• Home
  • »
  • News
  • »
  • crime
  • »
  • Gariahat Double Murder: গড়িয়াহাটে খুন কর্পোরেট কর্তা এবং গাড়ির চালক, বাড়ি বিক্রি নিয়ে বিবাদেই চরম নৃশংসতা?

Gariahat Double Murder: গড়িয়াহাটে খুন কর্পোরেট কর্তা এবং গাড়ির চালক, বাড়ি বিক্রি নিয়ে বিবাদেই চরম নৃশংসতা?

গড়িয়াহাটের এই বাড়িই বিক্রির চেষ্টায় ছিলেন সুবীর চাকি৷

গড়িয়াহাটের এই বাড়িই বিক্রির চেষ্টায় ছিলেন সুবীর চাকি৷

নিউ টাউনের বাসিন্দা সুবীরবাবু কলকাতার একটি বেসরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং সংস্থার এমডি৷ গড়িয়াহাটের কাঁকুলিয়া রোডে একটি তিনতলা বাড়ি ছিল তাঁদের (Gariahat Double Murder)৷

  • Share this:

#কলকাতা: গড়িয়াহাটে নিজের বাড়িতেই খুন হলেন বহুজাতিক একটি সংস্থার উচ্চপদস্থ কর্তা এবং তাঁর গাড়ির চালক (Gariahat Double Murder)৷ বাড়ির দোতলা থেকে উদ্ধার হয় সুবীর চাকি (৬১) নামে ওই ব্যক্তির দেহ৷ বাড়ির তিনতলায় পড়েছিল তাঁর গাড়ির চালক রবীন মণ্ডলের (৬৫) দেহ৷ মৃত কর্পোরেট কর্তার নাম সুবীর চাকি এবং তাঁর গাড়ির চালক রবীন মণ্ডল ৷ ঘটনার তদন্তে নেমেছে গড়িয়াহাট থানার পুলিশ ও লালবাজারের হোমিসাইড শাখা (Kolkata Police)৷

নিউ টাউনের বাসিন্দা সুবীরবাবু কলকাতার একটি বেসরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং সংস্থার এমডি৷ গড়িয়াহাটের (Gariahat) কাঁকুলিয়া রোডে একটি তিনতলা বাড়ি ছিল তাঁদের৷ সেই বাড়িটি বেশ কয়েক বছর ধরেই বিক্রি করার চেষ্টা করছিলেন সুবীরবাবু (Gariahat Double Murder)৷ রবিবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ গাড়ির চালক রবীন মণ্ডলকে নিয়ে গড়িয়াহাটের ওই বাড়িতে যান সুবীরবাবু৷

তাঁর পরিবারের দাবি, বাড়ি বিক্রি সংক্রান্ত বিষয়েই কাঁকুলিয়া রোডের বাড়িতে গিয়েছিলেন সুবীর চাকি৷ কিন্তু দীর্ঘক্ষণ সুবীরবাবু না ফেরায় তাঁর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেন তাঁর স্ত্রী এবং মা৷ কিন্তু ফোনে সুবীর বাবু বা তাঁর গাড়ির চালককে পাওয়া যায়নি৷ এর পরই অন্যান্য আত্মীয়দের বিষয়টি জানানো হয়৷

আরও পড়ুন: হরিয়ানায় বেপরোয়া গতিতে বিয়েবাড়ির ৫ অতিথিকে পিষে দিল গাড়ি, মৃত ২!

সুবীরবাবুর এক আত্মীয়ই গড়িয়াহাটের বাড়িতে গিয়ে একতলা এবং দোতলার মধ্যে মেজেনাইন ফ্লোরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ দেখে পুলিশকে খবর দেন৷ এর পর পুলিশ এসে বাড়ির ভিতর থেকে দু' জনের দেহ উদ্ধার করে৷ পুলিশ সূত্রে খবর, মৃত দু' জনেরই ঘাড়, কব্জি এবং পায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল৷ সম্পত্তি কেনাবেচা সংক্রান্ত কোনও বিবাদ থেকেই এই হত্যাকাণ্ড বলে সন্দেহ পুলিশের৷ আবার সম্পত্তি নিয়ে কোনও বিবাদের জেরে ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে খুনের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না তদন্তকারীরা৷

তদন্তকারীদের প্রাথমিক অনুমান, বিক্রির জন্য বাড়ি দেখানোর জন্যই রবিবার বিকেলে সম্ভবত এক বা একাধিক ব্যক্তিকে গড়িয়াহাটের বাড়িতে ডেকেছিলেন সুবীরবাবু৷ কাঁকুলিয়া রোডের একতলায় একটি অফিস ভাড়া দেওয়া রয়েছে৷ সেই অফিসেরই এক কর্মী অরূপ বিশ্বাস জানিয়েছেন, রবিবার দোতলায় ওঠার মেজেনাইন ফ্লোরের দরজা ভিতর থেকে বন্ধ করা ছিল৷ আততায়ীরাই অন্য দিক দিয়ে বাড়িতে ঢুকে ওই দরজা বন্ধ করে দিয়েছিল কি না, সেই প্রশ্নও উঠছে৷

পাশাপাশি, তদন্তকারীদের আরও অনুমান, খুনিরা সম্ভবত সুবীরবাবুর পরিচিতই ছিল৷ সেই কারণেই তাদের বাড়িতে ঢুকতে দিয়েছিলেন বা ডেকেছিলেন ওই কর্পোরেট কর্তা৷ রবিবার বিকেলের পর থেকে কাঁকুলিয়া রোডের ওই বাড়ি থেকে প্রতিবেশীরাও কোনও চিৎকার বা গন্ডগোলের খবর পাননি৷ রবিবার বিকেলে কাঁকুলিয়া রোডের ওই বাড়িতে কারা কারা ঢুকেছেন বা বেরিয়েছেন তা জানতে পাশের একটি বহুতলের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷ পাশাপাশি সুবীরবাবুর ফোনের কল লিস্টও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

তদন্তকারীদের ধারণা, গড়িয়াহাটে সুবীরবাবুর ওই পৈর্তৃক বাড়ির দাম কয়েক কোটি টাকা৷ কম দামে বহুমূল্য ওই সম্পত্তি হাতানোর লোভ থেকেই সুবীরবাবুকে খুন করা হতে পারে বলেও সন্দেহ করছে পুলিশ৷ সুবীরবাবুকে খুন হতে দেখে ফেলার কারণেই তাঁর চালককেও খুন হতে হল কি না, সেই প্রশ্নও উঠছে৷ কিন্তু দু' জনকে একজন আততায়ীর পক্ষে খুন করা সম্ভব নাকি আততায়ীরা সংখ্যায় একের বেশি ছিল, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷ ঘটনাস্থল থেকে রক্ত, আঙুলের ছাপের নমুনা সংগ্রহ করেছে ফরেন্সিক দল৷ সুবীর বাবুর ছেলে লন্ডনে থাকেন, মেয়ে থাকেন বেঙ্গালুরুতে৷ তাঁদেরকেও খবর পাঠানো হয়েছে৷

Published by:Debamoy Ghosh
First published: