Kumbh Mela : ১ লক্ষ ভুয়ো কোভিড টেস্ট! কুম্ভমেলায় বড়সড় বেনিয়মের হদিস হরিদ্বারে...

বেনিয়মের অভিযোগে কুম্ভমেলা

এবার ভারতের বৃহত্তম ধর্মীয় মিলন উৎসব 'কুম্ভমেলা' (Kumbh Mela) নিয়ে উঠে এল বড়সড় বেনিয়মের তত্ত্ব। সূত্রের খবর, কুম্ভমেলায় সাধু-সন্তদের করোনা পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা একটি বেসরকারি ল্যাব টার্গেট পূরণ করতে একের পর এক মারাত্মক দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছে।

  • Share this:

    #হরিদ্বার : সুপার স্প্রেডারের তকমা জুটেছিল আগেই। এবার ভারতের বৃহত্তম ধর্মীয় মিলন উৎসব 'কুম্ভমেলা' (Kumbh Mela) নিয়ে উঠে এল বড়সড় বেনিয়মের তত্ত্ব। সূত্রের খবর, কুম্ভমেলায় সাধু-সন্তদের করোনা পরীক্ষার দায়িত্বে থাকা একটি বেসরকারি ল্যাব টার্গেট পূরণ করতে একের পর এক মারাত্মক দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছে। উত্তরাখন্ড সরকারের নিযুক্ত করা ওই বেসরকারি সংস্থা এক লক্ষ ভুয়ো কোভিড টেস্ট রিপোর্ট দেয় বলেও জানা গিয়েছে তদন্তে। ইতিমধ্যেই বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা হরিদ্বার কুম্ভমেলাকে (Kumbh Mela) দেগে দিয়েছে সুপার স্প্রেডার ইভেন্ট হিসেবে। ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের পিছনে বিশেষজ্ঞরাও অনেকে এই লক্ষ লক্ষ মানুষের জমায়েতকে দায়ী করছেন। এরইমধ্যে এই নতুন তথ্য উঠে আসায় নতুন করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

    কুম্ভমেলা নিয়ে কোভিড (Covid-19) বিধি না মানা ও ভুয়ো টেস্ট সংক্রান্ত একাধিক বেনিয়মের অভিযোগ ওঠায় তদন্ত শুরু করেছিল হরিদ্বার (Haridwar) জেলা প্রশাসন। তদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট আসতেই চোখ কপালে উঠছে তাঁদের। দেখা যাচ্ছে মেগা ইভেন্টে করোনা পরীক্ষার টার্গেট পূরণ করতে একাধিক দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছে টেস্টিং এর দায়িত্বে থাকা সংস্থা। যা রীতিমতো বিপজ্জনক।

    তদন্তের রিপোর্টে বলা হয়েছে ওই বেসরকারি ল্যাবটি কুম্ভমেলায় অন্তত ১ লক্ষ ভুয়ো করোনা রিপোর্ট পেশ করেছে। এই করোনা রিপোর্টগুলি দেওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষের নামে। যারা হয়তো কুম্ভমেলাতে অংশগ্রহণও করেনি। শুধু তাই নয়, ওই বেসরকারি সংস্থা নাকি একটি মাত্র কিট থেকে ৭০০ জনের করোনা (Coronavirus) পরীক্ষা করেছে বলে দেখানো হয়েছে। আবার স্যাম্পল সংগ্রহের জন্য যে ২০০ জনের নাম দেওয়া হয়েছিল, তাঁদের অধিকাংশই স্বাস্থ্যকর্মী নন। তাঁরা হয় ডেটা এন্ট্রি অপারেটর, নাহয় পড়ুয়া। এদের মধ্যে অনেকে আবার রাজস্থানের বাসিন্দা। বেনিয়মের আরও বাকি আছে, ওই সংস্থাটি নাকি একই মোবাইল নম্বর দিয়ে ৫০ জন পর্যন্ত মানুষের নাম রেজিস্টার করিয়েছে।

    হরিদ্বার কুম্ভমেলা নিয়ে এমনিতেই দেশজুড়ে বিতর্ক। বিরোধীরা তো বটেই বিদেশি বহু সংস্থাও এই বড়সড় ধর্মীয় জমায়েতকেই ভারতে কোভিড ছড়ানোর এবং নতুন কোভিড স্ট্রেন উৎপন্ন হওয়ার অন্যতম কারণ হিসেবে তুলে ধরেছে। এমনকী WHO-ও নাম না করে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য এই বিপুল জনসমাবেশকে বিঁধেছে। আর সেখানেই কোভিড প্রোটকল সংক্রান্ত মারাত্মক সব অনিয়মের অভিযোগ উঠছে। স্বাভাবিকভাবেই, প্রশ্ন উঠে যাচ্ছে উত্তরাখণ্ড সরকারের ভূমিকা নিয়ে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: