• Home
  • »
  • News
  • »
  • coronavirus-latest-news
  • »
  • ভারতই ভরসা, নরেন্দ্র মোদিকে ফোন করে ভ্যাকসিন চাইলেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী

ভারতই ভরসা, নরেন্দ্র মোদিকে ফোন করে ভ্যাকসিন চাইলেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী

এছাড়াও ওই ফোনালাপে দুই দেশ জলবায়ু পরিবর্তন এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সহায়তা চালিয়ে যাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বলে ট্যুইট বার্তায় জানিয়েছেন মোদি

এছাড়াও ওই ফোনালাপে দুই দেশ জলবায়ু পরিবর্তন এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সহায়তা চালিয়ে যাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বলে ট্যুইট বার্তায় জানিয়েছেন মোদি

এছাড়াও ওই ফোনালাপে দুই দেশ জলবায়ু পরিবর্তন এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সহায়তা চালিয়ে যাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বলে ট্যুইট বার্তায় জানিয়েছেন মোদি

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে ফোন করে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন চাইলেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো । এছাড়াও ওই ফোনালাপে দুই দেশ জলবায়ু পরিবর্তন এবং অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সহায়তা চালিয়ে যাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বলে ট্যুইট বার্তায় জানিয়েছেন মোদি। এছাড়া কানাডার প্রধানমন্ত্রীর তরফে ট্যুইট বার্তাতে ফোনালাপের কথা জানানো হয়েছে। ভারতে ক্রমাগত চলতে থাকা কৃষক আন্দোলন নিয়ে কানাডার প্রধানমন্ত্রী উদ্বেগ প্রকাশের পর তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখায় দিল্লি। এতে উভয় দেশের মধ্যে সম্পর্কের অবনতির আভাস পাওয়া যায়। তবে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর ফোনালাপে সম্পর্কের উন্নতি হবে বলে আশা করছেন অনেকেই। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এক ট্যুইট বার্তায় জানিয়েছেন, কানাডার প্রত্যাশিত ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাবে দিল্লি। পরে কানাডার প্রধানমন্ত্রী অপর এক ট্যুইট বার্তায় জানান গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি ইস্যুতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে তাঁর। পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ বজায় রাখতেও সম্মত হয়েছেন তাঁরা।

    ভারতীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করা অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন নিতে চায় কানাডা। অটোয়ার ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে এই ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা। ওষুধটি আমদানিতে সেরামের সঙ্গে কাজ করছে কানাডার প্রতিষ্ঠান ভ্যারাইটি ফার্মাসিউটিক্যালস। উল্লেখ্য, কানাডার টিকাদান কর্মসূচিতে বর্তমানে ব্যবহার হচ্ছে ফাইজার ও মডার্নার তৈরি টিকা। তবে এই টিকার সরবরাহে ঘাটতি থাকায় বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরে সমালোচনার মুখে পড়েছে ট্রুডোর সরকার। এর আগে, দেশের কৃষক আন্দোলন নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। তাঁর মন্তব্যের জেরেই ভারতের বিদেশ মন্ত্রক থেকে ডেকে পাঠানো হয় কানাডার হাই কমিশনারকে। তাঁকে ভালভাবে বুঝিয়ে দেওয়া হয় যে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর এই ধরণের মন্তব্য মোটেও ভাল চোখে দেখছে না ভারত৷ এর ফলে দু’দেশের কুটনৈতিক সম্পর্কে খারাপ প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করা হয় ৷

    Published by:Simli Dasgupta
    First published: