• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • যোধপুর আদালতে দেশ ছাড়ার অনুমতি চাইলেন সলমন খান

যোধপুর আদালতে দেশ ছাড়ার অনুমতি চাইলেন সলমন খান

১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হরিণ শিকার মামলায় জামিন পেলেও, আদালতের অনুমতি ছাড়া তিনি দেশ ছাড়তে পারবেন না সলমন খান। এমনটাই সিদ্ধান্ত নেয় যোধপুর সেশনস কোর্ট।
কিন্তু আগামী কিছুদিনের মধ্যেই 'ভাইজান'-কে বিদেশে পাড়ি দিতে হবে। যেতে হবে চারটে ভিন্ন রাষ্ট্রে! তাই, যোধপুর সেশনস কোর্টে, দেশ ছাড়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন জানান খান। সম্ভবতম আজ সিদ্ধান্ত শোনাবে আদালত ।

১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হরিণ শিকার মামলায় জামিন পেলেও, আদালতের অনুমতি ছাড়া তিনি দেশ ছাড়তে পারবেন না সলমন খান। এমনটাই সিদ্ধান্ত নেয় যোধপুর সেশনস কোর্ট। কিন্তু আগামী কিছুদিনের মধ্যেই 'ভাইজান'-কে বিদেশে পাড়ি দিতে হবে। যেতে হবে চারটে ভিন্ন রাষ্ট্রে! তাই, যোধপুর সেশনস কোর্টে, দেশ ছাড়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন জানান খান। সম্ভবতম আজ সিদ্ধান্ত শোনাবে আদালত ।

১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হরিণ শিকার মামলায় জামিন পেলেও, আদালতের অনুমতি ছাড়া তিনি দেশ ছাড়তে পারবেন না সলমন খান। এমনটাই সিদ্ধান্ত নেয় যোধপুর সেশনস কোর্ট। কিন্তু আগামী কিছুদিনের মধ্যেই 'ভাইজান'-কে বিদেশে পাড়ি দিতে হবে। যেতে হবে চারটে ভিন্ন রাষ্ট্রে! তাই, যোধপুর সেশনস কোর্টে, দেশ ছাড়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন জানান খান। সম্ভবতম আজ সিদ্ধান্ত শোনাবে আদালত ।

  • Share this:

    #মুম্বই:  ১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হরিণ শিকার মামলায় জামিন পেলেও, আদালতের অনুমতি ছাড়া তিনি দেশ ছাড়তে পারবেন না সলমন খান। এমনটাই সিদ্ধান্ত নেয় যোধপুর সেশনস কোর্ট।

    কিন্তু আগামী কিছুদিনের মধ্যেই 'ভাইজান'-কে বিদেশে পাড়ি দিতে হবে। যেতে হবে চারটে ভিন্ন রাষ্ট্রে! তাই, যোধপুর সেশনস কোর্টে, দেশ ছাড়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন জানান খান। সম্ভবতম আজ সিদ্ধান্ত শোনাবে আদালত ।

    এই মুহূর্তে রেমো ডিসুজা'র 'রেস থ্রি'র শেষ শেডিউলের শুটিং করছেন সলমন। রায় ঘোষণার কয়েকদিন আগে পর্যন্তও শুট করছিলেন আবু ধাবিতে। কিন্তু শুনানির জন্য, শুট অসম্পূর্ণ রেখেই চলে আসতে হয় ইন্ডিয়ায়। মূলত, বাকি থেকে যাওয়া শুটিং শেষ করতেই তড়িঘড়ি বিদেশ যাওয়া প্রয়োজন খানের।

    শোনা যাচ্ছে, যেহুতু সল্লু মিঞা এখন অনুমতি ছাড়া দেশ ছাড়তে পারবেন না, আর আদালতের কাছ থেকে অনুমতি আদায় করা বেশ সময়সাপেক্ষ ব্যাপার, তাই খানিকটা বাধ্য হয়েই, ইন্ডিয়াতেও ছবির কয়েকটা দৃশ্য শুট করেছেন রেমো। অবশ্য, পরিচালক এই নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি

    First published: