Home /News /education-career /
BYJU’S Young Genius সিজন 2-এর এই নতুন এপিসোডে দেখুন ভারতের দুই প্রান্তের দুই তরুণ জিনিয়াসের প্রতিভা

BYJU’S Young Genius সিজন 2-এর এই নতুন এপিসোডে দেখুন ভারতের দুই প্রান্তের দুই তরুণ জিনিয়াসের প্রতিভা

BYJU’S Young Genius: এই দুই জনের অসাধারণ কাহিনী জানার জন্য পড়তে থাকুন এবং অনুপ্রাণিত হয়ে উঠুন।

  • Share this:

    আধুনিক জগতে নিজের পরিচয় অর্জন করার দুই রকম উপায় রয়েছে। প্রথমটি হল, কোনও প্রতিভার অধিকারী হওয়া এবং নিজের প্রতিভাকে গোটা বিশ্বের সামনে তুলে ধরা। অপর উপায়টি হল, কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করা।

    #BYJUSYoungGenius2 এর লেটেস্ট এপিসোডে দর্শকরা দেখতে পাবেন এই দুই উপায়ে বিখ্যাত হয়ে ওঠা দুই খুদে জিনিয়াসের গল্প। একজন জীবনের সমস্ত বিরূপ পরিস্থিতির সাথে লড়াই করে চলেছে জাতীয় স্তরে পৌঁছনোর জন্য এবং অন্যজন মাত্র এক বছর বয়স থেকে অ্যাবস্ট্র্যাক্ট আর্ট পেন্টিং আঁকা শুরু করেছে, এর মধ্যে তার আঁকা নিয়ে চারটি আর্ট প্রদর্শনী আয়োজিত হয়েছে এবং সেখানে তার আঁকা ছবি বিক্রি হয়েছে!

    এই দুই জনের অসাধারণ কাহিনী জানার জন্য পড়তে থাকুন এবং অনুপ্রাণিত হয়ে উঠুন।

    চঞ্চল কুমারীর সাথে ওয়েট লিফ্টিংয়ের যাত্রায় সামিল হোন –

    ভারতের এই উদীয়মান প্রতিভাবান খুদে সম্পর্কে বলা যায় যে, সে কারও করুণার পাত্রী হয়ে নিজের জীবন কাটাতে চায়নি বরং কঠোর পরিশ্রম করে চলেছে যাতে নিজের এবং গোটা পরিবারের নাম উজ্জ্বল করতে পারে। 15-বছরের চঞ্চল কুমারী হল এমন একজন জিনিয়াস, যে অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারের জন্মানোর পরেও শুধুমাত্র প্রতিভার জোরে জাতীয় স্তরে নিজের স্বতন্ত্র পরিচয় তৈরি করেছে।

    ঝাড়খণ্ডের হাতোয়াল নামের একটি ছোট্ট জায়গার বাসিন্দা চঞ্চলা। তার বাবা-মা স্পোর্টসে কেরিয়ার তৈরি করার জন্য তাকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন, কারণ স্পোর্টস অ্যাকাডেমিতে থাকা, খাওয়া, পড়াশোনা এবং প্রশিক্ষণ পাওয়া যায় সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

    সব রকম স্পোর্টসের মধ্যে থেকে চঞ্চলা বেছে নিয়েছিল গাস্টো-সহ রেসলিং। তখনই দেখা যায় যে, এই স্পোর্টসে অনেক উঁচু স্তরে পৌঁছনোর মতো শক্তি এবং দক্ষতা প্রথম থেকেই তার মধ্যে রয়েছে। ইতিমধ্যে চঞ্চলা বহু গোল্ড মেডেল জিতেছে, তার মধ্যে রেসলিং-এ ন্যাশনাল গোল্ড মেডেলও রয়েছে। এছাড়াও সে গত বছর বুদাপেস্টে আয়োজিত ওয়ার্ল্ড ক্যাডেট রেসলিং চ্যাম্পিয়নশিপে অনূর্ধ্ব-17, 40 কেজি বিভাগে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেছে।

    এই এপিসোডে চঞ্চলা জানিয়েছে যে, সে ফোগাট ভগিনীদের দেখে অনুপ্রেরণা পেয়েছে, যাদের নিয়ে দঙ্গল সিনেমার গল্প লেখা হয়েছে। এই এপিসোডে বিশেষ অতিথি হিসেবে হাজির হয়েছিলেন গীতা ফোগাট। তাকে দেখে উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে চঞ্চলা। এরপরে হোস্ট আনন্দ নরসিংহনের অনুরোধে তারা দুই জনে মিলে দর্শকদের সামনে কিছু রেসলিং টার্ম তুলে ধরেন। এই এপিসোডের সবচেয়ে রোমহর্ষক মুহূর্তে দেখা যাবে, খুব সহজেই চঞ্চলা তুলে নেবে গীতা ফোগাটকে।

    বর্তমানে চঞ্চলা অনূর্ধ্ব 15 বিভাগে জাতীয় স্তরে ট্রায়াল দেওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ নিচ্ছে। তার লক্ষ্য হল, 2024 সালের অলিম্পিক্সে মেডেল জিতে দেশে ফেরা। নিজের লক্ষ্যে পৌঁছনোর জন্য এখন থেকেই কঠোর পরিশ্রম করছে চঞ্চলা, আমরাও আশাবাদী তার এই স্বপ্ন সত্যি হবে।

    অদ্বৈতের সাথে রঙিন করে তুলুন গোটা পৃথিবী–

    আপনি নিশ্চয়ই আশা করবেন না যে, সাত বছর বয়সী একজন শিশু অ্যাবস্ট্র্যাক্ট আর্ট নিয়ে কথা বলবে এবং সে মঞ্চে দাঁড়িয়ে বলবে, “আমার যেটা দেখে ব্রহ্মাণ্ড মনে হয়, সেটা দেখে আপনার সমুদ্র মনে হতেই পারে।” আর ঠিক এই বিষয়টিই অদ্বৈত কোলারকারকে বাকিদের চেয়ে আলাদা করে তুলেছে।

    মাত্র এক বছর বয়স থেকে আঁকতে শুরু করেছে অদ্বৈত এবং মাত্র দুই বছর বয়সে তার আঁকা নিয়ে প্রদর্শনী আয়োজিত হয়েছিল। বাবা-মায়ের অনুপ্রেরণাকে সঙ্গী করে অদ্বৈত অ্যাবস্ট্র্যাক্ট পেন্টিং শুরু করে এবং ইতিমধ্যে তার আঁকা ছবি আমেরিকা, কানাডা, লন্ডন এবং তুরস্কে বিক্রি হয়েছে।

    2018 সালে কানাডাতে কালার ব্লিজার্ড নামক প্রদর্শনীতে মাত্র চার দিনের মধ্যে তার আঁকা 32টি ছবি বিক্রি হয়ে গিয়েছিল। সেই বছরই নিউ ইয়র্কের আর্টএক্সপো-তে সে কনিষ্ঠতম শিল্পী হিসেবে যোগদান করেছিল।

    অদ্বৈত অ্যাবস্ট্র্যাক্ট পেন্টিং পছন্দ করে কারণ সেটি বিভিন্ন রকম ভাবে ব্যাখ্যা করা সম্ভব। তবে এখন সে বিভিন্ন থিমের উপরে পেন্টিং করা শুরু করেছে এবং সে ডাইনোসর, মহাকাশ, সমুদ্রের নীচের জগৎ সম্পর্কে ধারণার মতো বিভিন্ন বিষয় থেকে অনুপ্রেরণা গ্রহণ করে নিজের শিল্পের বিকাশ ঘটিয়ে চলেছে। এখানে এসে সে জানিয়েছে তার প্রিয় রঙ হল কালো, কারণ সেটি স্ট্রং এবং বোল্ড।

    এই এপিসোডে এসে, সে নিজের কয়েকটি পেন্টিং দেখাবে পদ্মশ্রী পরেশ মাইতি-কে। শো-এর অতিথি এই খুদে জিনিয়াসের অপূর্ব সৃষ্টি দেখে মোহিত হয়ে গিয়েছেন এবং অদ্বৈতের এই প্রতিভাকে আরও অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। এত ছোট বয়সে কীভাবে সে এত পরিণত শিল্পসৃষ্টি করছে সেই বিষয়ে তিনি নিজের মনোভাব ব্যক্ত করেছেন।

    অদ্বৈত আঁকা চালিয়ে যেতে চায়, তার পাশাপাশি এই বয়সের আর পাঁচ জনের মতো সে-ও বড় হয়ে কিছু হওয়ার স্বপ্ন দেখে। সে জানিয়েছে, বড় হয়ে সে একজন পেলিয়েন্টোলজিস্ট বা জীবাশ্মবিদ হতে চায় এবং ডাইনোসরের নতুন প্রজাতি আবিষ্কার করতে চায়। তার সাথে সে একজন লেখক হতে চায়। এত ছোট বয়স থেকেই যে এত উঁচু দরের শিল্পসৃষ্টি করতে পারে, সে হয়তো বড় হয়ে পেলিয়েন্টোলজিস্ট হওয়ার পাশাপাশি লেখক হওয়ার মতো কঠিন স্বপ্নও সত্যি করে দেখাতে পারে!

    BYJU’S Young Genius সিজন 2 খুদে জিনিয়াসদের এমনই নানা রকম স্বপ্ন এবং উচ্চাশার কথা সুন্দর ভাবে গোটা দেশের সামনে তুলে ধরার কাজ করছে। চঞ্চলার কুস্তির প্যাঁচগুলি দেখে এবং তার কথা শুনে অনুপ্রাণিত হতে পারেন। আবার প্রতিভাবান অদ্বৈতকে দেখে আপনার মনেও নিজের সুপ্ত স্বপ্নগুলিকে জাগিয়ে তুলে সেগুলি পূরণ করার ইচ্ছা হতে পারে। হয়তো চেষ্টা করলে আপনিও এই দুই খুদের মতো নিজের প্রতিভার জোরে বিখ্যাত হয়ে যেতে পারেন।

    এখনই পুরো এপিসোড দেখে নিন!

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: BYJU'S Young Genius, Byjus, BYJUSYoungGenius2

    পরবর্তী খবর