• Home
  • »
  • News
  • »
  • entertainment
  • »
  • গোটা বলিউড করলেও, অক্ষয়কে এসএমএস করলেন না হৃত্বিক !

গোটা বলিউড করলেও, অক্ষয়কে এসএমএস করলেন না হৃত্বিক !

একেই বলে হয়তো বলিউডের বক্স অফিস লড়াই ৷ একদিকে অক্ষয় কুমারের ‘রুস্তম’ তো আরেক দিকে হৃত্বিক রোশনের ‘মহেঞ্জো দারো’ ৷

একেই বলে হয়তো বলিউডের বক্স অফিস লড়াই ৷ একদিকে অক্ষয় কুমারের ‘রুস্তম’ তো আরেক দিকে হৃত্বিক রোশনের ‘মহেঞ্জো দারো’ ৷

একেই বলে হয়তো বলিউডের বক্স অফিস লড়াই ৷ একদিকে অক্ষয় কুমারের ‘রুস্তম’ তো আরেক দিকে হৃত্বিক রোশনের ‘মহেঞ্জো দারো’ ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #মুম্বই: একেই বলে হয়তো বলিউডের বক্স অফিস লড়াই ৷ একদিকে অক্ষয় কুমারের ‘রুস্তম’ তো আরেক দিকে হৃত্বিক রোশনের ‘মহেঞ্জো দারো’ ৷ লড়াইটা যে জমিয়ে হবে সে কথা ঠিক ছিল আগে থেকেই ৷ তাই তো ছবির প্রোমোশনেও নানা ভাবে সে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন অক্ষয় ও হৃত্বিক !

    ১৯৫৯ সালের বাস্তবের নানাবতী বিতর্ক নিয়ে তৈরি হয়েছে অক্ষয় কুমারের ‘রুস্তম’ ৷ অন্যদিকে ইতিহাসের পাতা থেকে ‘মহেঞ্জো দারো’কে তুলে এনে এক কল্পনার আঙ্গিক দিয়েছেন পরিচালক আশুতোষ গোয়ারিকর ৷ দুটো ছবিই একেবারে ভিন্ন ৷ তবুও যেহেতু দুটো ছবির স্টারকাস্ট শক্তপোক্ত ৷ তাই বক্স অফিস লড়াইটা যে জমিয়ে হবে তা আগে থেকেই ঠিক ছিল ৷

    তবে গল্পটা বক্স অফিস নিয়ে নয়, বরং বক্স অফিসের বাইরে ব্যক্তিগত দিক থেকে লড়াইয়ে মেতে উঠলেন হৃত্বিক ও অক্ষয় ৷ সম্প্রতি ‘রুস্তম’-এর সাফল্য নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে অক্ষয় জানালেন, ‘আমি সিনেমার ব্যাপারে বক্স অফিস লড়াইকে কখনওই গুরুত্ব দিই না ৷ আমার মনে হয় দেওয়া উচিতও নয় ৷ কারণ, সব ছবি একে অপরের থেকে আলাদা ! রুস্তম ও মহেঞ্জো দারো দুটো ছবিই ভিন্ন ৷ আমার দিক থেকে কোনওরকম লড়াই ছিল না ৷ ’

    অক্ষয় আরও বলেন, ‘রুস্তমের সাফল্য নিয়ে আমিও খুব চিন্তিত ছিলাম ৷ ভেবেছিলাম এই গল্পটা হয়তো দর্শক নেবে না ৷ তবে দর্শকদের ভালো লেগেছে দেখে আমি বেশ খুশি ৷’ সঙ্গে অক্ষয় বলেন, ‘গোটা বলিউড রুস্তম’ নিয়ে উচ্ছ্বসিত ৷ সবাই আমাকে এসএমএসে শুভেচ্ছা জানিয়েছে, সবাই নিজের নিজের মতো করে ‘রুস্তম’-এর প্রোমোশনও করেছেন ৷ সবাইকে ধন্যবাদ ৷ তবে হৃত্বিকের কাছ থেকে কোনও এসএমএস পাইনি ৷ পেলে ভালো লাগত ৷ ’

    বলিউড বক্স অফিসে জোর লড়াই ! একদিকে হৃত্বিকের ‘মহেঞ্জো দারো’, তো অন্যদিকে অক্ষয় কুমারের ‘রুস্তম’ ৷ ‘মহেঞ্জো দারো’তে উঠে আসবে হরপ্পা সভ্যতার ইতিহাস আর ১৯৫৯ সালের এক দাম্পত্য ঘেরা বিতর্ককে সিনেমার পর্দায় নিয়ে এসেছেন ‘রুস্তম’ ৷ শুক্রবারের বক্স অফিস রিপোর্ট অনুযায়ী, ‘মহেঞ্জো দারো’র তুলনায় ‘রুস্তম’ এগিয়ে ওপেনিংয়ের দিক থেকে ৷ শুক্রবারে ‘রুস্তম’ ওপনিং প্রায় ৪০ শতাংশ ৷ অন্যদিকে ‘মহেঞ্জো দারো’র ওপেনিং ২৫ শতাংশ !

    ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে ‘মহেঞ্জো দারো’ ও ‘রুস্তম’-এর ফিল্ম রিভিউ ৷ ‘মহেঞ্জো দারো’ নিয়ে উচ্ছ্বাস দর্শকের মধ্যে কম থাকলেও, ‘রুস্তম’ও নাকি খুব একটা খুশি করতে পারেনি দর্শকদের ৷ ফিল্ম সমালোচকরা বলছেন অক্ষয়ের ‘রুস্তম’ একঘেয়ে ৷ অন্যদিকে ‘মহেঞ্জো দারো’কে স্পেকটাকুলার ছবি হিবেসেই মনে করছেন সিনে মহল !

    First published: