• Home
  • »
  • News
  • »
  • education-career
  • »
  • EDUCATION HAPPY KUMAR FOUGHT POVERTY AND OTHER PROBLEMS TO PASS CBSE 12 TH WITH FLYING COLOURS ARC

CBSE : অনটনের সংসারে নেই ল্যাপটপ, ইন্টারনেট দুর্বল, সব বাধা পেরিয়ে তাক লাগানো ফল মেধাবী হ্যাপির

হ্যাপি কুমার

প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে উত্তরপ্রদেশের সহারানপুরের হ্যাপি কুমার (Happy Kumar) সিবিএসই বোর্ডের দ্বাদশ শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষায় (CBSE 12 th) দেশের সেরা ছাত্রদের মধ্যে একজন৷ এখন তিনি প্রস্তুতি নিচ্ছেন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের প্রবেশিকা জেইই মেইন-এর ৷

  • Share this:

    সহারানপুর : সংসারে আর্থিক স্বাচ্ছন্দ্য ছিল না ৷ কিন্তু সন্তানের নাম ‘হ্যাপি’ রাখতে দ্বিধা করেননি তাঁর বাবা মা ৷ আজ, সেই নামকরণ সার্থক ৷ সব প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে উত্তরপ্রদেশের সহারানপুরের হ্যাপি কুমার (Happy Kumar) সিবিএসই বোর্ডের দ্বাদশ শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষায় (CBSE 12 th) দেশের সেরা ছাত্রদের মধ্যে একজন৷ এখন তিনি প্রস্তুতি নিচ্ছেন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের প্রবেশিকা জেইই মেইন-এর ৷ পরীক্ষার শেষ সেশন হবে এ মাসের শেষে ৷ ফেব্রুয়ারি মাসে জেইই মেইন্স-এ (JEE Mains) তাঁর পার্সেন্টাইল ছিল ৯১ ৷ পরের মাসের সেশনে তাঁর সংগ্রহ ছিল ৯৬ পার্সেন্টাইল ৷

    পরিবারে আর্থিক অনটন ছাড়াও ছিল ইন্টারনেটের নেটওয়ার্কের সমস্যা ৷ হ্যাপি জনিয়েছেন, ‘‘আমাদের এলাকায় ইণ্টারনেট সংযোগ দুর্বল ৷ আমার ল্যাপটপ নেই ৷ যখনই নেটওয়ার্ক থাকত, মোবাইলে ক্লাস করতাম ৷ স্কুল বন্ধ বলে ভরসা করতে হয়েছিল ইউটিউবের উপর ৷ হ্যাপি পড়তেন বিদ্যাজ্ঞান স্কুলে ৷ আর্থিক দিক থেকে অনগ্রসর পরিবারের পড়ুয়ারা এই প্রতিষ্ঠানে বিনাব্যয়ে পড়তে পারেন ৷

    অতিমারির জন্য এ বছর দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়াদের পরীক্ষার ফল তৈরি হয়েছে দশম, একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীর ইন্টারনাল অ্যাসেসমেন্টের উপর নির্ভর করে ৷ মেধাবী ছাত্র হ্যাপি জানতেন তাঁর ফল ভাল হবে ৷

    মোট ৫০০-র মধ্যে তিনি পেয়েছেন ৪৯৬ ৷ রসায়ন, গণিত ও ইনফরমেশন প্র্যাকটিস, এই তিন বিষয়েই পেয়েছেন ১০০-এ ১০০ ৷ পদার্থবিজ্ঞান ও ইংরেজিতে পেয়েছেন ৯৮ করে ৷ সবমিলিয়ে সিবিএসই বোর্ডের দ্বাদশ শ্রেণীর চূড়ান্ত পরীক্ষায় হ্যাপি পেয়েছেন মোট শতকরা ৯৯.২ নম্বর ৷

    তিন ভাইবোনের মধ্যে হ্যাপি সবথেকে ছোট ৷ তাঁর দাদা ও দিদি দু’জনেই কলেজপড়ুয়া ৷ সংসারের বাকি খরচের সঙ্গে তিন সন্তানের পড়াশোনার ব্যয় সামলানোর জন্য তাঁদের বাবার ভরসা ছিল একচিলতে মুদির দোকান ৷ শত সমস্যাতেও তিনি এবং তাঁর গৃহবধূ স্ত্রী সন্তানদের পড়াশোনার বিষয়ে কোনও আপস করেননি ৷

    হ্যাপি ভবিষ্যতে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হতে চান ৷ কাজ করতে চান প্রযুক্তি নিয়ে ৷ বৃত্তি পেয়ে ইতিমধ্যেই ভর্তি হয়েছেন শিব নাদার বিশ্ববিদ্যালয়ে ৷ আইআইটি-তে পড়ার জন্য দেবেন জেইই অ্যাডভান্সড-এও ৷ সেই প্রবেশিকায় সফল হলে হ্যাপি চান আইআইটি বা এনআইটি-তে পড়তে ৷ বাড়ির কাছে বলে তাঁর পছন্দ কানপুর, রুরকি বা দিল্লি আইআইটি ৷ স্বপ্নপূরণের লক্ষ্যে হ্যাপি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: