলেন ঈশিকা ৷ এক গ্লাস জল খাওয়ার অনুমতি নিয়ে কথা শুরু হতেই, ঈশিকার গলার আওয়াজে প্রথম থেকেই অদ্ভুত এক কনফিডেন্স, বেপরোয়া ভাব !

  • Share this:

#কলকাতা: সকাল ৭টা ৷ ফোন করতেই, একবারেই ফোন ধরলেন ঈশিকা ৷ এক গ্লাস জল খাওয়ার অনুমতি নিয়ে কথা শুরু হতেই, ঈশিকার গলার আওয়াজে প্রথম থেকেই অদ্ভুত এক কনফিডেন্স, বেপরোয়া ভাব ! যেন, সব প্রশ্ন তাঁর জানা, সব উত্তর একেবারে রেডি ৷ দ্বিধা নেই ৷ স্পষ্ট ও সাবলীল ৷ হয়তো মুম্বইয়ে ৯ মাসের স্ট্রাগল আর ‘সেক্রেড গেম’-এর যৌন দৃশ্য ‘ভাইরাল’ হওয়াটা ভিতর থেকে সব জড়তা কাটিয়ে দিয়েছে ঈশিকার ৷ তাই তো, ৭ নম্বর ইন্টারভিউ দিতে দিয়ে, উত্তরের মাপজোক একেবারেই হাতের মুঠোয় ৷ তবুও ১৩ টি বাংলা ছবি, যার মধ্যে ‘চৌকাঠ’, ‘ক্রাইম’, ‘ঈগলের চোখ’, ‘প্রলয়’-এর পরও একটা ‘ভাইরাল’ দৃশ্যই লাগল লাইমলাইটে আসতে ঈশিকার? ফোনের ওপারে ঈশিকা হেসে ফেললেন...

36697036_1687295888053684_3979291468941492224_n

ঈশিকার লাইমলাইট, ঈশিকার আক্ষেপ...

‘দেখুন, সেক্রেড গেম আমাকে যে লাইমলাইট এনে দিয়েছে, তা নিয়ে সত্যিই আমি খুশি ৷ তবে সঙ্গে একটু আক্ষেপও রয়েছে ৷ একজন ট্যালেন্টেড অভিনেত্রী হয়েও আমি আমার জায়গা অর্থাৎ বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে সেভাবে সুযোগ পায়নি ৷ আমাকে সেভাবে ব্যবহারই করা হয়নি ৷ এই খারাপ লাগার জায়গাটা তো রয়েইছে৷ সঠিক সুযোগ পেলে হয়তো অভিনেতা হিসেবে মাটি খুঁজে পাওয়াটা একটু সহজ হতো ৷ আমার মনে হয়, আমাকে ব্যবহার করা যেতে পারত ৷ তবে হ্যাঁ, সেক্রেড গেমের পর ছবিটা একটু বদলেছে ৷ মুম্বইতে আমি প্রচুর কাজের অফার পাচ্ছি ৷ কিন্তু সেক্রেড গেম আমার মুম্বইয়ে করা প্রথম কাজ নয় ৷ অনুষ্কা শর্মার পরী ছবিতেও অভিনয় করেছিলাম ৷ তবে আমার দৃশ্যটা এডিটের টেবিলে কেটে দেওয়া হয় ! তবে জনপ্রিয়তাটা সেক্রেড গেম-ই দিয়েছে ৷’

নান্দিকারের সঙ্গে অভিনয় করতেন ঈশিকা ৷ অভিনেতা হওয়ার ইচ্ছেটা প্রথম থেকেই ৷ তবে পরিবারের লোকজন, আত্মীয়সজ্জনের রক্তচক্ষু ৷ মেয়ে হবে অভিনেতা? এমনকী, এই নিয়ে বাকবিতন্ডাও কম ছিল না ৷ বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছিল ঈশিকার সঙ্গে ৷ তবে ‘কনফিডেন্ট’ ঈশিকা জানতেন, অভিনয়টা তিনি পারেন, পারবেন ৷ আর সেই সাহসেই মুম্বইয়ে পাড়ি দেওয়া !

Photo : Netflix Photo : Netflix

কিন্তু, যৌনদৃশ্যে ‘ভাইরাল’ ! লোকে তো গুগল সার্চও করছেন..

উত্তর দিতে কিছুটা সময় নিলেন ঈশিকা, তারপর অনর্গল...

‘আসলে, ব্যাপারটা যে ভাইরাল হবে, তা আগে থেকে জানা ছিল না ৷ এমনকী, আমি জানতামই না দৃশ্যটা এতটা বোল্ড হবে ৷ তবে হ্যাঁ, এই ধরণের দৃশ্য ভাইরাল-ই হয় ৷ এই ‘ভাইরাল’ শব্দটাকে মাথা পেতে গ্রহণ করতে রাজি ৷ তবে একেবারেই তা পজেটিভ সেন্সে ৷ আসলে, আমাদের সমাজে ‘সেক্স’ ব্যাপারটা তো এখনও ট্যাবু ৷ মানে অনেকটা ঘোমটার তলায় থাকা...এটা যতদিন না যাচ্ছে, ততদিন ‘ভাইরাল’ মানেটা ভুলভাবেই ব্যবহার হবে ৷ তবে আশা করি, এই মানসিকতা বদলে যাবে, কারণ অনেকেই এখন নানারকম কাজ করছে ৷ তবে সত্যিই বলতে কি, আমি কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনও ধরণের বিদ্রুপ পায়নি ৷ কোনও সমালোচনাও হয়নি দৃশ্যটা নিয়ে ৷ আমি কিন্তু শুধু প্রশংসাই পেয়েছি ৷

কেরিয়ারের শুরুতেই ট্যাগ হয়ে গেলে ?

দেখুন, আমি কারও মানসিকতা বদলে দিতে পারব না ৷ আমাকে একটু বেছে নেওয়ার ক্ষমতা তৈরি করতে হবে৷ আমি খুব নতুন এই ইন্ডাস্ট্রিতে ৷ আগে থেকে হয়তো বুঝব না, কোনটা সঠিক নির্বাচন, কোনটা নয় ৷ হ্যাঁ, তবে ব্র্যান্ড, পরিচালক দেখে সিদ্ধান্ত নিতে হবে ৷ তাহলেই হয়তো ট্যাগ হওয়া থেকে বিরত থাকতে পারব ৷ এই যেমন ‘সেক্রেড গেম’-এর অডিশনে আমার অভিনয় দারুণ প্রশংসা পায় ৷ আমাকে অন্য আরেকটি চরিত্রের জন্যও বলা হয়েছিল ৷ তবে সেই চরিত্রটায় একটু পুরুষালি লুক দরকার ছিল ৷ আমি তা একেবারেই নই ৷ তবে আসল উত্তেজনাটা শুরু হয়, শ্যুটিং শুরুর পর ৷ অনুরাগ স্যার (অনুরাগ কাশ্যপ) আমার পারফরম্যান্স দেখে প্রচণ্ড খুশি হয়েছিল ৷ শ্যুটের পর আমাকে জড়িয়ে ধরেছিল ৷ মুকেশ ছাবড়াকে ফোন করে আমার প্রশংসা করেছিল ৷ আমি নিজেই ভাবছিলাম, আমি কি সত্যিই এত ভালো করেছি ৷ অনুরাগ স্যার থেকে নওয়াজ সবাই প্রশংসা করছিল ৷ এই প্রশংসাই গুলো ট্যাগ হয়ে থাক বরং ৷ ’

নওয়াজের মতো বড়মাপের অভিনেতার সঙ্গে ‘যৌনদৃশ্য’ অভিনয় ৷ ভয় লাগেনি ?

একদমই নয়, নওয়াজ স্যার খুবই ডাউন টু আর্থ একজন মানুষ ৷ আমাকে বুঝতেই দেননি, আমি নিউকমার৷ নিজে হাতে কোল্ডড্রিঙ্ক এগিয়ে দিচ্ছেন, ডায়লগ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে ৷ হয়তো এভাবে অজান্তেই একটা কমফোর্ট জোন তৈরি হয়ে যাওয়াতে দৃশ্য শ্যুটে কোনও অসুবিধাই হয়নি !

আর বাড়ির লোকের রিয়্যাকশন ?

‘সেক্রেড গেম’-এর পর একমাত্র বাবার সঙ্গে আমার কথা হয়নি ৷ এমনকী, আমি বাবাকে ফেসবুক থেকেও ব্লক করেছি ৷ তবে হ্যাঁ, মায়ের মিশ্র প্রতিক্রিয়া ৷ মা শুধু চিহ্নিত পাড়ার লোককে কী ভাবছে তা নিয়ে ৷ তবে আমি কিন্তু আমার বন্ধু-বান্ধব সবার থেকেই দারুণ প্রশংসা পেয়েছি ৷ এমনকী, কলকাতায় থাকা আমার কিছু অভিনেতা বন্ধুরাও আমাকে দেখে মুম্বই আসার কথা ভাবছে ৷ আমি কাউকে অনুপ্রাণিত করতে পারছি ৷ এটা কি কম পাওয়া?

37267960_1704289056354367_5994784548527800320_n

‘সেক্রেড গেম’ থেকে পাওয়া লাইমলাইট নিয়েই এখন বড্ড ব্যস্ত হাওড়ার মেয়ে ঈশিকা দে ৷ একের পর এক ওয়েব সিরিজের অফার শুধু নয়, পরের ছবিতে সইফ আলি খানের সঙ্গেও অভিনয় করতে চলেছেন তিনি ৷ নিজেকে গ্রুম করছেন ৷ আর লক্ষ্য রাধিকা আপ্টে, নন্দিতা দাস ও কঙ্কনা সেনশর্মার পরেই নিজের নামটা দেখতে পারার ৷ আর এরই মাঝে তিনজন রুমমেট, বাড়ি থেকে দূরে একলা জীবন-যাপন ও মুম্বই শহর ৷ ঈশিকা লিখে চলেছেন বাসন্তী দেবী কলেজের এক ছাত্রীর মুম্বই পাড়ির গল্প ! যা কিনা পরে হয়তো ফের ভাইরাল হয়ে পড়বে ....

First published: July 19, 2018, 4:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर