রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামো উন্নত করুন, মমতাকে পাল্টা চিঠি হর্ষ বর্ধনের

মমতাকে চিঠি হর্ষ বর্ধনের৷

চিঠিতে হর্ষ বর্ধন যুক্তি দিয়েছেন, করোনার টিকাকরণের যে কর্মসূচি কেন্দ্র নিয়েছে, তার উদ্দেশ্য হল ধাপে ধাপে দেশের সব মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া৷

  • Share this:

    #কলকাতা: ভ্যাকসিন, অক্সিজেনের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে একের পর চিঠি লিখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এবার পাল্টা মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন৷ চিঠিতে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী দাবি করেছেন, অবিলম্বে রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিকাঠামো উন্নয়ন করা প্রয়োজন৷

    শুক্রবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এই চার পাতার চিঠি লিখেছেন হর্ষ বর্ধন৷ সেখানে পাল্টা রাজ্যের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগের আঙুল তুলেছেন তিনি৷ হর্ষ বর্ধনের অভিযোগ, রাজ্যের বেশ কিছু জেলায় পজিটিভিটি রেট ৪০ শতাংশের বেশি৷ অবিলম্বে রাজ্যে টেস্টের সংখ্যা বাড়ানোরও পরামর্শ দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী৷

    করোনা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে লেখা মুখ্যমন্ত্রীর চিঠির কথা উল্লেখ করে হর্ষ বর্ধন দাবি করেছেন, শুধু অর্থনৈতিক নয়, করোনা অতিমারি সামাল দিতে কেন্দ্রীয় সরকার প্রতিটি রাজ্যকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জাম, পণ্য, পরিষেবা সহ যাবতীয় সবরকম সাহায্য করছে৷ করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পশ্চিমবঙ্গকেও মোদি সরকার সবরকম সহযোগিতা করবে বলে দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী৷

    চিঠিতে হর্ষ বর্ধন যুক্তি দিয়েছেন, করোনার টিকাকরণের যে কর্মসূচি কেন্দ্র নিয়েছে, তার উদ্দেশ্য হল ধাপে ধাপে দেশের সব মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া৷ ভ্যাকসিন প্রাপকদের বিভিন্ন বয়সে ভাগ করে দেওয়া হচ্ছে তাঁদের আক্রান্ত হওয়া এবং প্রাণহানির ঝুঁকির কথা মাথায় রেখে৷ হর্ষ বর্ধন লিখেছেন, 'রাজ্যগুলির দাবি মেনেই নতুন ভ্যাকসিন নীতি গ্রহণ করা হয়েছে৷ এর ফলে টিকাকরণ প্রক্রিয়ার যেমন বিকেন্দ্রীকরণ হবে, সেরকমই ভ্যাকসিন উৎপাদকরাও আরও বেশি টিকা উৎপাদনে উৎসাহ পাবে৷ পাশাপাশি, বিদেশি উৎপাদকরাও তাঁদের টিকা আমাদের দেশে পাঠাতে আগ্রহী হবে৷ এর ফলে ভ্যাকসিনের সংকটও অনেকটা দূর হবে৷'

    কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর আরও দাবি, এখনও পর্যন্ত রাজ্যকে ১ কোটি ১৮ লক্ষ ৮৩ হাজার ৩৪০ ভ্যাকসিনের ডোজ পাঠিয়েছে কেন্দ্র৷ আরও ২ লক্ষ ডোজ ভ্যাকসিন রাজ্যে পাঠানোর জন্য তৈরি৷ এর পাশাপাশি কেন্দ্রের তরফে ১৮.৩৮ লক্ষ এন৯৫ মাস্ক, ৪.৮৪ লক্ষ পিপিই কিট, ১২৪৫টি ভেন্টিলেটর এবং ৪৩.৫ লক্ষ হাইড্রোক্সিক্লোরোক্যুইন ট্যাবলেট রাজ্যকে দেওয়া হয়েছে বলে মুখ্যমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে মনে করিয়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী৷

    অক্সিজেন সরবরাহ নিয়েও রাজ্যের অভিযোগ খারিজ করেছেন হর্ষ বর্ধন৷ তাঁর দাবি, 'রাজ্যের জন্য পাঁচটি প্রেসার স্যুইং অ্যাডসোর্পসন প্ল্যান্ট মঞ্জুর করা হয়েছে৷ তার মধ্যে দু'টি ইতিমধ্যে চালু হয়ে গিয়েছে৷ এর পাশাপাশি ৮৪৯সডি এবং ১৫০৪ বি টাইপের অক্সিজেন সিলিন্ডার পশ্চিমবঙ্গের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে৷ যার মধ্যে ৭০০ সিলিন্ডার ২১ মে-র আগে রাজ্যকে দিয়ে দেওয়া হবে৷ এর গোটাটাই বিনামূল্যে করে দিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার৷' ২১ এপ্রিল থেকে আগামী ৯ মে-র মধ্যে রাজ্যকে ৯৪,৪০০ রেমডেসিভিরের ভায়াল দেওয়া হয়েছে বলেও দাবি করেছেন হর্ষ বর্ধন৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: