corona virus btn
corona virus btn
Loading

কোভিড ১৯ আক্রান্ত হয়েছিলেন জর্জ ফ্লয়েড, ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা গেল যে যে সত্য...

কোভিড ১৯ আক্রান্ত হয়েছিলেন জর্জ ফ্লয়েড, ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা গেল যে যে সত্য...
Photo- File

আমেরিকায় কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার প্রতিবাদের ঢেউ সারা বিশ্বে, সামনে এল তাঁর মৃত্যুর ময়নাতদন্তের রিপোর্ট

  • Share this:

#মিনিয়াপোলিস:  জর্জ ফ্লয়েড পূর্ণ ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসতেই চাঞ্চল্য ৷ মার্কিন মুলুকে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডকে হ্যান্ডকাফ পরানো অবস্থায় রাস্তাতেই তাঁর মৃত্যু হয়েছিল ৷ মিনিয়াপোলিস পুলিশ তাঁকে ধরার পর রাস্তাতেই তাঁর মৃত্যু, পুলিশের দ্বারা খুন বলে সারা আমেরিকা উত্তাল ৷ এবার মিনিয়াপোলিস পুলিশ সামনে আনল পোস্টমর্টেমের বিভিন্ন ক্লিনিক্যাল ডিটেলস ৷ তাতেই জানা গেছে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছিল জর্জ ফ্লয়েড ৷

২০ পাতার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে , জর্জ ফ্লয়েডের পরিবাবের অনুমতি নিয়ে সেই রিপোর্ট সামনে এসেছে ৷ হেনপিন কাউন্টি মেডিক্যাল এক্সজামিনার অফিস জানিয়েছে পুলিশের হাতে আসার পর তাঁর হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল ৷ ২৫ মে -তে তাঁর মৃত্যুকে খুন বলেছে তারা ৷

ফ্লয়েড ধরা পড়ার পর বারবার বলছিলেন , ‘আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না৷ ’ তা সত্ত্বেও পুলিশ অফিসার ডেরেক শউভিন তাঁকে নিষ্কৃতি দেননি ৷ পথচারীদের তোলা সেই ভিডিও এখন সারা পৃথিবী দেখেছে ৷ কষ্ট পেতে পেতে একটা সময় তাঁর দম শেষ হয়ে রাস্তাতেই তাঁর মৃত্যু হয় ৷ এরপরেই গোটা মার্কিন মুলুকে প্রতিবাদ শুরু হয় ৷ বহুক্ষেত্রেই প্রতিবাদের রূপ সহিংস ৷

প্রধান মেডিক্যাল পরীক্ষক অ্যান্ড্রু বেকার জর্জ ফ্লয়েডের রিপোর্ট সামনে এনে বিভিন্ন ক্লিনিক্যাল ডিটেল জানিয়েছেন ৷ সেই রিপোর্টেই জানা গেছে এপ্রিলের ৩ তারিখ তিনি কোভিড ১৯ পজিটিভ হয়েছিলেন ৷ তবে তিনি অ্যাসিম্পটমেটিক ছিলেন ৷ ফ্লয়েডের ফুসফুস সুস্থ ছিল ৷ তবে তাঁর হার্টের ধমনীগুলি সরু ছিল ৷

কাউন্টির আগের সংক্ষিপ্ত রিপোর্টে ফেন্টানিল নেশা এবং সাম্প্রতিক মেথামফেটামিন ব্যবহার ‘অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অবস্থার’ পরিস্থিতি কথা বলা হয়েছিল৷  তবে ‘মৃত্যুর কারণ’ হিসাবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল এই বিষয়গুলিকে৷  সম্পূর্ণ ময়নাতদন্তে উল্লেখ করা হয়েছে যে ফেনটানেল বিষাক্ততার লক্ষণগুলিতে ‘গুরুতর শ্বাসকষ্ট’ এবং খিঁচুনির অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

মিনেসোটার অ্যাটর্নি জেনারেল কেইথ এলিসন বুধবরা শউভিনের ওপর চার্জের মাত্রা আরও বাড়িয়েছেন ৷ তাঁর বিরুদ্ধে ২ ডিগ্রি মার্ডারের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে ৷ পাশাপাশি বাকি তিন আধিকারিকদের সেই ঘটনায় ইন্ধন যোগানোর অভিযুক্ত করা হয়েছে ৷

ফ্লয়েডের পরিবারের অ্যাটর্নি , বেন ক্র্যাম্প, শউভিনের বিরুদ্ধে সরকারিভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে ৷ ফ্লয়েডের পরিবারের পক্ষ থেকে ময়নাতদন্তে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে ঘাড় এবং পিঠের সংকোচনের কারণে তিনি শ্বাসরোধে মারা গিয়েছিলেন।

Published by: Debalina Datta
First published: June 4, 2020, 12:18 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर