অন্ধকার মধ্যপ্রদেশ! জামিনে মুক্ত ধর্ষকের হাতেই ধর্ষণ করে খুন চারের নাবালিকা

প্রতীকী ছবি

গত বছর জুনে ওই শিশুটির কাকিমাকে ধর্ষণ করে জেলে গিয়েছিল সে৷ পনেরোদিন আগেই জামিনে মুক্তি পায় সে৷ তার পরেই ফের তার লালসার শিকার ওই ছোট্ট শিশু৷

  • Share this:

    #মধ্যপ্রদেশ: চার বছরের শিশুকন্যাকে অপহরণ করে ধর্ষণ ও খুনের অভিযোগ৷ ঘটনাটি ঘটেছে মধ্যপ্রদেশের মোরেনা জেলায়৷ বুধবারের এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই গোটা এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে৷ আরেকটি ধর্ষণের ঘটনায় জেল খাটা আসামীই ফের এই শিশুকে ধর্ষণ ও খুন করেছে বলে অভিযোগ৷ অভিযুক্ত কয়েকদিন আগেই জামিনে মুক্তি পেয়েছিল৷ পুলিশ সূত্রে খবর, অভিযুক্তের বয়স ৪০ বছর৷ গত বছর জুনে ওই শিশুটির কাকিমাকে ধর্ষণ করে জেলে গিয়েছিল সে৷ পনেরোদিন আগেই জামিনে মুক্তি পায় সে৷ তার পরেই ফের তার লালসার শিকার ওই ছোট্ট শিশু৷

    পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার রাত থেকেই শিশুটিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না৷ পরিবারের লোকেরা গোটা গ্রামে খোঁজাখুঁজি শুরু করেছিল৷ সেই সময়ই সরষের খেতে রক্তাক্ত অবস্থায় মেয়েটির দেহ দেখতে পান তাঁরা৷ বাড়ি থেকে প্রায় ২০০ মিটার দূরত্বের মধ্যেই মেয়ের দেহ উদ্ধার করে ভীত-সন্ত্রস্ত গোটা পরিবার৷ কান্নায় ভেঙে পড়েছেন সকলে৷ শেষ মেয়েটিকে অভিযুক্তের সঙ্গেই দেখা গিয়েছিল৷ মেয়েটি তাঁর ঠাকুমা-ঠাকুরদার সঙ্গে থাকত৷ তার বাবা-মা দু'জনেই অন্য রাজ্যে শ্রমিকের কাজ করেন৷

    বৃহস্পতিবার ফের ওই ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ তদন্তকারীদের জেরায় নিজের অপরাধ স্বীকার করেছে সে৷ চার বছরের মেয়েটিকে ধর্ষণ করে খুন করে সে৷ তফশিলি আইন-সহ একাধিক ধারায় অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ৷ দোষীর ফাঁসির দাবিতে গ্রামের রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান মৃতের পরিবারের লোকেরা৷ গ্রামবাসীদের বিক্ষোভ থামাতে বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছয়৷

    গ্রামবাসীদের দাবি, অভিযুক্ত শিশুটিকে চকোলেট কিনে দেওয়ার লোভ দেখিয়ে নিয়ে যায়৷ সঙ্গে গ্রামের আরও দুই শিশুও গিয়েছিল সেখানে৷ কিন্তু কোনওক্রমে সেখান থেকে চলে যায় তারা৷ অন্যদিকে, মধ্যপ্রদেশের রেওয়া জেলাতেও আরেকটি ধর্ষণের ঘটনার চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷ ৫ বছরের নাবালিকাকে অপহরণ করে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার৷ মেয়েটি আপাতত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷ পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷ পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে৷

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: