Higher Secondary Results 2021: কীভাবে উচ্চমাধ্যমিকের মূল্যায়ণ? কবে ফলপ্রকাশ? জানিয়ে দিল সংসদ

উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সাংবাদিক বৈঠক ।

চলতি বছরে উচ্চমাধ্যমিকে ছাত্র-ছাত্রীদের কীভাবে মূল্যায়ন হবে তা নিয়ে শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলন করে বিস্তারিত জানালেন উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি মহুয়া দাস।

  • Share this:

#কলকাতা: চলতি বছরে উচ্চমাধ্যমিকে (Higher Secondary Results 2021) ছাত্র-ছাত্রীদের কীভাবে মূল্যায়ন (Evaluation Process) হবে তা নিয়ে শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলন করে বিস্তারিত জানালেন উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের (West Bengal HS Council) সভাপতি মহুয়া দাস (Mahua Das)। মূলত মাধ্যমিকের (Mdhyamik) চারটি বিষয়ের সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর, একাদশ শ্রেণির বিষয়ভিত্তিক বার্ষিক পরীক্ষার নম্বর ও উচ্চমাধ্যমিকে প্র্যাক্টিকাল ও প্রোজেক্ট ওয়ার্কের নম্বর। এই তিনটি নিরিখেই উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্র-ছাত্রীদের মার্কশিট দেওয়া হবে। শুক্রবার এমনটাই জানান উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি মহুয়া দাস। তিনি বলেন, "গাণিতিক ফর্মুলার মাধ্যমে কোনও ছাত্র-ছাত্রীদের নম্বরের ক্ষেত্রে বৈষম্য হবে না। মুখ্যমন্ত্রীর কথা মত আমরা চেষ্টা করব জুলাই মাসের মধ্যেই ফল প্রকাশ করে দেওয়ার। তার জন্য সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে আমাদের।"

কীভাবে হবে উচ্চ মাধ্যমিকের মূল্যায়ন?

উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ জানিয়েছে ২০১৯ বা তার আগের মাধ্যমিক পরীক্ষার সর্বোচ্চ চারটি বিষয়ের প্রাপ্ত নম্বরের ওপর ভিত্তি করে ৪০% গুরুত্ব দেওয়া হবে। পাশাপাশি ২০২০ সালের একাদশের বার্ষিক পরীক্ষার লিখিত পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের উপর ভিত্তি করে ৬০% গুরুত্ব ও ইতিমধ্যেই উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের কাছে প্রজেক্ট এবং প্রাক্টিক্যাল নম্বর জমা পড়েছে তা যুক্ত করেই ছাত্র-ছাত্রীদের নম্বর দেওয়া হবে। সে ক্ষেত্রে উদাহরণস্বরূপ বলা যায়ঃ

১) ল্যাব নির্ভর বিষয়গুলির ক্ষেত্রে কোন ছাত্র-ছাত্রী মাধ্যমিকে সর্বোচ্চ চারটি বিষয়  ধরে নেওয়া যাক ৪০০ মধ্যে ২০০ পেয়েছে। তাহলে গুরুত্ব অনুযায়ী তার প্রাপ্ত নম্বর হবে ২৮×২০০÷৪০০ =১৪। এই ১৪ নম্বরই প্রত্যেকটি বিষয়ের ক্ষেত্রে উচ্চমাধ্যমিকে যুক্ত হবে। (এক্ষেত্রে উচ্চমাধ্যমিকের ল্যাব নির্ভর বিষয়গুলির লিখিত পরীক্ষা ৭০ নম্বরের হয় তাই এক্ষেত্রে ৪০%×৭০ =২৮ নম্বর হয়)

২) একাদশ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষার নির্দিষ্ট বিষয় ভিত্তিক গুরুত্ব দেওয়া হবে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় এক্ষেত্রে কোনো ছাত্র বা ছাত্রী একাদশ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষায় যদি ফিজিক্সে লিখিত পরীক্ষায় ৭০ নম্বর এর মধ্যে ৫০ নম্বর পায় তাহলে গুরুত্ব অনুযায়ী সেই ছাত্র বা ছাত্রী প্রাপ্ত নম্বর হবে  ৭০ এর মধ্যে ৫০ অর্থাৎ ৪২ এর মধ্যে হবে ৪২×৫০÷৭০=৩০। অর্থনীতিতে একাদশ শ্রেণি থেকে সেই ছাত্র বা ছাত্রী নম্বর পেল ৩০।

উপরে উল্লেখিত মাধ্যমিকের প্রাপ্ত নম্বরের নিরিখে যত নম্বর এল, পাশাপাশি একাদশ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা থেকে বিষয়ভিত্তিক যে নম্বরগুলো সেগুলি উচ্চমাধ্যমিকের লিখিত পরীক্ষার নম্বর হিসেবে যুক্ত হবে।

৩) ইতিমধ্যেই উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের কাছে প্র্যাক্টিকাল ও প্রোজেক্ট ওয়ার্কের নম্বর জমা পড়েছে। প্র্যাকটিক্যাল হলে ৩০ নম্বর এবং প্রজেক্ট হলে ২০ নম্বর এর মধ্যে যত নম্বর ছাত্র ছাত্রী পেয়েছে সেটিকে যুক্ত করা হবে। অর্থাৎ এইভাবে (১ ২ ৩) মিলিয়ে বিষয়ভিত্তিক নম্বর দেওয়া হবে উচ্চমাধ্যমিকের ছাত্র-ছাত্রীদের। উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি জানিয়েছেন চেষ্টা করা হবে জুলাই মাসের মধ্যেই যাতে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশ করা যায়।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Shubhagata Dey
First published: