Congress On Modi Tears : 'ভাষণ না দিয়ে কাজের কাজটি করুন!' মোদিকে তীব্র কটাক্ষ কংগ্রেসের

চোখের জল নিয়ে কটাক্ষ কংগ্রেসের Photo : Collected

কোভিডে মৃতদের প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আবেগে কার্যত কেঁদে ফেলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)। আর তাই নিয়েই তীব্র আক্রমণে রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi) ও কংগ্রেসের (Congress) অন্যান্য নেতারা। মোদির কান্নাকে কটাক্ষ করে তাঁরা বলেন, "রাজনীতির মঞ্চে ভাষণ না দিয়ে কাজের কাজ করা উচিত মোদির।"

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি : দেশজুড়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ (Coronavirus Second Wave) চলছে। কোভিড সংক্রমণের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস (Black Fungus)। পরিস্থিতির সামনে কার্যত ভেঙে পড়েছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা। এই অবস্থায় কোভিডে মৃতদের প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে আবেগে কার্যত কেঁদে ফেলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)। আর তাই নিয়েই তীব্র আক্রমণে রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi) ও কংগ্রেসের (Congress) অন্যান্য নেতারা। মোদির কান্নাকে কটাক্ষ করে তাঁরা বলেন, "রাজনীতির মঞ্চে ভাষণ না দিয়ে কাজের কাজ করা উচিত মোদির।"

    দেশের পরিস্থিতির কথা তুলে ধরতে গয়ে চোখ জলে ভিজে আসে তাঁর। আর সেই প্রসঙ্গ টেনেই মোদিকে সমালোচনা করতে ছাড়ল না কংগ্রেস। টুইটারে মোদিকে কটাক্ষ করতে গিয়ে পবন খেরা লিখেছেন, ''যারা গুজরাতের সময় থেকে সাহেবকে চেনেন তাঁরা জানাবে যে রাজনীতি না করতে এলে সিনেমাতে অভিনয় করতেন উনি''। এতে সিনেমা জগত উপকৃত হত। কিন্তু এখন দেশটা ধ্বংস হয়ে গিয়েছে। এভাবেই প্রধানমন্ত্রী মোদির নাম না করে কটাক্ষ ছুঁড়ে দেন কংগ্রেসের এই মুখপাত্র।

    গড়িমসির অভিযোগ আনলেন কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধি গড়িমসির অভিযোগ আনলেন কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধি    Photo : File Photo

    দেশজুড়ে কোভিড টিকাকরণে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে গড়িমসির অভিযোগ আনলেন কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধি ৷ একটি রিপোর্ট তুলে ধরে তিনি টুইটে ফের নিশানা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ৷ সরাসরি তাঁকে সম্বোধন করে ট্যুইটে রাহুল লিখেছেন, "মিস্টার মোদি, টিকাকরণ করুন! গড়িমসি করবেন না৷" ট্যুইটারে রাহুল যে প্রতিবেদনটি পোস্ট করেছেন তাতে দাবি করা হয়েছে যে, দেশের ৭০ শতাংশ জেলা প্রতি ১০০ জন নাগরিকের জন্য ২০ টিরও কম কোভিড টিকার ডোজ পেয়েছে৷

    প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জেলাস্তরে জনসংখ্যার সরকারি হিসেব পাওয়া যায়নি৷ তবে ২০১১ সালের জনগণনার তথ্য অনুযায়ী বিভিন্ন জেলার টিকাকরণের একটি হিসেব মিলেছে৷ তাতে দেখা যাচ্ছে, দেশের ৭০ শতাংশ জেলা অর্থাত্ মোট ৬৩৯টি জেলার মধ্যে ৪৪৮টি জেলা প্রতি ১০০ জন জনসংখ্যার জন্য ২০ টিরও কম কোভিড টিকা পেয়েছে৷ ১৮৭ জেলার দুই-তৃতীয়াংশ ১০০ জন জনসংখ্যা পিছু ১০ টি ডোজ পেয়েছে৷ এই জেলাগুলি মূলত উত্তরপ্রদেশ, বিহার ও তামিলনাড়ুর ৷ এই তিন রাজ্যের ৮০ শতাংশেরও বেশি জেলা ১০০ জন জনসংখ্য়ার জন্য ১০ টি কোভিড ডোজ পেয়েছে৷

    শুধু কংগ্রেস নয়, এদিন একই ভাবে প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করেছেন আরজেডিও। আরজেডি তরফ থেকে বলা হয়েছে "এই সমস্ত নাটক বন্ধ করা উচিত। তাঁরা বলছে, আপনি কি জানেন না গঙ্গা বুজে আসছে! হাসপাতাল ভরে গিয়েছে। শ্মশান উপচে পড়ছে। কুমীরের কান্নার কেঁদে উনি কোনও সমবেদনা পাবেন না। উনি তো মানুষ যখন মরে যাচ্ছে তখন ভোটের কাজে ব্যস্ত ছিলেন।"

    উল্লেখ্য, শুক্রবার বারাণসীর চিকিৎসকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকের মাঝেই কোভিডে মৃতদের কথা স্মরণ করে আবেগ তাড়িত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী। ছলছল চোখে গলা বুজে আসে তাঁর। করোনায় মৃতদের স্মরণ করেন তিনি। তাঁদের পরিবারের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রায় প্রতিদিনই করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শুক্রবার সকালে বারাণসীর চিকিৎসক এবং প্যারামেডিকেল স্টাফদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানেই করোনায় মৃতদের কথা বলতে গিয়ে আবেগ তাড়িত হয়ে পড়েন তিনি। কার্যত কেঁদেই ফেলেন তিনি।

    বস্তুত, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশজুড়ে মৃত্যুর হার যেমন বেড়েছে তেমণ সংক্রমণের হারও ভয়ঙ্কর। বিশেষ করে বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলির অবস্থা আরও ভয়াবহ। আর এই অবস্থার জন্যে কেন্দ্রের ব্যর্থতাকেই দায়ি করছে বিরোধীরা। বিরোধীদের তোপ, এভাবে দেশের মানুষকে আর উনি ভোলাতে পারবেন না।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: