corona virus btn
corona virus btn
Loading

ঘরের বাইরে পা না রেখেও টলিউডের ছবি! মুক্তি পেতে পারে ১ বৈশাখে

ঘরের বাইরে পা না রেখেও টলিউডের ছবি! মুক্তি পেতে পারে ১ বৈশাখে

পরিস্থিতি মানুষকে ঠিক খাপ খাইয়ে নিতে শেখায়, 'একদিন ঝড় থেমে যাবে' হবে শ্যুট শুরুর পর এমনই বলছেন পরিচালক অরিন্দম শীল৷

  • Share this:

#কলকাতা: ঘরে থাকলেই দূরে পালাবে করোনা৷ এই প্রচার চলছে দেশজুড়ে৷ এরই মধ্যে সাধারণ মানুষকে আরও সচেতন করতে উদ্যেগী হয়েছে বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাবনাচিন্তায় অনুপ্রাণিত হয়েই অনিশ্চিত সময়ে ফের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজের উদ্যোগ নিলেন বাংলার শিল্পীরা৷ একটি শর্টফিল্ম তৈরি শুরু হয়েছে যার নাম 'একদিন ঝড় থেমে যাবে'৷ মুখ্যমন্ত্রী লেখা গানের লাইন থেকেই নাম দেওয়া হয়েছে এই ছবির৷ শুরু হল সেই ছবিরই শ্যুটিং৷

বেশ কয়েকটা ছবির পরিচালনা করে হাত পাকানো পরিচালক অরিন্দম শীল বলছেন যে এভাবে পরিচালনার অভিজ্ঞতা কোনও দিনই হয়নি৷ কারণ পুরোটাই শ্যুট করা হচ্ছে নিজের নিজের বাড়িতে এবং সেটাকে একসঙ্গে মিলিয়েই তৈরি হচ্ছে ছবি৷ অরিন্দম শীল জানিয়েছেন যে প্রথমে সব ফ্রেম ঠিক করে ভিডিও কনফারেন্সে সবাইকে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন৷ ঠিক তেমনভাবে সব অভিনেতারা শ্যুট করে পাঠিয়িছেন ফোনের মাধ্যমেই৷ কিন্তু তারপরও কিছু অসুবিধা হলে ফের একবার শ্যুট করতে হচ্ছে৷ অরিন্দম জানাচ্ছেন 'আসলে ছবির শ্যুটিং-এর সময় তো একটা একটা দৃশ্য ধরে শ্যুট করি৷ এখানে সবই অন্যরকম৷ আমাদের সবার সিনিয়ার পরাণদা (পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়) উৎসাহী হয়ে সবার প্রথমেই নিজের শটটি পাঠিয়েছেন৷ এই আতঙ্কের মধ্যেও আমরা এক পরিবারের মতো রয়েছি, এটা তো সকলকে অনেটাই ভরসা জোগাচ্ছে৷ এই ছবিতে বুম্বাদাও থাকছেন৷ অনেকদিন ওঁর সঙ্গে কাজ করার ইচ্ছা ছিল, কিন্তু হয়ে উঠছিল না৷ তবে এবার এই ইচ্ছেপূরণ হল৷ বুঝলাম কেন ওঁকে ডিরেক্টরস অ্যাক্টর বলা হয়৷ সিনিয়ার বলে কোনও হাবভাব নেই, বরং উল্টে৷'

পরিচালক বলছেন যে পরিস্থিতি মানুষকে অনেক কিছুই শেখায়৷ 'এই সময় দাঁড়িয়েও আমরা নতুন কিছু ভাবছি৷ এটাই তো অনেক বড় পাওনা৷ এর থেকে আশা করছি ১ কোটি টাকা পাওয়া যাবে, যা আমরা আমাদের টেকনিশিয়ানদের দেব৷' ক্যামেলিয়া গ্রুপের কর্ণধার ইতিমধ্যেই এই প্রজেক্টের জন্য দিয়েছেন ১০ লক্ষ টাকা৷

উল্লেখ্য ঘরবন্দির ঘোষণা হওয়ার পরপরই অরিন্দম শীলের নেতৃত্বে একটি ফান্ড চালু হয়েছিল৷ কাজ বন্ধ থাকাকালীন যাতে টেকনিশিয়ানদের হাতে টাকা তুলে দওয়া যায়৷ আপাতত সেই ফান্ডে ৫২ লক্ষ টাকা জড়ো হয়েছে এবং প্রত্যেক জুনিয়ার টেকনিশিয়ানকে ৪হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি৷ এভাবেই ৬ হাজার টেকনিশিয়ানের হাতে টাকা তুলে দেবেন বলেই জানিয়েছেন পরিচালক৷ আপাতত তিনি ফিল্মের শ্যুটে ব্যস্ত৷ কলকাতার খালি রাস্তাঘাট লেন্সবন্দি করছেন নিজের ছবি জন্য এবং কলকাতা পুলিশের একটি তথ্যচিত্রের জন্যেও৷

বাঙালির পয়লা বৈশাখ লকডাউনে কাটবে কিনা তা জানা যাচ্ছে না৷ তবে করোনা আতঙ্কের মধ্যেই বাঙালি নববর্ষে বিশেষ বার্তা দিতে ১ বৈশাখ একদিন ঝড় থেমে যাবে- মুক্তির ইচ্ছে রয়েছে তাঁর৷

Published by: Pooja Basu
First published: April 10, 2020, 6:21 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर