শুভশ্রী গয়না কিনলেই প্রথম এনে আমার মাকে দেখায়: রাজ

শুভশ্রী গয়না কিনলেই প্রথম এনে আমার মাকে দেখায়: রাজ

দিব্য সংসার করছেন রাজ ও শুভশ্রী। বিয়ের এক বছর পরেও তাদের সুপার বন্ড যে অটুট তা আর নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না।

  • Share this:

#কলকাতা: দিব্য সংসার করছেন রাজ ও শুভশ্রী। বিয়ের এক বছর পরেও তাদের সুপার বন্ড যে অটুট তা আর নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না। বিয়ের সময় থেকেই জোর চর্চা ছিল ঠিক কতটা আড়ম্বর থাকছে বিয়েতে সেই নিয়ে। যেমনটা ভাবা হয়েছিল তার থেকে অনেক গুণ বেশি সিনেম্যাটিক অ্যাপ্রোচ দেখা গিয়েছিল রাজশ্রী-র বিয়েতে। বিয়ের ভেন্যু থেকে পোশাক সবই ছিল আলোচ্য বিষয়। তবে সব থেকে যে বিষয় নিয়ে মহিলা মহলে জোর আলোচনা শোনা গিয়েছিল তা নিঃসন্দেহে শুভশ্রীর গয়না। বিয়ের আগে যাকে ওয়েস্টার্ন পোশাকে দেখতেই সবার চোখ বেশি অভ্যস্ত, সেই মেয়ের গায়ে যখন সাবেকিয়ানার ছোঁয়ায় তাক লাগানো সৌন্দর্য্য,তা নিয়ে যে আলোচনা হবে সে তো জানা কথা।

লাল বেনারসি না হয় হল কিন্তু শুভশ্রীর গয়না ছিল এক্কেবারে হটকে। গলার হার থেকে হাতের বালা আংটি সবই ছিল এক্কেবারে স্পেশাল। কথায় কথায় জিজ্ঞেস করলাম রাজকে একবার,এই যে শুভশ্রী বিয়েতে এত্ত সুন্দর সাজলো, তার পেছনে কি তোমার অবদান আছে? সহাস্য রাজ জানালেন "বিয়েটা নিয়ে আমরা দুজনেই খুব সুন্দর করে প্ল্যান করেছিলাম। শুভশ্রীর গয়নার প্রতি একটা আলাদা ইন্টারেস্ট রয়েছে। ওর কিছুটা আইডিয়া আর আমার কিছুটা আইডিয়া এক সঙ্গে করে ওর গলার হার অর্ডার করা হয়েছিল। যে জুয়েলার এটা বানিয়েছে তারা এই ডিজাইনটার নামও পরে শুভশ্রীই রাখেন এবং এটা খুব পপুলার ও হয়ে।"

রাজের কথা শেষ হতে না হতেই আমি পরের প্রশ্ন করে বসলাম। কিন্তু বিয়ের পরে পুজোতেও ওকে নতুন সেট পরে দেখা গিয়েছে । তার মানে শুভশ্রী ফ্রিকুয়েন্টলি সোনা কালেক্ট করে থাকেন। তা প্রত্যেকবার তুমি যাও নাকি সঙ্গে? এবারে রাজ খুব জোরে হেসে জানাল, "আরে নানা। সব সময় আমার হয়ে ওঠেনা,ও নিজেই সব করে। পরে হয়ত আমাকে এনে দেখালো ও কি কিনেছে বা জিজ্ঞেস করল কেমন হয়েছে। এর থেকে আর বেশি কিছু না। তবে হ্যাঁ আমি এটা দেখেছি ও যে গয়নাই কিনে আনুক না কেন প্রথমে এনে আমার মাকে দেখায়। তার পরে আমাকে। সেই বিষয়টা আমার বেশ ভালো লাগে। তার কারণ আমার মা আর শুভশ্রী মধ্যে একটা দারুন বন্ড আছে যেটা আমি খুবই চেরিশ করি’

First published: January 12, 2020, 4:56 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर