চার চারটি বিয়ে করেছেন কবীর বেদী, প্রথম স্ত্রী-পূজা বেদীর মা বিয়ের আগেই সন্তান সম্ভবা

চার চারটি বিয়ে করেছেন কবীর বেদী, প্রথম স্ত্রী-পূজা বেদীর মা বিয়ের আগেই সন্তান সম্ভবা
কবীর বেদী ও তাঁর প্রথম স্ত্রী প্রতিমা বেদী ৷ ছবি সংগৃহীত ৷

বর্ণময় জীবন কবীর বেদীর

  • Share this:

#মুম্বই: আজ কবীর বেদীর জন্মদিন, রইল আমাদের শুভ কামনাও ৷ ৭৪ বছর বয়সী এই বলিউড অবিনেতার জীবন বর্ণময় ৷ আজকের দিনেই অর্থাৎ ১৯৪৬ সালের ১৬ জানুয়ারি অভিভক্ত লাহোরে জন্মেছিলেন ৷ দেশ ভাগের পরে মুম্বইয়ে এসে মডেলিং ও অভিনয় জগতে পা রেখেছিলেন কবীর বেদী ৷ তাঁর অত্যন্ত দমদার আওয়াজের জন্য তাজমহল ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছিলেন ৷ তাংর কেরিয়ারে বেশ কিছু ছবি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের ৷ তবে কবীর বেদী তাঁর পেশাগত জীবনের থেকে ব্যক্তিগত জীবনের জন্য বেশি খ্যাতি পেয়েছেন ৷

প্রতিমা গুপ্ত বেদী ৷ সংগৃহীত ছবি ৷ প্রতিমা গুপ্ত বেদী ৷ সংগৃহীত ছবি ৷

তাঁর প্রথম বিয়ে আনন্দ-ফাননে হয়েছিল ৷ একটি সংবাদ পত্রের সূত্রে জানা গিয়েছে তাঁর পাকাদেখা অম্বা সান্যালের সঙ্গে হয়েছিল কিন্তু সেই সময়ে তিনি লিভ-ইন রিলেশনে ছিলেন ১৯ বছরের এক মডেল প্রতিমা গুপ্তর সঙ্গে ৷ প্রতিমা গুপ্ত কবীর বেদীর সঙ্গে লিভ-ইনে থাকতে থাকতেই সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়েছিলেন ৷ বাধ্য হয়েই অম্বা গুপ্তর সঙ্গে পাকাকথা হওয়ার পরেও বিয়ে ভেঙে দেন ৷ প্রতিমা গুপ্তর সঙ্গে বিয়ের পরেই তাঁদের সন্তান পূজা বেদী জন্ম নিয়েছিল ৷

সূত্রের খবর পূজা বেদীর ৮ মাস বয়সে ৷ প্রতিমা গুপ্ত বেদী অর্থাৎ কবীর বেদীর প্রথম স্ত্রী প্রতিবেশী এক জার্মান যুবকের প্রেমে পড়েছিলেন ৷ এরপরেই নানান সাসংসারিক টানাপোড়েন ফলসরূপ বিয়ের ৫ বছরের মধ্যেই প্রতিমা গুপ্ত বেদী ও কবীর বেদীর ছাড়াছাড়ি হয়েগিয়েছিল ৷ মডেল হওয়ার পাশাপাশি প্রতিমা বেদী একজন ক্লাসিক্যাল নৃত্যশিল্পীও বটে ৷ পরবর্তী কালে তিনি সংসার ত্যাগ করে সন্ন্যাস নিয়েছিলেন ৷ তিনি কৈলাশ মাবন সরোবরে গিয়েছিলেন ৷ সেখানেই ভূমিধসে মৃত হয়েছিলেন তিনি ৷ ১৯৭৪ সালে প্রতিমার নুড ছবি একটি পত্রিকায় বেরিয়েছিল ৷

প্রতিমা গুপ্ত বেদী ৷ সংগৃহীত ছবি ৷ প্রতিমা গুপ্ত বেদী ৷ সংগৃহীত ছবি ৷

বাজারে টিকে থাকার জন্য পত্রিকা কর্তৃপক্ষ এমন এক মডেল খুঁজছিলেন যাঁর বোল্ড ছবি তোলপাড় করবে সবদিক ৷ যিনি নুড হয়ে দৌড়ে দৌড়ে ছবি তুলবেন ৷ সেই প্রস্তাবে প্রতিমা রাজিও হয়ে গিয়েছিলেন ৷ মুম্বই বিচে প্রতিমা নুড হয়ে দৌড়েও ছিলেন ৷

First published: 10:54:39 AM Jan 16, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर