আজ থেকে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু দেশের ৪ রাজ্যে করোনা টিকাকরণ

আজ থেকে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু দেশের ৪ রাজ্যে করোনা টিকাকরণ

আজ সোমবার এবং মঙ্গলবার করোনা টিকার ড্রাই রান করা হবে। এর মাধ্যমে দেখা হবে টিকা কতদূর সংরক্ষণ করা যাচ্ছে।

আজ সোমবার এবং মঙ্গলবার করোনা টিকার ড্রাই রান করা হবে। এর মাধ্যমে দেখা হবে টিকা কতদূর সংরক্ষণ করা যাচ্ছে।

  • Share this:

    #দিল্লি: বছর শেষেই নতুন বিপদ। করোনার নতুন প্রজাতি নিয়ে আতঙ্কে এখন গোটা বিশ্ব। কিন্তু তার মধ্যেই এ দেশে আজ থেকে শুরু হয়ে গেল করোনা প্রতিষেধকের পরীক্ষামূলক টিকাকরণ। আজ, সোমবার এবং মঙ্গলবার এই পরীক্ষা চালানো হবে। এর মাধ্যমে দেখা হবে টিকা কতদূর সংরক্ষণ করা যাচ্ছে। এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যাওয়ার ব্যবধানে টিকার গুণগত মান সঠিক থাকছে না। সেই সঙ্গে কিছু মানুষের টিকাকরণ হবে। এ ছাড়াও টিকা দেওয়ার পরে মানুষের মধ্যে কোনও বিরূপ প্রতিক্রিয়া হচ্ছে কি না তা লক্ষ্য করা হবে। এই সব কিছু বিচার বিবেচনা করার জন্য করোনার ড্রাই রান করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। সূত্র অনুযায়ী জানা গিয়েছে, অন্ধ্রপ্রদেশ, পঞ্জাব, গুজরাত এবং আসাম এই চারটি রাজ্যের করোনার টিকা পরীক্ষা করা হবে। চারটি রাজ্যের দু’টি করে জেলায় করোনার ড্রাই রান চালানো হবে। অন্ধ্রপ্রদেশের কৃষ্ণা জেলায় যে পরীক্ষা করা হবে তার লক্ষ্য হল, পূর্ব পরিকল্পিত ও নির্ধারিত ব্যবস্থা মাফিক পরীক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে কি না তা মূলত খতিয়ে দেখা। এ ছাড়াও পঞ্জাবের লুধিয়ানা, শহিদ ভগৎ সিং নগর, অসমের শোণিতপুর এবং নলবাড়িতে হবে এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ।

    এই চারটি রাজ্যে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পর রাজ্য টাস্ক ফোর্স একটি প্রতিবেদন তৈরি করবে এবং বিরূপ প্রতিক্রিয়া গুলিকে পর্যবেক্ষণ করে কেন্দ্রের কাছে রিপোর্ট পাঠাবে। কেন্দ্রের পরিকল্পনা অনুযায়ী করোনার টিকা প্রথম ধাপে অন্তত ৩০ কোটি মানুষকে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। প্রথম সারির ১ কোটি স্বাস্থ্যকর্মীদের এবং করোনার বিরুদ্ধে যারা সামনে থেকে লড়াই করছেন, প্রায় ২ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে। এছাড়াও নির্দিষ্ট বয়স ও শারীরিক সমস্যা রয়েছে, এরকম ২৭ কোটি মানুষকে আগে টিকা দেওয়া হবে। এর আগে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছিল, শুক্রবার পর্যন্ত সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে টিকা দেওয়ার প্রশিক্ষণ সমাপ্ত হয়েছে। এতে অংশ নিয়েছিলেন ৭ হাজার প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মীরা। শুধুমাত্র লাক্ষাদ্বীপে তা হবে ২৯শে ডিসেম্বর।

    Published by:Somosree Das
    First published: