Oxygen Crisis : চূড়ান্ত কালোবাজারি দিল্লিতে! দিল্লির বেশ কয়েকটি রেস্তোরাঁ থেকে উদ্ধার ৫২৪ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর

অক্সিজেন আকালে বাড়ছে কালোবাজারি প্রতীকী ছবি

দিল্লি পুলিশ (Delhi Police) সূত্রে জানা গিয়েছে খান মার্কেটের একাধিক রেস্তোরাঁতে(Restaurant) বাক্সবন্দি অবস্থায় মজুত করে রাখা হয়েছিল অক্সিজেন কনসেনট্রেটরগুলি (Oxygen concentrator)।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি : অতিমারীতে (Coronavirus Pandemic) ভয়াবহ আকার নিয়েছে অক্সিজেন সংকট(Oxygen Crisis)। দিল্লিতে অক্সিজেনের আকাল যত প্রকট হয়েছে ততই পাল্লা দিয়ে চলছে কালোবাজারি (Black Marketing of Oxygen)। তারই ভয়ঙ্কর ছবি দেখা গেল রাজধানীর খান মার্কেট এলাকায়। গত দুদিন ধরে প্রাচীন এই বাজার এলাকায় বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় তল্লাশি অভিযান চালিয়ে প্রায় ৫২৪ টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর বাজেয়াপ্ত করল পুলিশ। মাত্র একটি রেস্তোরাঁ থেকেই শুক্রবার বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে ৯৬টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর।

    দিল্লি পুলিশ(Delhi Police) সূত্রে জানা গিয়েছে খান মার্কেটের একাধিক রেস্তোরাঁতে বাক্সবন্দি অবস্থায় মজুত করে রাখা হয়েছিল অক্সিজেন কনসেনট্রেটরগুলি। নবনীত নামে এক ব্যক্তি এই রেস্তোরাঁগুলির মালিক বলে জানিয়েছে পুলিশ। তিনি ও তাঁর ব্যবসায়িক পার্টনার ঘটনার পর থেকে পলাতক। তাঁদের খোঁজে তল্লাশি চালু করেছে দিল্লি পুলিশ। এখনও পর্যন্ত ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

    পুলিশ সূত্রে খবর, এই অক্সিজেন কনসেনট্রেটরগুলি সুযোগ বুঝে মোটা দামে বিক্রি করত নবনীত ও তার চক্র। এক একটি অক্সিজেন কনসেনট্রেটর প্রায় ৭০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হত।রেস্তোরাঁর ভিতরে কীভাবে অক্সিজেন কনসেনট্রেটর মজুত করে রাখা হয়েছে, তার ভিডিয়ো প্রকাশ করেছে এএনআই। দিল্লি পুলিশ সূত্রে প্রাপ্ত সেই ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে কীভাবে বাক্স বাক্স অক্সিজেন কনসেনট্রেটর রেখে দেওয়া হয়েছে কালোবাজারির জন্য। দেখুন সেই ভিডিয়ো।

    নয়াদিল্লিতেই গত তিন সপ্তাহে ৭৫টি কালোবাজারি চক্র গ্রেফতার হয়েছে। চড়া দামে অক্সিজেন-ওষুধ বিক্রি করার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছে ৯০ জনেরও বেশি। দিল্লি হাসপাতাল গুলিতে এদিকে ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছে অক্সিজেন সংকট। তাই বাধ্য হয়ে কালোবাজার থেকেই আগুন মূল্যের অক্সিজেন কিনছেন মরিয়া রোগীর পরিজনেরাও।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: