corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা সংক্রমণে মৃত্যু মহিলার! মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ আমান্য করে গুজব ছড়িয়ে গ্রেফতার ব্যক্তি

করোনা সংক্রমণে মৃত্যু মহিলার! মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ আমান্য করে গুজব ছড়িয়ে গ্রেফতার ব্যক্তি
প্রতীকী ছবি

টিভি চ্যানেলের লোগো ব্যবহার করে গুজব ছড়ানোর অভিযোগ ধৃতের বিরুদ্ধে।

  • Share this:

#মেমারিঃ এমনিতেই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ভয়ে আতঙ্কিত বাসিন্দারা। তার উপর দোসর গুজব। গুজব ছড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাতে বিভ্রান্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। তাই গুজব রুখতে তৎপরতা বাড়াচ্ছে পুলিশ। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এক ব্যক্তিকে ঘ্রেফতার করেছে পুলিশ। কোথায় ঘটল এমন ঘটনা!

টিভি চ্যানেলের লোগো ব্যবহার করে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পূর্ব বর্ধমানের মেমারি থানার পুলিশ। ধৃতের নাম শম্ভুনাথ পান। তিনি গ্রামীণ পোস্ট অফিসের পোস্টমাস্টার। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বর্ধমান থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, তিনি সোসাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেন। তাতে বলা হয়, 'ভয়াবহ করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে পূর্ব বর্ধমানের মেমারিতে এক মহিলার মৃত্যু হয়েছে। তিনি ছ'দিন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।" এমনকি, খবরের সত্যতা মানুষকে বোঝাতে তাতে নিউজ চ্যানেলের লোগোও ব্যবহার করা হয়। এই ঘটনার পরই শহরের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক   ছড়িয়ে পড়ে।

শম্ভুনাথ পান শম্ভুনাথ পান

পোস্ট ছড়িয়ে পড়তেই তার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। মেমারি থানায় এ ব্যাপারে অভিযোগ দায়ের হয়। অভিযোগ পেয়ে নড়েচড়ে বসে পুলিশ। জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগেরও সাহায্য নেওয়া হয়। ঘটনার তদন্তে নেমে শম্ভুনাথ পান নামে এক ব্যক্তি এই গুজব ছড়িয়েছে বলে চিহ্নিত করে পুলিশ। এরপর তাকে বর্ধমান থেকে গ্রেফতার করা হয়। ধৃতকে শুক্রবার বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। যদি শম্ভুনাথ পানের দাবি,  তিনি এই পোস্ট তৈরি করেননি। তাঁর এক পরিচিত নাকি তাঁকে  হোয়াটস অ্যাপে এই পোস্ট শেয়ার করেন। আর তা সত্যি ভেবে তিনি সামাজিক কর্তব্যবোধ থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোষ্ট করেন। উদ্দেশ্য ছিল মানুষকে সচেতন করা। যদি তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এদিকে, গুজবে কান না দিয়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরও এক শ্রেণীর বাসিন্দা সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে গুজব ছড়ানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁর জেরে আতঙ্কিত হয়ে পড়ছেন বাসিন্দারা। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, গুজব সৃষ্টিকারীদের কোনও ভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। তাদের চিহ্নিত করে আইনানুগ কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে। আর এই গুজব রুখতে সাইবার ক্রাইম শাখাকে আরও তৎপর থাকার পরামর্শ দিয়েছে জেলা পুলিশ।

Saradindu Ghosh

First published: March 20, 2020, 2:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर