মসজিদের সেবায়েত বৃদ্ধ করোনাকে হারিয়ে ইদের দিনে হাসপাতালের করিডরে অপেক্ষায় বাড়ি ফেরার জন্য

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ কমে যাক , ইদের পবিত্র দিনে এটাই চাইলেন ধার্মিক প্রৌঢ়

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ কমে যাক , ইদের পবিত্র দিনে এটাই চাইলেন ধার্মিক প্রৌঢ়

  • Share this:

#কলকাতা: বাড়ি থাকলে একসময় ব্যস্ততার অন্ত ছিল না।কারণ রমজান মাসের পর ইদ নতুন জামা কাপড় পরা, এলাকার মানুষের বাড়ি যাওয়া, খোঁজ রাখা, সেমাই সহ অন্যান্য উপাদেয় খাবার খাওয়া, মসজিদের হাজারো ব্যস্ততার মধ্যেও ধর্মপ্রাণ এই মুসলিম সেবায়েত এর ফুরসত ফেলার সময় থাকত না। আর সোমবার ছিল তার জীবনে অন্য এক ব্যতিক্রমী ইদ উল ফিতর।

এই ইদে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় এই মুসলিম প্রৌঢ়। গার্ডেনরিচ বটতলার মসজিদের সেবায়েত এই প্রৌঢ়। মে মাসের ৭ তারিখ জ্বর, গলা ব্যথা শুরু হয়। প্রথমে গার্ডেনরিচ সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল, সেখান থেকে এই বৃদ্ধের লালা রস পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয় SSKM হাসপাতালে। রিপোর্ট আসলে দেখা যায় করোনা পজিটিভ। তাকে স্থানান্তরিত করা হয় কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। ১০ মে থেকে এই প্রৌঢ়ের ঠিকানা হয় কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ।

করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরেও একফোঁটা মনোবল হারান নি। আতঙ্ক এক মুহূর্তের জন্যেও গ্রাস করে নি তাকে। তবে রোজা রাখতে না পারার জন্য কিছুটা মনোকষ্ট ছিল। সোমবার ১৫ দিন পরে করোনা জয় করে ঈদের দিন বাড়ি ফিরলেন এই প্রৌঢ়। তবে ইদের দিন আলাদা করে কিছু না করতে পারার জন্য কোনো দুঃখ নেই। আল্লাহ সবাইকে যেনো সুস্থ রাখে সেই প্রার্থনাই করছেন এই ধর্মপ্রাণ প্রৌঢ়। তাঁর একটাই কথা, 'করোনা নিয়ে অযথা আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। আর পাঁচটা অসুখের মতো এই অসুখ। সঠিক চিকিৎসা এবং নিয়ম নীতি মানলে এই রোগে কোনো ভয় নেই। আর মানুষ যেনো যারা করোনা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন, অথবা করোনা রোগের চিকিৎসা করছেন,তাদের যেনো কোনোভাবেই তাদের অচ্ছুত না ভাবে।'

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসা পরিষেবা নিয়ে সন্তুষ্ট এই বৃদ্ধ। সোমবার দুপুর থেকেই হাসপাতালে আসেন তার পুত্র ও পরিবারের সদস্যরা। আলাদা করে উচ্ছসিত না হয়ে বরং মানুষ যেনো সতর্ক ও সচেতন থাকে, সেই বার্তাই জানান এই বৃদ্ধ। ইদ আগামীদিনে আরো অনেক আসবে,আলাদা করে এই দিনে বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য বিশেষ কোনো অনুভূতি নেই,বরং আম ফান ঘূর্ণিঝড় এর প্রভাবে বহু মানুষ যেমন অসহায় অবস্থায় পড়েছে,তাতে সবাই যেনো সেই অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়ায়। ইদের নতুন জামাকাপড় নাই বা হক, আর্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোই এই সময়ের সবথেকে বড়ো কর্তব্য বলে জানান তিনি।

ABHIJIT CHANDA

Published by:Debalina Datta
First published: