corona virus btn
corona virus btn
Loading

ড্রাগ কন্ট্রোলারের নোটিস, ভারতেও ভ্যাকসিন ট্রায়াল বন্ধ করছে সিরাম ইনস্টিটিউট

ড্রাগ কন্ট্রোলারের নোটিস, ভারতেও ভ্যাকসিন ট্রায়াল বন্ধ করছে সিরাম ইনস্টিটিউট
Representational Image

স্বেচ্ছাসেবক অসুস্থ হয়ে পড়ায় ব্রিটেনে তাদের পরীক্ষা সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে AstraZeneca। যার প্রভাব পড়েছে ভারতেও।

  • Share this:

#পুণে: করোনা ভ্যাকসিনে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। অজানা অসুখের শিকার এক স্বেচ্ছাসেবক। তাই, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের টিকার ট্রায়াল সাময়িক স্থগিত। তবে, ভ্যাকসিনের পরীক্ষা-নিরীক্ষায় এমন ঘটনা স্বাভাবিক। এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনাকে নিশ্চিহ্ন করতে দরকার ভ্যাকসিন। সেই ভ্যাকসিনের দৌড়ে, অনেকটাই এগিয়ে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় এবং ওষুধ প্রস্তুতকারক অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথ উদ্যোগ। সব চলছিল ঠিকঠাক। কিন্তু, তৃতীয় অর্থাৎ চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়ালে হঠাৎ বিপত্তি। অজানা অসুখে আক্রান্ত হলেন এক স্বেচ্ছাসেবক ৷ ভ্যাকসিন নেওয়ার পরেই স্বেচ্ছাসেবক অসুস্থ হয়ে পড়েন ৷

স্বেচ্ছাসেবক অসুস্থ হয়ে পড়ায় ব্রিটেনে তাদের পরীক্ষা সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে AstraZeneca। যার প্রভাব পড়েছে ভারতেও। ভারতে সিরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে হাত মিলিয়ে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও সুইডিশ সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি প্রতিষেধক কোভিশিল্ডের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হওয়ার কথা ছিল। ব্রিটেনের ওই ঘটনার উল্লেখ করে আজ রাতে সিরামকে পাঠানো নোটিসে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অব ইন্ডিয়া (DCGI) জানতে চেয়েছে, ব্রিটেনে যেখানে নিরাপত্তাজনিত কারণে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, সেখানে ভারতে কেন তা চালু থাকবে? যত ক্ষণ না রোগীর সুরক্ষার বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে, তত ক্ষণ কেন সিরামকে পরীক্ষামূলক প্রয়োগের প্রশ্নে ছাড়পত্র দেওয়া হবে? জবাবে সিরাম বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, সংস্থা সরকারের সমস্ত নিয়ম মেনে চলতে বাধ্য। দেশের মাটিতে তৈরি হতে চলা টিকাটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘কোভিশিল্ড’। সম্প্রতি DCGI-এর অনুমতি নিয়েই দেশের মাটিতে এই ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু করে সিরাম। দেশের মোট ২০টি জায়গায় ১৬০০ মানুষের উপর এই ট্রায়ালের প্রক্রিয়া শুরুও হয়েছিল। কিন্তু তা আপাতত বন্ধ করে দেওয়া হল ৷

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ধরা পড়তেই, চূড়ান্ত পর্যায়ের হিউম্যান ট্রায়াল সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন গবেষকরা। তবে, বিশেষজ্ঞদের অনেকেই বলছেন, ভ্যাকসিন বা ওষুধের ট্রায়ালে এমনটা হয়েই থাকে। এতে দুশ্চিন্তার কোনও কারণই নেই। বিশ্বে নানা জায়গায় ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছিল ৷ ভারতেও ট্রায়ালের অনুমতি পেয়েছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকা ৷ সব দেশেই ট্রায়াল আপাতত স্থগিত রাখা হচ্ছে ৷

কেন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া? কী ধরণের অসুখ স্বেচ্ছাসেবকের? গোপন রেখেছেন গবেষকরা। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার বিষয়ে পর্যালোচনার পর, ফের শুরু হবে ট্রায়াল। সব ঠিক থাকলে, এই বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরুতেই, বিশ্বকে করোনার ভ্যাকসিন উপহার দেওয়ার বিষয়ে আশাবাদী অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রোজেনেকা।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: September 10, 2020, 6:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर