Bengal Education: মগজে ট্রাফিক জ্যাম! টিকাকরণ নিশ্চিত করে পঠনপাঠন শুরুর দাবিতে রাস্তাতেই ক্লাস

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবি

Bengal Education: খোলা আকাশের নিচে পড়ালেন শিক্ষক। পাঠ নিলেন আন্দোলনরত পড়ুয়ারা। উদ্যোগ থাকলে যে উপায় ঠিক বের করা যায় বোঝালেন তাঁরা। অবিলম্বে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি পঠন পাঠন শুরু করার দাবি উঠল।

  • Share this:

#বর্ধমান: লেখাপড়ায় ট্রাফিক জ্যাম! ট্রাফিক জ্যাম মগজের!প্রতীকী প্রতিবাদ হিসেবে বিকল্প ব্যবস্থা হিসাবে রাস্তায় খোলা আকাশের নীচে ক্লাসরুম। এমনই দৃশ্যের দেখা মিলল বর্ধমান শহরে। বর্ধমানের উত্তর ফটকে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের বাইরের দরজার সামনে রোদ বৃষ্টি অগ্রাহ্য করে ক্লাস চললো। খোলা আকাশের নিচে পড়ালেন শিক্ষক। পাঠ নিলেন আন্দোলনরত পড়ুয়ারা। উদ্যোগ থাকলে যে উপায় ঠিক বের করা যায় বোঝালেন তাঁরা। অবিলম্বে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি পঠন পাঠন শুরু করার দাবি উঠলো।

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে দীর্ঘদিন বন্ধ স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়।ফলে সমস্যায় ছাত্রছাত্রীরা।অনলাইনে ক্লাস হলেও আর্থিক অনটনের কারণে  সেই সুবিধা নিতে পারছে না অধিকাংশ ছাত্রছাত্রী।ফলে বাড়ছে স্কুলছুটের সংখ্যা।বাড়ছে নাবালিকা বিবাহের মতো ঘটনা।

তাই ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে  অবিলম্বে স্কুল, কলেজ খুলতে হবে এই দাবিতে পথে নামলো ভারতের ছাত্র ফেডারেশনের পূর্ব বর্ধমান জেলা কমিটি। বৃহস্পতিবার সংগঠনের পক্ষে সামগ্রিক ঘটনার প্রতিবাদে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের সামনে প্রতীকী ক্লাস রুমের আয়োজন করা হয়।যেখানে ছাত্রছাত্রীদের ক্লাস নেন বিভিন্ন কলেজে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।

এসএফআইয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, যেখানে কোভিড অতিমারি পরিস্থিতিতে মদের দোকান খোলা রাখা হচ্ছে সেখানে দাঁড়িয়ে অবিলম্বে ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পঠন পাঠন শুরু করা উচিত।দীর্ঘদিন স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়  বন্ধ থাকায় ছাত্রদের মানসিকতায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে। বাড়ছে স্কুলছুট,নাবালক বিবাহের মতো ঘটনা। তাছাড়া মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে পরীক্ষা না নিয়ে  যেভাবে রেজাল্ট বের করা হয়েছে তাতে ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ন ঠিকভাবে হয়নি বলেও তারা মনে করছে।

এসএফআই পূর্ব বর্ধমান জেলা কমিটির সম্পাদক অনির্বাণ রায় চৌধুরী জানান, অবিলম্বে ছাত্রছাত্রীদের টিকাকরণ সুনিশ্চিত করে কোভিড স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হোক।না হলে তারা প্রয়োজনে জঙ্গি আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবেন। তাদের বক্তব্য, অনলাইন ক্লাস কখনই সরাসরি পঠনপাঠনের বিকল্প হতে পারে না।

অপরদিকে, সেই একই দাবিতে বারাসাত কালীকৃষ্ণ স্কুলের সামনে বিক্ষোভ দেখালো বাম ছাত্র সংগঠন। করোনা মহামারীর কারণে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে বন্ধ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। অনলাইন ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে পঠন-পাঠনে হয়রান হতে হয় পড়ুয়াদের। অনলাইন শিক্ষা নিয়ে উঠছে বিস্তর অভিযোগও।রেস্তোরাঁ, বার, শপিং মল থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্র চালু করা গেলে ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়ার স্বার্থে কেন প্রয়োজনীয় কোভিড বিধির ব্যবস্থা করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হচ্ছে না এরকম বিভিন্ন দাবি নিয়ে আজ বারাসাত কালীকৃষ্ণ স্কুল এর সামনে বিক্ষোভ দেখায় এসএফআই ছাত্র সংগঠন।

Published by:Suman Biswas
First published: