করোনা ভাইরাস

corona virus btn
corona virus btn
Loading

১৫ অগাস্টেই করোনার ভ্যাকসিন লঞ্চের প্রস্তুতি ICMR-এর, এটা কি বাস্তবসম্মত?

১৫ অগাস্টেই করোনার ভ্যাকসিন লঞ্চের প্রস্তুতি ICMR-এর, এটা কি বাস্তবসম্মত?
Representative Image

১২টি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সাইটের মধ্যে রয়েছে, এইমস-দিল্লি, এইমস পটনা, NIMS- হায়দরাবাদ, PGIMS-রোহতক, কিং জর্জ হাসপাতাল (বিশাখাপত্তনম) ইত্যাদি৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: স্বাধীনতা দিবস অর্থাত্‍ ১৫ অগাস্টে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন (Covaxin) লঞ্চ করার পরিকল্পনা করেছে ICMR (ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ)৷ ভ্যাকসিনটি তৈরি হয়েছে হায়দরাবাদের সংস্থা ভারত বায়োটেক ও আইসিএমআর-এর যৌথ উদ্যোগে৷ দ্রুত ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ ICMR ও ভারত বায়োটেক ভ্যাকসিনটির ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের উপর কাজ শুরু করে দিয়েছে৷

Covaxin-এর মানব শরীরে ট্রায়াল চলতি মাসেই শুরু হয়ে যাচ্ছে৷ প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ভাল ফল মিলেছে ওই ভ্যাকসিনের৷ বিশ্বের সবচেয়ে সস্তা হেপাটাইটিস ভ্যাকসিনও এই ভারত বায়োটেক-ই তৈরি করে৷ একই সঙ্গে বিশ্বের প্রথম সংস্থা, যারা জিকা ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করেছে৷ ভারত বায়োটেকের চেয়ারম্যান ও এমডি কৃষ্ণ এল্লা ভারতের মলিকিউলার রিসার্চের পথিকৃত৷ তামিলনাড়ুর এক কৃষকের ছেলে কৃষ্ণ অন্ধ্রপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে একটি বায়োটেক পার্ক তৈরির পরামর্শ দিয়েছিলেন৷ পরে তা বিখ্যাত৷

পোলিও, র‌্যাবিস, রোটাভাইরাস, জাপানি এনসেফালাইটিস ও চিকুনগুনিয়ার ভ্যাকসিনও তৈরি করে এই সংস্থাটি৷ ICMR-এর ডিরেক্টর জেনারেল বলরাম ভার্গব ভারত বায়োটেক-কে চিঠিতে লিখেছেন, 'BBV152 COVID ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সাইট হিসেবে আপনাদের বাছা হয়েছে৷ করোনা ভাইরাসের জেরে তৈরি হওয়া জনস্বাস্থ্য আপত্কা‍লীন অবস্থায় দ্রুত ভ্যাকসিন লঞ্চ করা অত্যন্ত জরুরি৷ তাই ৭ জুলাইয়ের মধ্যে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের যাবতীয় প্রস্তুতি সেরে ফেলতে হবে৷  এই প্রকল্পকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে শেষ করতে হবে৷'

১২টি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সাইট বাছা হয়েছে৷ রয়েছে, এইমস-দিল্লি, এইমস পটনা, NIMS- হায়দরাবাদ, PGIMS-রোহতক, কিং জর্জ হাসপাতাল (বিশাখাপত্তনম) ইত্যাদি৷ ভারত বায়োটেক ইতিমধ্যে জানিয়েছে, প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের সব প্রক্রিয়াতে সাফল্য মিলেছে৷ গোটা প্রক্রিয়াটি ICMR মনিটরিং করেছে৷ সংস্থার এ বার প্রাথমিক ভূমিকা হল, ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করা৷ তাতে সাফল্য পেলে কয়েক কোটি ডোজ তৈরি করা৷ সংস্থা জানিয়েছে, গোটা দেশকে ভ্যাকসিন সাপ্লাই করার মতো ক্যাপাসিটি তাদের নেই৷

কেন ভারত বায়োটেককে বাছা হল? ভারত বায়োটেকের সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করছে ICMR৷ এর আগে রোটাভাইরাস ও H1N1 ভ্যাকসিন তৈরিতেও যৌথ ভাবে কাজ করেছে৷ সূত্রের খবর, হায়দরাবাদের জেনম ভ্যালিতে সংস্থার বায়ো সেফটি লেভেলে-৩ কন্টেইনমেন্ট ফেসিলিটিতে তৈরি করা হবে ভ্যাকসিনটি৷ এই ধরনের ভ্যাকসিন বিএসএল-৩ কন্টেইনমেন্ট ফেসিলিটিতে তৈরি করা উচিত বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা৷

১৫ অগাস্টের মধ্যে করোনার ভ্যাকসিন কতটা বাস্তব সম্মত?

সাধারণ দৃষ্টিতে দেখলে, এটা অসম্ভব৷ একটি ভ্যাকসিনের প্রি-ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালেই সময় লাগে অন্তত ৬ মাস৷ তবে যেহেতু করোনা অতিমারি জনস্বাস্থ্য আপতকালীন অবস্থা, তাই সরকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সম্পর্কিত যাবতীয় অনুমোদনে দ্রুত ছাড়পত্রের ব্যবস্থা করেছে৷

ভ্যাকসিন বিশেষজ্ঞ ও Hilleman ল্যাবস-এর প্রাক্তন সিইও দেবেন্দ্র গিল CNBC-TV18-কে জানিয়েছেন, বিজ্ঞানসম্মত ভাবে ১৫ অগাস্টের মধ্যে ভ্যাকসিন আনা সম্ভব নয়৷ তাঁর কথায়, 'ICMR-এর স্বীকার করা উচিত, ওটা টাইপো হয়েছে৷ ডেটটা হওয়া উচিত ছিল ২০২১ সাল৷ তা হলে গণহিস্টিরিয়া হত না৷ বাস্তবে থাকতে পারত মানুষ৷'

সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়ার এগজিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরেশ যাদবও ICMR-এর ভ্যাকসিন লঞ্চের ডেডলাইন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন৷ তাঁর কথায়, 'আমার মতে, ১৫ অগাস্টের মধ্যে ভ্যাকসিন লঞ্চ করা সম্ভব নয়৷'

Rounak Kumar Gunjan

Published by: Arindam Gupta
First published: July 4, 2020, 1:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर